রাসায়নিকের ব্যবস্থাপনা

General Introduction

এই বিভাগের লক্ষ্য হলো নির্মাণমূলক কারখানাগুলোতে দায়িত্বসম্পন্ন রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা কর্মসূচী পরিচালনা করা। একটি কারখানার উৎপাদন প্রক্রিয়াতে এবং পরিচালনার ক্ষেত্রে রাসায়নিকের ব্যবহার পরিবেশ এবং জন স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে চূড়ান্ত বিষাক্ত এবং বিপজ্জনক হতে পারে যদি পদ্ধতি অনুযায়ী এবং যথাযথভাবে তার ব্যবস্থাপনা না করা হয়। রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা আপনার ব্যবসার সমস্ত বিষয়গুলোকে ছুঁয়ে যাবে – ইনভেন্টরি থেকে ক্রয়, থেকে উৎপাদন, থেকে সঞ্চয় এবং বর্জ্যের অবস্থান পর্যন্ত। একটি সুদৃঢ় রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা কর্মসূচীতে নিম্নলিখিত ক্ষেত্রগুলোতে প্রাথমিক এবং উন্নততর অভ্যাস থাকা উচিতঃ

  • রসায়ন ব্যবস্থাপনা নীতি, সামঞ্জস্যপূর্ণতার প্রক্রিয়া, এবং অঙ্গীকার
  • কর্মী প্রশিক্ষণ এবং যোগাযোগ 
  • রাসায়নিক এবং কাঁচামাল যোগাড় এবং ক্রয়ের অভ্যাস
  • রসায়নের তালিকার ব্যবস্থাপনা 
  • রসায়ননের সঞ্চয়, পরিবহন, নাড়াচাড়া এবং ব্যবহারের অভ্যাস
  • জরুরি অবস্থার প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা (এমার্জেন্সি রেসপন্স প্ল্যান, ইআরপি), দুর্ঘটনা, ঘটনা এবং উপচে পড়া উপশমের পরিকল্পনা 
  • পণ্যের অনুসরণযোগ্যতা, গুণগত মান এবং বিশুদ্ধতা
  • রাসায়নিক এবং প্রক্রিয়ার প্রবর্তন  
  • নিরন্তর উন্নতিবিধান

হিগ এফইএম রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা বিভাগ আপনাকে এর প্রতিটি বিভাগে প্রাথমিক থেকে উন্নত অভ্যাসগুলোতে যাওয়ার জন্য পথনির্দেশনা দেয়। দয়া করে মনে রাখবেন যে একটি সুদৃঢ় রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা প্রক্রিয়া প্রস্তুত করার জন্য সমস্ত প্রয়োজনীয় আবশ্যকতাগুলোকে সম্পূর্ণ পূরণ করতে কয়েক বছর লেগে যেতে পারে। জেডডিএইচসি সিএমএস ফ্রেমওয়র্ক সংস্করণ 1.0 ডকুমেন্টটি আরো তথ্যের জন্য দেখা যেতে পারে, https://www.roadmaptozero.com/process#Guidance

মূল্যায়নী প্রশ্নাবলীর উত্তর দেয়ার আগে, রাসায়নিকের প্রয়োজন হয় এরকম উৎপাদন প্রক্রিয়া আপনার কারখানায় রয়েছে কিনা তা নির্দেশ করার জন্য আপনাকে প্রথমে জিজ্ঞাসা করা হবে। আপনার পছন্দগুলো আপনাকে সেইসব প্রশ্নের অভিমুখ নির্দেশ করবে যেগুলো আপনার কারখানার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চরূপে প্রযোজ্য। উৎপাদনে ব্যবহৃত রাসায়নিকের উদাহরণ হলো, রঞ্জক, সিলিকন ফিনিশ, স্ক্রিন ছাপা, দ্রাবক, কালি, লেবেল, পানিকে দূরে রাখার জন্য স্থায়ী রাসায়নিক, সিমেন্ট, ট্যান করার রসায়ন, এবং অন্যান্য রাসায়নিক বর্ধক।  অন্যান্য উদাহরণের অন্তর্ভুক্ত হলো রাসায়নিক প্লাস্টিসাইজার যেটিকে প্লাস্টিকের পণ্য / উপাদানে মেশানো হয়, স্ক্রিন প্রিন্টিঙের জন্য কালি যেটিতে পিগ্‌মেন্ট এবং রেজিন আছে, অথবা দ্রাবক যেটি প্রিন্টিং প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হয়ে যাওয়ার পরে পোশাক থেকে বাষ্পীভূত হয়ে যাওয়া উপাদানগুলোর বাহক হিসেবে ব্যবহার করা হয়।  আমরা আশা করি যে সমস্ত টিয়ের ২ এবং টিয়ের ৩ কারখানাগুলো (উপকরণ সরবরাহকারী, রাঙানোর কাজ এবং প্রিন্টের কারখানা, চামড়ার ট্যানারি, রাসায়নিক সরবরাহকারী, এবং ট্রিম সরবরাহকারী) উৎপাদনে রাসায়নিক ব্যবহার সংক্রান্ত প্রশ্নে “হ্যাঁ” বলবেন।

টীকাঃ হিগ্‌ রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা বিভাগটি সাস্‌টেইনেব্‌ল অ্যাপারেল কোয়ালিশন, আউটডোর ইন্ডাস্ট্রি অ্যাসোসিয়েশন, এবং জিরো ডিসচার্জ অব হ্যাজার্ডাস কেমিক্যাল্‌স-এর মধ্যে একটি জোটের ফলাফল।

রাসায়নিকের পরিচিতি

এই বিভাগগুলোর প্রতিটিতে যাতে খুব ভালো ফল করে সেইদিকে কারখানাগুলোকে চালিত করার জন্য প্রতিটি প্রশ্ন লেখা হয়েছেঃ

  • রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা নীতিসমূহ, সঙ্গতিরক্ষার প্রক্রিয়া, এবং একনিষ্ঠতাঃ যথাযথ রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে কারখানাগুলোর দৃঢ় নীতি এবং প্রক্রিয়াসমূহ সক্রিয় থাকা প্রয়োজন। এই নথিপত্রটি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার জন্য কর্তৃপক্ষের সহায়তা এবং ব্যাপক পরিকল্পনা প্রদর্শন করে। যদিও নথিপত্রগুলো দায়িত্বশীল ব্যবহারের কোনোরূপ নিশ্চয়তা দেয় না, এটিকে একটি জরুরি অগ্রদূত বলা যায়দায়িত্বশীল, পদ্ধতিগত রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে।
  • কর্মীদের প্রশিক্ষণ এবং সংযোগঃ দায়িত্ব সহকারে রাসায়নিকের ব্যবস্থাপনা করার জন্য, রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসা সমস্ত কর্মীদের দায়িত্বশীল ব্যবস্থাপনার চর্চা এবং নির্দেশিকার বিষয়ে অবশ্যই সচেতন হতে হবে।
  • রাসায়নিক নির্বাচন, প্রাপ্তি, এবং ক্রয়ের অভ্যাসঃ প্রাথমিক রাসায়নিক বাধ্যবাধকতাগুলোর সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ থাকার জন্য, একটি জরুরি প্রথম পদক্ষেপ হলো বুঝতে পারা যে কোন রাসায়নিকগুলো কারখানাতে আসছে। একবার যদি আপনি জানতে পারেন যে দরজা দিয়ে কী ভেতরে ঢুকছে, কী কেনা হচ্ছে এবং সেই কিনে আনা রাসায়নিকগুলোর ব্যবস্থাপনার ব্যাপারে আপনি বেশি ভালো ভাবে দায়িত্বশীল সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন।
  • রাসায়নিক তালিকার ব্যবস্থাপনাঃকোন পণ্যগুলোকে সাইটের ভেতরে ব্যবহার করা হয় এবং সেগুলো বাধ্যবাধকতার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ কিনা সে বিষয়ে কারখানার বোঝাপড়াকে সুনিশ্চিত করার জন্য একটি রাসায়নিক তালিকার রক্ষণাবেক্ষণ করা রেকর্ড রাখার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। সঙ্গতি রক্ষায় একটি পণ্য ব্যর্থ হলে তালিকাগুলো তার উৎস সন্ধান করার ক্ষেত্রে জরুরি।
  • রাসায়নিক সঞ্চয়, পরিবহন, নাড়াচাড়া করা এবং ব্যবহার, অভ্যাসসমূহঃ কারখানার চত্বরে রাসায়নিকগুলোকে আনা হলে, কর্মচারীদের অবশ্যই সেগুলোকে যথাযথভাবে সঞ্চয় করা, পরিবহন করা, নাড়াচাড়া করা এবং দায়িত্ব সহকারে ব্যবহার করার বিষয়ে প্রস্তুত থাকতে হবে যাতে পরিবেশ দূষণ এবং/অথবা কর্মচারীদের সংস্পর্শে আসা প্রতিরোধ করা সম্ভব হয়।
  • এমার্জেন্সি রেসপন্স প্ল্যান (ইআরপি), দুর্ঘটনা এবং উপচে পড়া সামলানোর পরিকল্পনাঃ কর্মীদের এবং/অথবা রেস্পন্ডারদের অনিচ্ছাকৃত সম্মুখীন হয়ে পড়া থেকে সুরক্ষা প্রদান করার জন্য, জরুরি রাসায়নিক দুর্ঘটনা সামলানোর জন্য একটি পরিকল্পনা থাকা জরুরি যেটিকে সমস্ত কর্মীরা বাস্তবায়ন করার জন্য প্রস্তুত।
  • পণ্যের অনুসরণযোগ্যতা, গুণগত মান/ বিশুদ্ধতাঃ পণ্যের গুণগত মান সুনিশ্চিত করার উদ্দেশ্যে, আপনার কারখানার নিশ্চিত করা উচিত যে অর্ডার করা রাসায়নিকের গুণগত মান এবং প্রাপ্ত রাসায়নিকের গুণগত মান একই, বিশেষ করে যা পরিবেশগত বাধ্যবাধকতার সঙ্গে সম্পর্কিত এবং সম্পূর্ণ অনুসরণযোগ্যতা সংক্রান্ত নথিপত্র রয়েছে। এটি কারখানাকে একটি অনিচ্ছাকৃত সঙ্গতিহীনতার থেকে অথবা কর্মচারী/পরিবেশের রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসা থেকে রক্ষা করে।
  • রাসায়নিক এবং প্রক্রিয়া সংক্রান্ত উদ্যোগ: রাসায়নিকের ব্যবস্থাপনা একটি জটিল বিষয় যেখানে আমাদের পরিবেশ সংক্রান্ত সমাধানের তুলনায় সমস্যা বেশি আছে। যথাযথভাবে দূষিত পদার্থকে ব্যবস্থাপনা করার পরিবর্তে সেগুলোকে উন্নততর বিকল্প এবং উদ্যোগের মাধ্যমে প্রতিস্থাপন করে যাতে পরিবেশ সংক্রান্ত ক্ষতি কমানো যায় তার জন্য ভ্যালু চেইনের অংশীদারদের একত্রে কাজ করা প্রয়োজন।
  • নিরন্তর উন্নতিসাধন: সিএমএস বাস্তবায়ন একটি নিরন্তর প্রক্রিয়া। সংগঠনে যেরকম পরিবর্তন ঘটে থাকে,  প্রবিধানসমূহ, আবশ্যকতা, নীতিগুলো, এসওপি এবং প্রক্রিয়াসমূহেরও নিরন্তর পর্যালোচনা এবং হালনাগাদ হওয়া প্রয়োজন। সংগঠনের ইতিমধ্যেই একটি চালু প্রক্রিয়া থাকাটা জরুরি।  এই প্রক্রিয়াটিকে অভ্যন্তরীণভাবে এবং/অথবা বহিরাগত লোকজনকে দিয়েও করানো যায়।

উপরোক্ত কেপিআইগুলোকেও আসল ওআইএ রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা মড্যুলের প্রাথমিক উদ্দেশ্য ১-৭-এর প্রেক্ষিতে মানচিত্রায়িত করা হয়েছিল, যেটি সুনিশ্চিত করেছিল যে এই নতুনভাবে সংগঠিত, কারখানার পরিবেশ সংক্রান্ত মড্যুল 3.0 এর মধ্যে সবকটি ধারণাকে রাখা সম্ভব হয়েছে এবং রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা মড্যুল (কেমিক্যাল ম্যানেজমেন্ট মড্যুল, সিএমএম)-এর প্রাথমিক উদ্দেশ্যাবলী হলো যে মূল উচ্চ-স্তরীয় রাসায়নিক ব্যবস্থাপনাকে শিল্পক্ষেত্রে আমাদের চালনা করতে চাওয়া সর্বোত্তম চর্চার অন্য একটি উপায় হিসেবে ভাবা এবং ব্যবহার করা চালিয়ে যাওয়া মেনে নেয়া হবে।

জরুরি — প্রযুক্তিগত নির্দেশনা সংক্রান্ত লিঙ্ক কীভাবে ব্যবহার করা যাবেঃ আমাদের অংশীদার সংগঠনগুলোর একটি, জিরো ডিসচার্জ অব হ্যাজার্ডাস কেমিক্যাল্‌স (জেডডিএইচসি) গোষ্ঠী, হিগ এফইএম প্রশ্নাবলী জুড়ে থাকা রাসায়নিকগুলোর ব্যবস্থাপনার জন্য একটি অনবদ্য নির্দেশিকা তৈরি করেছেন। উদাহরণ স্বরূপ, যদি একটি প্রশ্নে জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ 1.0 (মে 2020) – অধ্যায় ৫”-এর উল্লেখ থাকে সুপারিশ করা ভালো ব্যবস্থাপনাগত অভ্যাস সম্পর্কে আরো তথ্যের জন্য, আপনি এই ডকুমেন্টটি খুলতে পারেন এবং বিভাগ ৫ খুলে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আরো বিশদে জেনে নিতে পারেন।

জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্কঃ 

https://uploads-ssl.webflow.com/5c4065f2d6b53e08a1b03de7/5ec4fce8cc2b044b520491d5_ZDHC%20CMS%20Framework_MAY2020.pdf

আপনার কারখানায় সংঘটিত সমস্ত প্রক্রিয়া বেছে নিনঃ

  • রঞ্জন অথবা অন্যান্য জল-সম্পর্কিত প্রক্রিয়া
  • প্রিন্টিং
  • লণ্ড্রী বা ধোয়াধুয়ি
  • সিমেন্ট লাগানো বা গ্ল্যুইং
  • ফাইবার বার করা বা তন্তু ঘোরানো
  • বয়নকার্য চলাকালীন স্ল্যাশিং
  • চামড়ার ট্যানিং
  • ল্যামিনেশন
  • বহিষ্করণ, জোড়া লাগানো, প্লাস্টিকের অংশগুলোর ফিনিশিং
  • ধাতব ফিনিশিং
  • ঢালাই
  • উৎপাদন সংক্রান্ত অন্যান্য প্রক্রিয়া যেগুলোতে রাসায়নিকের প্রয়োজন হয়

যদি কোনোটিকে বেছে নেয়া হয়, তাহলে আপনি এমন একটি কারখানা যেটি উৎপাদন প্রক্রিয়াতে রাসায়নিক ব্যবহার করে।

  • এটি কারখানার প্রক্রিয়াগুলোকে রেফার করে যেটিতে একটি পণ্য উৎপাদনের প্রক্রিয়াতে রাসায়নিক ব্যবহার করা হয় (যেমন, ডাইং বা অন্যান্য ধরনের  ওয়েট প্রসেসিং, প্রিন্টিং, লন্ড্রি বা ওয়াশিং, ইয়ার্ড স্পিনিং, লেদার ট্যানিং, ইলেক্ট্রোপ্লেটিং, ওয়েল্ডিং, অথবা উৎপাদন সংক্রান্ত অন্যান্য প্রক্রিয়া)। আমরা আশা করি যে প্রতিটি টিয়ার ২ এবং টিয়ার ৩ কারখানা (উপাদান সরবরাহকারী, রঞ্জক এবং ছাপার কারখানা, চামড়ার ট্যানারী, রসায়ন সরবরাহকারী, এবং ট্রিম সরবরাহকারী) এই প্রয়োগযোগ্যতার শ্রেণীভূক্ত হবে।
  • উৎপাদনে ব্যবহৃত রাসায়নিকের উদাহরণ হলো, রঞ্জক, সিলিকন ফিনিশ, স্ক্রিন ছাপা, দ্রাবক, কালি, লেবেল, পানিকে দূরে রাখার জন্য স্থায়ী রাসায়নিক, সিমেন্ট, আঠা, ট্যান করার রসায়ন, এবং অন্যান্য রাসায়নিক বর্ধক। আরেকটি উদাহরণ হলো প্লাস্টিকের পণ্য বা উপাদানে যুক্ত করা একটি রাসায়নিক প্লাস্টিসাইজার। পণ্য তৈরিতে ব্যবহৃত কিছু রাসায়নিক মিশ্রণ চূড়ান্ত পণ্যটিতে থাকে না কিন্তু এখানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়, যেমন স্ক্রিন-প্রিন্টিঙের কালি যেটিতে পিগ্‌মেন্ট এবং রেজিন আছে, এবং একটি দ্রাবক আছে যেটিকে কালির অন্যান্য উপাদানের ধারক হিসাবে ব্যবহার করা হয় এবং যেটি প্রিন্টিং প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হওয়ার পরে পোশাকের থেকে বাষ্পীভূত হয়ে যাবে (অথবা করে দেয়া যাবে)। উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক ব্যবহার করে যেসব কারখানা তাদের ক্ষেত্রে যেখানে প্রযোজ্য সেখানে তাদের টুলিং এবং পরিচালনাগত রাসায়নিকগুলো সম্পর্কে রিপোর্ট করা বাধ্যতামূলক। 

যদি কোনোটি বেছে নেয়া না হয়, তাহলে আপনি এমন একটি কারখানা যেটি  ফেসিলিটি টুলিং এবং/অথবা পরিচালনা প্রক্রিয়াতেই কেবলমাত্র রাসায়নিক ব্যবহার করে

  • এটি সেইসব কারখানাকে রেফার করে যেগুলো উৎপাদন প্রক্রিয়াতে রাসায়নিক ব্যবহার করে না, কিন্তু কারখানার পরিচালনার অন্যান্য ক্ষেত্রে রাসায়নিক ব্যবহার করে, যার অন্তর্ভুক্ত হলো বর্জ্যপানি পরিশোধন। আমরা আশা করি যে টিয়ের 1 কাটা-সেলাই কারখানা, যেগুলো লম্বালম্বিভাবে খন্ডিত নয়, সেগুলো এই শ্রেণীতে পড়বে।  আপনাকে তবুও রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করা হবে যেহেতু আপনার কারখানাতে প্রাত্যহিক কার্যসম্পাদনায় রাসায়নিক ব্যবহার করা হয় যেমন, ধোয়াধুয়ি সংক্রান্ত পণ্য, মেশিন লুব্রিক্যান্ট, স্পট ক্লিনার, রঙ এবং যেখানে প্রযোজ্য, বর্জ্যপানি পরিশোধনের জন্য রাসায়নিক (ইটিপি)।

রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা – স্তর ১

Questions

তালিকায় অন্তর্ভুক্ত সমস্ত রাসায়নিকের ধরনগুলোকে চেক করুন

  • নির্মাণ প্রক্রিয়ায় ব্যবহৃত সমস্ত রাসায়নিক (উৎপাদন, বিক্রিয়াকারী এবং সংযোজকের রাসায়নিক এবং প্রযোজ্য হলে বর্জ্যজল পরিশোধনাগারের রাসায়নিক সহ)
  • টুলিং/যন্ত্রপাতি (স্পট ক্লিনার, লুব্রিক্যান্ট এবং গ্রিজ)-এ ব্যবহৃত সমস্ত রাসায়নিক
  • কারখানা পরিচালনা এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ব্যবহৃত সমস্ত রাসায়নিক (উপরে উল্লিখিত ডাব্ল্যু ডাব্ল্যু টি ছাড়াও)।

আপলোডের জন্য সুপারিশ: ক) রাসায়নিকের ইনভেন্টরির তালিকা; খ) যেখানে প্রযোজ্য সেখানে কিছু বিশেষ সংবেদনশীল রাসায়নিক সঞ্চয় বা ব্যবহারের জন্য অনুমতিপত্র (যেমন, বিস্ফোরক উপাদানসমূহ, অ্যাসিটিক অ্যানহাইড্রাইড, ইউরিয়া, ইথানল, ইত্যাদি, কিছু দেশে নিয়ন্ত্রিত থাকে এবং ব্যবহারের জন্য বিশেষ অনুমতি প্রয়োজন হয়)

সমস্ত তথ্য একটি ডকুমেন্টে থাকার দরকার নেই, কিন্তু প্রাসঙ্গিক ডকুমেন্টগুলোতে এটি সহজভাবে পাওয়ার দরকার আছে (যেমন, ফার্স্ট ইন ফার্স্ট আউট ডকুমেন্টেশন)

  • রাসায়নিকের নাম এবং ধরন
    • উদাহরণ টাইপ করুনঃ রঁজক, ক্লিনিং এজেন্ট, কোটিং-এর উপাদান, ডিটারজেন্ট, সফ্‌নার, ইত্যাদি।
  • সরবরাহকারী/ভেণ্ডরের নাম এবং ধরন
    • উদাহরণের ধরনঃ প্রকৃত নির্মাতা / ফর্ম্যুলেটর, রেফর্ম্যুলেটর, এজেন্ট, ডিস্ট্রিবিউটর, ব্রোকার, অন্যান্য, অজানা।
  • নিরাপত্তা সংক্রান্ত উপাত্তের শীটের উপস্থিতি (সেফটি ডেটা শীট, এসডিএস অথবা এমএসডিএস) – পাওয়া যাবে কিনা সেটা এবং ইস্যু হওয়ার তারিখ অন্তর্ভুক্ত থাকা উচিত
    • গ্লোব্যাল হারমোনাইজেশন সিস্টেম (জিএইচএস)-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ অথবা সমতুল
    • জিএইচএস অথবা তার সমতুল এসডিএস-এ অবশ্যই অন্তর্ভুক্ত হতে হবে  রাসায়নিক পণ্যের তথ্য এবং তার উপাদান, বিপদের শ্রেণীবিভাগ এবং তার সংকেতগুলো, সরবরাহকারীর (নির্মাতার) তথ্য, উদ্দেশিত ব্যবহার/ নির্দিষ্ট ব্যবহার, স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা, সম্ভাব্য বিপদ এবং ঝুঁকি, ব্যক্তিগত সাবধানতা, সুরক্ষামূলক যন্ত্রপাতি এবং জরুরি প্রক্রিয়াসমূহ, প্রাথমিক শুশ্রুষা পদ্ধতি, লক্ষণগুলো এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা, সীমাবদ্ধ করা এবং ক্লিনিং-এর জন্য প্রয়োজনীয় পদ্ধতি এবং উপকরণ, নিরাপদ ব্যবহার এবং নাড়াচাড়া করার পদ্ধতি, উপচে পড়লে তা সামলানোর পদ্ধতি, নিরাপদে সঞ্চয়ের শর্তাবলী যার অন্তর্ভুক্ত হলো যেকোনো অসঙ্গতি, রাসায়নিক বিষাক্ততা, স্থিরতা, তেজষ্ক্রিয়তা, এবং সম্ভাব্য বিপজ্জনক প্রতিক্রিয়া বা নষ্ট হওয়া, নিষ্ক্রমণ এবং বর্জ্য পরিশোধন পদ্ধতিসমূহ, পরিবহনের জন্য বিপদের শ্রেণীবিভাগ এবং ঝুঁকি।
  • ক্রিয়া
  • বর্জ্যের শ্রেণীবিভাগ
    • ঝুঁকির জন্য পি এবং এইচ শব্দবন্ধসমূহকে অবশ্যই অন্তর্ভুক্ত করতে হবে (অথবা এস এবং আর শব্দবন্ধগুলোকে)
  • রাসায়নিক কোথায় ব্যবহার করা হয়
    • যেমন, কোন বিল্ডিং/ প্রক্রিয়া / মেশিনে
  • সঞ্চয়ের শর্ত এবং অবস্থান
  • ব্যবহৃত রাসায়নিকের পরিমাণসমূহ
    • যেমন, গ্যালন, গ্রাম, কিলোগ্রাম, টন, লিটার
  • সিএএস নম্বর(গুলো) (যখন মিশ্রণে থাকে)
  • লট নম্বর
  • এমআরএসএল-এর সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ
  • ক্রয়ের তারিখ
  • রাসায়নিকের কর্মযোগ্যতা শেষ হওয়ার (এক্সপায়ারেশন) তারিখ (যদি প্রযোজ্য হয়)

আপনার কারখানার রাসায়নিক তথ্যভাণ্ডারে অন্তর্ভুক্ত নয় এমন উপাত্তের জন্য, এই উপাত্ত পাওয়ার জন্য কোনো কর্ম-পরিকল্পনা রয়েছে?

এই উপাত্ত পাওয়ার জন্য আপনার কর্ম-পদক্ষেপটি আপলোড করুনঃ

সমস্ত তথ্য একটি ডকুমেন্টে থাকার দরকার নেই, কিন্তু প্রাসঙ্গিক ডকুমেন্টগুলোতে এটি সহজভাবে পাওয়ার দরকার আছে (যেমন, ফার্স্ট ইন ফার্স্ট আউট ডকুমেন্টেশন)

একটি সম্পূর্ণ রাসায়নিক ইনভেন্টরিতে অন্তর্ভুক্ত হবেঃ রাসায়নিকের নাম এবং ধরন, সরবরাহকারী/ভেন্ডরদের নাম এবং ধরন, সুলভ সেফটি ডেটা শীট (এসডিএস অথবা এমএসডিএস) এবং ইস্যু হওয়ার তারিখ, কাজ, ঝুঁকির শ্রেণীবিভাগ, কোথায় ব্যবহার হয়, সঞ্চয়ের অবস্থা এবং অবস্থান, ব্যবহৃত রাসায়নিকের পরিমাণ, সিএএস সংখ্যা(গুলো) যেমনভাবে জিএইচএস / সমতুল  বিপজ্জনক রাসায়নিক পদার্থের এসডিএস-এ বলা আছে, লট সংখ্যাগুলো (যেকোনো অবস্থানে রেকর্ড করা যায় যেটিকে খুব সহজেই অনুসরণ করা যায় বা ট্রেস করা যায়), এমআরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণতা, ক্রয়ের তারিখ, এবং কার্যক্ষমতা শেষ হওয়ার তারিখগুলো (যদি প্রযোজ্য হয়)।

আপনার কারখানায় সমস্ত প্রযোজ্য রাসায়নিকের জন্য যদি আপনার একটি সম্পূর্ণ তালিকা থাকে তাহলে আপনাকে সম্পূর্ণ পয়েন্ট পুরস্কার দেয়া হবে।

যদি একটি আংশিক তালিকায় সমস্ত রাসায়নিকগুলোকে ট্র্যাক করেন, আপনাকে আংশিক পয়েন্ট দেয়া হবে। অনুরূপভাবে, যদি আপনার একটি বিশদ তালিকা থাকে কিন্তু সমস্ত প্রযোজ্য রাসায়নিকগুলোকে এখনও ট্র্যাক করেন না, আপনাকে আংশিক পয়েন্ট দেয়া হবে।

দয়া করে নোট করুনঃ higg.org-এ সমস্ত এসডিএস নথিপত্র আপনার আপলোড করার দরকার নেই যেহেতু প্রচুর পরিমাণে ফাইল এতে অন্তর্ভুক্ত থাকবে; ফাইল আপলোড করার বিষয়টি ঐচ্ছিক। তবে আপনি কোথায় এসডিএস সংক্রান্ত তথ্য সঞ্চয় করেন সেটা আপনার স্পষ্টভাবে চিহ্নিত করতে পারা উচিত, এবং যাচাই চলাকালীন আপনাকে এই তথ্য সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হবে। 

যাচাইকালীন অতিরিক্ত ডকুমেন্টেশন চাওয়া হবেঃ খ) যেখানে প্রযোজ্য বিশেষ কিছু সংবেদনশীল রাসায়নিক সঞ্চয় বা ব্যবহারের জন্য অনুমতিপত্র যেমন, বিস্ফোরক দ্রব্য, ঘ) ক্রয়ের রেকর্ডগুলো।

যে সমস্ত কারখানা উৎপাদনে রাসায়নিক ব্যবহার করে না সেগুলোর টুলিং/যন্ত্রপাতি বিভাগের সাথে সম্পর্কিত সমস্ত রাসায়নিকের একটি তথ্যভাণ্ডার তৈরি করা উচিত, যাতে অন্তর্ভুক্ত থাকবে স্পট ক্লিনার, মেশিন গ্রিজ/লুব্রিক্যান্ট, এবং তরল পরিশোধন সংক্রান্ত রাসায়নিকসমূহ।

কেবলমাত্র টুলিং/পরিচালনা সংক্রান্ত রাসায়নিক রয়েছে যেসব কারখানাগুলোর

যদি আপনার এমন কোনো রাসায়নিক না থাকে যেটি পণ্যকে স্পর্শ করতে পারে (যেমন, ক্লিনিং প্রোডাক্ট) এবং/অথবা মেশিনকে রক্ষণাবেক্ষণ বা তৈলসিক্ত করার প্রয়োজনে রাসায়নিক ব্যবহার না করে থাকেন, তাহলে আপনি “প্রযোজ্য নয়“বেছে নিতে পারেন।

কেবলমাত্র টুলিং/পরিচালনা সংক্রান্ত রাসায়নিক রয়েছে যেসব কারখানাগুলোর

নির্মাণ প্রক্রিয়া এবং টুলিং/যন্ত্রপাতির সাথে সংশ্লিষ্ট সমস্ত রাসায়নিকের তালিকা তৈরি করা উচিত, যার অন্তর্ভুক্ত হলো স্পট ক্লিনার, মেশিন গ্রিজ/লুব্রিক্যান্ট, এবং ইটিপি রাসায়নিক। যদি আপনার এমন কোনো রাসায়নিক না থাকে যেটি পণ্যকে স্পর্শ করতে পারে যেমন, ক্লিনিং প্রোডাক্ট, এবং/অথবা মেশিনকে রক্ষণাবেক্ষণ বা তৈলসিক্ত করার প্রয়োজনে রাসায়নিক ব্যবহার না করে থাকেন, তাহলে আপনি “প্রযোজ্য নয়” বেছে নিতে পারেন।

উৎপাদনে রাসায়নিক ব্যবহার করে যে কারখানাগুলোঃ

  • পুরো স্কোর পাওয়ার জন্য, নির্মাণ, টুলিং/যন্ত্রপাতি, পরিচালনা এবং রক্ষণাবেক্ষণের সমস্ত রাসায়নিককে অবশ্যই তালিকাভূক্ত করতে হবে, যার অন্তর্গত হবে সমস্ত তথ্যাবলী
  • স্তর ২টিকে আনলক করার জন্য নির্মাণে ব্যবহৃত সমস্ত রাসায়নিকগুলোকে অবশ্যই তালিকাভুক্ত করতে হবে।
  • টুলিং/যন্ত্রপাতি, পরিচালনা এবং রক্ষণাবেক্ষণের সমস্ত রাসায়নিককেও অবশ্যই তালিকাভুক্ত করতে হবে, তবে, এগুলো যদি বর্তমানে জায়গায় না থাকে বা অসম্পূর্ণ থাকে তবে কারখানাটি পরবর্তী স্তরে চলে যেতে পারে।
  • আংশিক হ্যাঁ  স্কোর হিসেবে পাওয়ার জন্য নির্মাণ এবং টুলিং/যন্ত্রপাতির সমস্ত রাসায়নিককে অবশ্যই তালিকাভুক্ত করতে হবে।

পরিচালনাগত মূল কর্মকুশলতার সূচক (অপারেশনাল কী পারফরম্যান্স ইণ্ডিকেটর): রাসায়নিক তালিকার ব্যবস্থাপনা

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

এই প্রশ্নটি কারখানার চত্বরে কোন রাসায়নিকগুলো রয়েছে সে সম্পর্কে কারখানার অবহিত থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করে। কোন রাসায়নিকগুলো বিপজ্জনক, সেগুলোকে কীভাবে নিরাপদে ব্যবস্থাপনা করা যায়, এবং একটি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি তৈরি করার ক্ষেত্রে এটি একটি প্রয়োজনীয় প্রথম ধাপ।

এই সমস্ত তথ্য একটি এক্সেল ডকুমেন্টে থাকার প্রয়োজন নেই, বরং একাধিক ডকুমেন্টে রাখা যেতে পারে। উদাহরণ স্বরূপ, পরিমাণ এবং ক্রয়ের তারিখ আলাদা ডকুমেন্টে থাকতে পারে, প্রতিটি রাসায়নিকের শতাধিক ভিন্ন ক্রয়-তারিখ থাকতে পারে যেগুলোকে পৃথক গুদাম সংক্রান্ত ডকুমেন্টেশনে খুঁজে পাওয়া যেতে পারে।

রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা শুরু হয় কারখানার অভ্যন্তরে সঞ্চিত এবং ব্যবহৃত হওয়া রাসায়নিকগুলোর সম্পর্কে সম্পূর্ণ বোঝাপড়ার মাধ্যমে। টেক্সটাইল এবং ফুটওয়্যার শিল্পে অধিকাংশ রাসায়নিক একাধিক শ্রেণীতে পড়তে পারে যেমন অক্সিডাইজার, করোসিভ, প্রেশারে থাকা গ্যাস, দাহ্য, টক্সিক এবং ইরিট্যান্ট।

সাধারণভাবে, আমরা এগুলো কাজের জায়গাতে সর্বত্র দেখতে পাই। অনেক রাসায়নিকই আসে যায় যেহেতু বিভিন্ন রেসিপিই সেগুলোকে প্রতিটি স্বতন্ত্র কাজের পদ্ধতিতে ব্যবহার করে। কারখানাতে সমস্ত পৃথক রাসায়নিকের লিখিত তালিকা থাকা প্রয়োজন বিপজ্জনক সংযোগ পর্যবেক্ষণ করার জন্য, এবং সমস্ত কর্মচারীদের জন্য সহজলভ্য হওয়া উচিত। তালিকা হলো একটি সক্রিয় ডকুমেন্টেশন এবং সব সময় হালনাগাদ রাখতে হবে।

কিছু উপাত্ত ট্র্যাক করার ক্ষেত্রে অধিক উন্নততর এবং একত্রিত করতে সময় লাগবে, কিন্তু একবার একত্রিত হওয়ার পর এটি আপনার সংস্থার জন্য মূল্যবান হবে যেহেতু নতুন প্রবিধান অথবা আরো উন্নত রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার চাহিদা তৈরি হয়।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

কারখানার একটি পদ্ধতি হিসেবে ফার্স্ট ইন, ফার্স্ট আউট (এফআইএফও)-এর বাস্তবায়ন পদ্ধতিটি বুঝতে পারা প্রয়োজন যাতে রাসায়নিক ব্যবহার সংক্রান্ত  তথ্যাবলী কার্যকরীভাবে ট্র্যাক করা যায়।  একটি কারখানা গ্রহণ করতে পারে এমন দুটি পৃথক পদ্ধতি রয়েছে। একটি বিকল্প হলো এই যে কারখানাটি রাসায়নিক ভাণ্ডারের তালিকা রক্ষণাবেক্ষণ করতে পারে যেটি মাসিক ভিত্তিতে হালনাগাদ করা হবে। অথবা, কারখানায় আসা সমস্ত রাসায়নিকের লট নম্বর রাখার জন্য এটি স্টক ডাটা এবং বিপদ সংক্রান্ত তথ্যাবলী সম্বলিত  একটি কেমিক্যাল ইনফরমেশন  শিট রক্ষণাবেক্ষণ করতে পারে। ঘন ঘন রাসায়নিক কেনার সম্ভাবনা রয়েছে এমন ক্ষেত্রে, দ্বিতীয় বিকল্পটি   বাধ্যতামূলক।

একটি ইনভেন্টরি প্রস্তুত করার সময়, উৎপাদন প্রক্রিয়াতে ব্যবহৃত, উৎপাদন প্রক্রিয়ার সহায়ক রূপে ব্যবহৃত, রাসায়নিকগুলো সহ একটি তালিকা তৈরি করুন, যেমন পরিচালনা নির্বাহ হওয়ার মধ্যবর্তী সময়ে ক্লিনিং-এর যন্ত্রপাতিগুলোর জন্য ব্যবহৃত রাসায়নিকগুলো (যেমন, যেসব রাসায়নিক সংগঠনটি পুনর্ব্যবহার করে, বিক্রি করে অথবা ফেলে দেয়), বর্জ্যপানি পরিশোধনের জন্য ব্যবহৃত রাসায়নিক, পরীক্ষাগারে, বয়লারে, চিলারে ব্যবহৃত রাসায়নিক,  শৌচাগার সংক্রান্ত রাসায়নিক, স্পট রিমুভার, রঙ ওঠানোর জন্য দ্রাবক, টেব্‌ল গাম, স্ক্রীন পরিষ্কার করার রাসায়নিক,  স্ক্রীন তৈরি এবং এক্সপোজ করার জন্য ব্যবহৃত রাসায়নিক, ইত্যাদি। উৎপাদনকালে প্রস্তুত ইন্টারমিডিয়েট রাসায়নিকগুলোর তালিকা রাখার দরকার নেই। যেখানে রাসায়নিক ব্যবহার হয় সেখানে রাসায়নিকের যথাযথ ব্যবহার সম্পর্কে  লিখিত নির্দেশনা থাকা উচিত। নির্দেশনা রেসিপি কার্ড, প্রক্রিয়া অভিযোজন সংক্রান্ত নির্দেশাবলী অথবা ফর্ম্যুলেশন শিট হিসেবেও থাকতে পারে এবং প্রধান পরিচালনাসমূহ, এবং সেইসব প্রক্রিয়াগুলোর জন্য প্রয়োজনীয় হতে পারে এমন রাসায়নিক এবং তাদের পরিমাণগুলোকে বিবৃত করবে। রাসায়নিক ব্যবহারের জন্য নির্দেশাবলীর ডকুমেন্টের অন্তর্ভুক্ত থাকা উচিত প্রক্রিয়া নিয়ন্ত্রণের শর্তাবলী এবং চেক পয়েন্টগুলো। সাধারণত, প্রযুক্তিগত ডাটা শিট (টেকনিক্যাল ডেটা শীট, টিডিএস) প্রক্রিয়া এবং ব্যবহারবিধি সংক্রান্ত তথ্য দেবে। রাসায়নিক সরবরাহকারী(দের)র সাথে কাজ করা রেসিপি, নির্দেশনা এবং প্রক্রিয়ার সুবৃদ্ধির জন্য লাভজনক হতে পারে। তালিকাগুলোকে বার্ষিকভাবে অথবা প্রক্রিয়াতে কোনো পরিবর্তন ঘটলে  হালনাগাদ করা উচিত।

রেফঃ জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ 1.0 (মে ২০২০) – অধ্যায় ৫

আপনার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার জিনিসগুলোঃ

    রাসায়নিক চিহ্নিতকরণের ডেটা যেমনটি প্রশ্ন ১খ-তে তালিকাভুক্ত রয়েছেঃ

  • রাসায়নিকের নাম এবং ধরন
    • উদাহরণ টাইপ করুনঃ রঁজক, ক্লিনিং এজেন্ট, কোটিং-এর উপাদান, ডিটারজেন্ট, সফ্‌নার, ইত্যাদি।
  • সরবরাহকারী/ভেণ্ডরের নাম এবং ধরন
    • উদাহরণের ধরনঃ প্রকৃত নির্মাতা / ফর্ম্যুলেটর, রেফর্ম্যুলেটর, এজেন্ট, ডিস্ট্রিবিউটর, ব্রোকার, অন্যান্য, অজানা।
  • নিরাপত্তা সংক্রান্ত উপাত্তের শীটের উপস্থিতি (সেফটি ডেটা শীট, এসডিএস অথবা এমএসডিএস) – পাওয়া যাবে কিনা সেটা এবং ইস্যু হওয়ার তারিখ অন্তর্ভুক্ত থাকা উচিত
    • গ্লোব্যাল হারমোনাইজেশন সিস্টেম (জিএইচএস)-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ অথবা সমতুল
    • জিএইচএস অথবা তার সমতুল এসডিএস-এ অবশ্যই অন্তর্ভুক্ত হতে হবে  রাসায়নিক পণ্যের তথ্য এবং তার উপাদান, বিপদের শ্রেণীবিভাগ এবং তার সংকেতগুলো, সরবরাহকারীর (নির্মাতার) তথ্য, উদ্দেশিত ব্যবহার/ নির্দিষ্ট ব্যবহার, স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা, সম্ভাব্য বিপদ এবং ঝুঁকি, ব্যক্তিগত সাবধানতা, সুরক্ষামূলক যন্ত্রপাতি এবং জরুরি প্রক্রিয়াসমূহ, প্রাথমিক শুশ্রুষা পদ্ধতি, লক্ষণগুলো এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা, সীমাবদ্ধ করা এবং ক্লিনিং-এর জন্য প্রয়োজনীয় পদ্ধতি এবং উপকরণ, নিরাপদ ব্যবহার এবং নাড়াচাড়া করার পদ্ধতি, উপচে পড়লে তা সামলানোর পদ্ধতি, নিরাপদে সঞ্চয়ের শর্তাবলী যার অন্তর্ভুক্ত হলো যেকোনো অসঙ্গতি, রাসায়নিক বিষাক্ততা, স্থিরতা, তেজষ্ক্রিয়তা, এবং সম্ভাব্য বিপজ্জনক প্রতিক্রিয়া বা নষ্ট হওয়া, নিষ্ক্রমণ এবং বর্জ্য পরিশোধন পদ্ধতিসমূহ, পরিবহনের জন্য বিপদের শ্রেণীবিভাগ এবং ঝুঁকি।
  • ক্রিয়া
  • বর্জ্যের শ্রেণীবিভাগ
    • ঝুঁকির জন্য পি এবং এইচ শব্দবন্ধসমূহকে অবশ্যই অন্তর্ভুক্ত করতে হবে (অথবা এস এবং আর শব্দবন্ধগুলোকে)
  • রাসায়নিক কোথায় ব্যবহার করা হয়
    • যেমন, কোন বিল্ডিং/ প্রক্রিয়া / মেশিনে
  • সঞ্চয়ের শর্ত এবং অবস্থান
  • ব্যবহৃত রাসায়নিকের পরিমাণসমূহ
    • যেমন, গ্যালন, গ্রাম, কিলোগ্রাম, টন, লিটার

অতিরিক্ত উপাত্ত প্রশ্ন ১গ-তে তালিকাভুক্ত রয়েছেঃ

  • সিএএস নম্বর(গুলো) (যখন মিশ্রণে থাকে)
  • লট নম্বর
  • এমআরএসএল-এর সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ
  • ক্রয়ের তারিখ
  • রাসায়নিকের কর্মযোগ্যতা শেষ হওয়ার (এক্সপায়ারেশন) তারিখ (যদি প্রযোজ্য হয়)

আরও তথ্যের জন্য কোথায় যেতে হবেঃ 

রাসায়নিকের শ্রেণীবিভাগ এবং লেবেলিং-এর বিশ্বজুড়ে সমন্বিত (গ্লোব্যালি হারমোনাইজড) ব্যবস্থাটির জন্য: https://www.unece.org/trans/danger/publi/ghs/ghs_rev08/08files_e.html

 

জেডডিএইচসি সিআইএল টেমপ্লেট: https://www.roadmaptozero.com/documents

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিকযেসব কারখানা ব্যবহার করে :

পুরো পয়েন্টঃ

  • রাসায়নিকের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত থাকে সেই সমস্ত রাসায়নিক যেগুলোকে নির্মাণ, টুলিং/যন্ত্রপাতি, পরিচালনা এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ব্যবহার করা হয় (যার অন্তর্ভুক্ত হলো উৎপাদনের জন্য রাসায়নিক, স্পট ক্লিনার, ইটিপি রাসায়নিক, গ্রিজ এবং লুব্রিক্যান্ট, যেখানে প্রযোজ্য)। প্রয়োগযোগ্যতার নির্দেশাবলী দেখুন
  • কারখানা একটি সম্পূর্ণ বছরে কেনা রাসায়নিক, এবং কেনা ও তালিকাভূক্ত সমস্ত রাসায়নিকের তালিকা কারখানা প্রদান করতে পারে।
  • একটি রাসায়নিক ইনভেন্টরিতে ন্যূনতম তথ্য থাকে যার মধ্যে আছে রাসায়নিক চিহ্নিতকরণের উপাত্ত এবং অতিরিক্ত উপাত্তঃ
    • রাসায়নিক চিহ্নিতকরণের উপাত্ত – প্রশ্ন ১খ -তে তালিকাভুক্ত তালিকাটি দেখুন, এবং
    • অতিরিক্ত উপাত্ত – প্রশ্ন ১গ-তে তালিকাভুক্ত তালিকাটি দেখুন
  • রাসায়নিক ভাণ্ডার ব্যবহারিক পরিমাণের তথ্য রেকর্ড করবে এবং পরিমাণ মাসে অন্তত একবার হালনাগাদ করতে হবে
  • একটি স্টোরেজ/গুদামঘরে, উৎপাদনস্থলে, এবং অস্থায়ী স্টোরেজ এলাকাতে একটি প্রকৃত সময় ট্র্যাকিং পদ্ধতি (বৈদ্যুতিন বা ম্যানুয়্যাল) থাকতে হবে যাতে রাসায়নিকের ব্যবহার্য আয়তন এবং পরিমাণ (ইন/আউট লগ) ট্র্যাক করা যায়
  • কারখানা জুড়ে রাসায়নিকের ভারসাম্য চেক করা (কেনা, ব্যবহৃত) প্রতি ৬ মাসে অন্তত একবার করতে হবে
  • নতুন কোনো রাসায়নিক কেনা হলেই রাসায়নিকের তালিকাভাণ্ডার (ইনভেন্টরি) হালনাগাদ করা হয়। নতুন একটি রাসায়নিকের যুক্ত হওয়া কর্মচারীদের জন্য একটি প্রশিক্ষণ, যেকোনো ঝুঁকি এবং স্টোরেজ সংক্রান্ত বাধ্যবাধকতা, জরুরি অবস্থার জন্য পরিকল্পনা, এবং নিষ্ক্রমণ সংক্রান্ত বাধ্যবাধকতার একটি পর্যালোচনা আরম্ভ করে।
  • নতুন রাসায়নিকসমূহ যাচাই প্রক্রিয়ার আগেঃ পি-এর সাথে মিলিয়ে দেখার আগে স্টক বা সঞ্চয়স্থলে সরানো হয় না।ও,  রাসায়নিক ইনভেন্টরি তালিকায় যুক্ত করা হয়, এমআরএসএল-এর প্রেক্ষিতে সিএএস নম্বর মিলিয়ে দেখা হয়, ব্যবহারের জন্য গ্রহণযোগ্য, এর ঝুঁকির শ্রেণীবিভাগ এবং সামঞ্জস্য অনুযায়ী যথাযথ সঞ্চয়স্থল বরাদ্দ করা হয়, এবং যথাযথভাবে লেবেল লাগানো হয়।

আংশিক পয়েন্টগুলোঃ

  • রাসায়নিকের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত থাকে সেই সমস্ত রাসায়নিক যেগুলোকে নির্মাণ, টুলিং/যন্ত্রপাতি, এবং পরিচালনার জন্য ব্যবহার করা হয় (যার অন্তর্ভুক্ত হলো উৎপাদনের জন্য রাসায়নিক, স্পট ক্লিনার, ইটিপি রাসায়নিক, গ্রিজ এবং লুব্রিক্যান্ট, যেখানে প্রযোজ্য)। প্রযোজ্যতার নির্দেশাবলী দেখুন
  • কেনা রাসায়নিক এবং অন্তত নির্মাণ এবং টুলিং/যন্ত্রপাতি-এর জন্য কেনা সমস্ত তালিকাভুক্ত রাসায়নিকের একটি পুরো বছরের তালিকা কারখানা প্রদান করতে পারে।
  • একটি রাসায়নিক ইনভেন্টরি রাসায়নিক চিহ্নিতকরণের উপাত্ত বিষয়ে ন্যূনতম তথ্য রাখে।
    • রাসায়নিক চিহ্নিতকরণের উপাত্ত – প্রশ্ন ১খ -তে তালিকাভুক্ত তালিকাটি দেখুন
  • রাসায়নিক ভাণ্ডার ব্যবহারিক পরিমাণের তথ্য রেকর্ড করবে এবং পরিমাণ ২ মাসে অন্তত একবার হালনাগাদ করতে হবে।

কেবলমাত্র কারখানার পরিচালনার কাজে রাসায়নিক ব্যবহার করে যেসব কারখানা 

পুরো পয়েন্টঃ

  • রাসায়নিকের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত থাকে সেই সমস্ত রাসায়নিক যেগুলোকে নির্মাণ, টুলিং/যন্ত্রপাতি, পরিচালনা এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ব্যবহার করা হয় (যার অন্তর্ভুক্ত হলো উৎপাদনের জন্য রাসায়নিক, স্পট ক্লিনার, ইটিপি রাসায়নিক, গ্রিজ এবং লুব্রিক্যান্ট, যেখানে প্রযোজ্য)। প্রযোজ্যতার নির্দেশাবলী দেখুন
  • কারখানা একটি সম্পূর্ণ বছরে কেনা রাসায়নিক, এবং কেনা ও তালিকাভূক্ত সমস্ত রাসায়নিকের তালিকা কারখানা প্রদান করতে পারে।
  • ন্যূনতম তথ্যাবলী সমেতই একটি রাসায়নিকের তালিকা রাখা যেতে পারেঃ
    • প্রশ্ন ১খ-তে তালিকাভুক্ত রাসায়নিক চিহ্নিতকরণের উপাত্ত দেখুন এবং,
    • প্রশ্ন ১গ-তে তালিকাভুক্ত অতিরিক্ত উপাত্ত দেখুন
  • নতুন কোনো রাসায়নিক কেনা হলেই রাসায়নিকের তালিকাভাণ্ডার (ইনভেন্টরি) হালনাগাদ করা হয়। নতুন একটি রাসায়নিকের যুক্ত হওয়া কর্মচারীদের জন্য একটি প্রশিক্ষণ, যেকোনো ঝুঁকি এবং স্টোরেজ সংক্রান্ত বাধ্যবাধকতা, জরুরি অবস্থার জন্য পরিকল্পনা, এবং নিষ্ক্রমণ সংক্রান্ত বাধ্যবাধকতার একটি পর্যালোচনা আরম্ভ করে।
  • নতুন রাসায়নিকের রসিদ(গুলোকে) যাচাই প্রক্রিয়ার আগেঃ পি-এর সাথে মিলিয়ে দেখার আগে সঞ্চয়স্থলে সরানো হয় না।ও,  রাসায়নিক ইনভেন্টরি তালিকায় যুক্ত করা হয়, এমআরএসএল-এর প্রেক্ষিতে সিএএস নম্বর মিলিয়ে দেখা হয়, ব্যবহারের জন্য গ্রহণযোগ্য, এর ঝুঁকির শ্রেণীবিভাগ এবং সামঞ্জস্য অনুযায়ী যথাযথ সঞ্চয়স্থল বরাদ্দ করা হয়, এবং যথাযথভাবে লেবেল লাগানো হয়।

আংশিক পয়েন্টগুলোঃ

  • রাসায়নিকের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত থাকে সেই সমস্ত রাসায়নিক যেগুলোকে নির্মাণ, টুলিং/যন্ত্রপাতি, এবং পরিচালনার জন্য ব্যবহার করা হয় (যার অন্তর্ভুক্ত হলো উৎপাদনের জন্য রাসায়নিক, স্পট ক্লিনার, ইটিপি রাসায়নিক, গ্রিজ এবং লুব্রিক্যান্ট, যেখানে প্রযোজ্য)। প্রযোজ্যতার নির্দেশাবলী দেখুন
  • কেনা রাসায়নিক এবং অন্তত নির্মাণ এবং টুলিং/যন্ত্রপাতি-এর জন্য কেনা সমস্ত তালিকাভুক্ত রাসায়নিকের একটি পুরো বছরের তালিকা কারখানা প্রদান করতে পারে।
  • ন্যূনতম তথ্যাবলী সমেতই একটি রাসায়নিকের তালিকা রাখা যেতে পারেঃ 
    • প্রশ্ন ১খ-তে তালিকাভুক্ত রাসায়নিক চিহ্নিতকরণের উপাত্ত দেখুন
  • এনএ (প্রযোজ্য নয় যন্ত্রপাতি-বিহীন) কারখানাগুলোর জন্য

আবশ্যক ডকুমেন্টঃ (এগুলো আপলোড করা বাধ্যতামূলক নয় কিন্তু যাচাইয়ের সময় চেক করা হবে):

  • রাসায়নিক ভাণ্ডারের তালিকা (রাসায়নিক ইনভেন্টরির তালিকা)
  • নিরাপত্তা সংক্রান্ত উপাত্তের শীট (সেফটি ডেটা শীট, এসডিএস অথবা এমএসডিএস) – পাওয়া যাওয়ার বিষয়টি এবং ইস্যু হওয়ার তারিখ অন্তর্ভুক্ত থাকা উচিত
    • গ্লোব্যাল হারমোনাইজেশন সিস্টেম (জিএইচএস)-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ অথবা সমতুল
    • জিএইচএস অথবা তার সমতুল এসডিএস-এ অবশ্যই অন্তর্ভুক্ত হতে হবে  রাসায়নিক পণ্যের তথ্য এবং তার উপাদান, বিপদের শ্রেণীবিভাগ এবং তার সংকেতগুলো, সরবরাহকারীর (নির্মাতার) তথ্য, উদ্দেশিত ব্যবহার/ নির্দিষ্ট ব্যবহার, স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা, সম্ভাব্য বিপদ এবং ঝুঁকি, ব্যক্তিগত সাবধানতা, সুরক্ষামূলক যন্ত্রপাতি এবং জরুরি প্রক্রিয়াসমূহ, প্রাথমিক শুশ্রুষা পদ্ধতি, লক্ষণগুলো এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা, সীমাবদ্ধ করা এবং ক্লিনিং-এর জন্য প্রয়োজনীয় পদ্ধতি এবং উপকরণ, নিরাপদ ব্যবহার এবং নাড়াচাড়া করার পদ্ধতি, উপচে পড়লে তা সামলানোর পদ্ধতি, নিরাপদে সঞ্চয়ের শর্তাবলী যার অন্তর্ভুক্ত হলো যেকোনো অসঙ্গতি, রাসায়নিক বিষাক্ততা, স্থিরতা, তেজষ্ক্রিয়তা, এবং সম্ভাব্য বিপজ্জনক প্রতিক্রিয়া বা নষ্ট হওয়া, নিষ্ক্রমণ এবং বর্জ্য পরিশোধন পদ্ধতিসমূহ, পরিবহনের জন্য বিপদের শ্রেণীবিভাগ এবং ঝুঁকি।
  • যেখানে প্রযোজ্য সেখানে অনুমতিপত্র বিশেষভাবে সংবেদনশীল রাসায়নিক সঞ্চয় বা ব্যবহারের জন্য যেমন, বিস্ফোরক উপকরণ (ইথানল, অ্যাসেটিক অ্যাহাইড্রাইড, ইউরিয়া, ইত্যাদি, কিছু দেশে যেভাবে প্রযোজ্য)
  • বিগত গোটা বছরে কেনা রাসায়নিকগুলো এবং তাদের সাথে সমন্বিত ক্রয়ের রেকর্ডের তালিকা

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • একটি নিখুঁত, হালনাগাদ করা, এবং সম্পূর্ণ রাসায়নিক তালিকাভান্ডার রক্ষণাবেক্ষণ করার প্রক্রিয়া আলোচনা করা।

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • রাসায়নিক ভাণ্ডারতালিকায় যে কোনো গ্যাপ পড়লে কেনা রাসায়নিকগুলোর তালিকা/রেকর্ড চেক করুন।
  • রাসায়নিক ভাণ্ডারতালিকায়, এফআইএফও রেকর্ড, অথবা অন্যান্য প্রাসঙ্গিক ডকুমেন্ট যাতে বাধ্যতামূলক উপাত্ত থাকে সেগুলোকে চেক করুন। রাসায়নিক ভাণ্ডারের অন্যত্র রেকর্ড করা হয়ে থাকতে পারে যেসব উপাত্ত সেগুলোর অনুসরণযোগ্যতা পরীক্ষা করুন।
  • রাসায়নিক ভাণ্ডার, পারমিট, এবং পিপিই-এর সাথে শ্রমিকদের সঙ্গতিরক্ষার বিষয়টি  যেকোনো সময় খুঁটিয়ে দেখার জন্য কারখানার ভেতরে হাঁটুন।
  • অন-সাইট অন্তত ১০টি রাসায়নিক র‍্যাণ্ডম চেক করুন (অন-সাইট যতগুলো রাসায়নিক ব্যবহার করা হয় তার সম্পূর্ণ সংখ্যার ভিত্তিতে), যার অন্তর্ভুক্ত থাকবে নির্মাণ, টুলিং/যন্ত্রপাতি, পরিচালনা এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রয়োজনীয় রাসায়নিক দেখার জন্য যেঃ
  • রাসায়নিক ইনভেন্টরিতে রাসায়নিকটি রেকর্ড করা আছে; এবং
  • রাসায়নিক ইনভেন্টরিতে তথ্যাদি প্রকৃত লেবেল এবং এমএসডিএস/এসডিএস-এর সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ।

যেখানে বিপজ্জনক রাসায়নিক সঞ্চিত থাকে সেখানে কি সেফটি ডাটা শিট পোস্ট করা হয়?

কর্মচারীদের জন্য সহজবোধ্য ভাষায় কি সেফটি ডাটা শিট পাওয়া যায় (অন্তত যেসব বিভাগগুলো প্রত্যক্ষভাবে পরিচালনামূলক কর্মচারীদের নিরাপত্তা এবং সঞ্চয়ের বাধ্যবাধকতার সঙ্গে জড়িত, যেমন ফার্স্ট এইড, ঝুঁকি, এবং দাহ্যতা সংক্রান্ত তথ্য)?

আপলোডের জন্য সুপারিশ: ক) ছবি যা দেখায় যে কর্মস্থলে এসডিএস রয়েছে এবং তা কর্মীরা পেতে পারেন; খ) ঐচ্ছিক সেফটি ডেটা শীট (এসডিএস), গ্লোব্যাল হারমোনাইজেশন সিস্টেম (জিএইচএস) সঙ্গতিপূর্ণ অথবা সমতুল (আগে আপলোড করে থাকলে ছেড়ে দিন। এগুলো আপলোড করার দরকার নেই কিন্তু যাচাইকালীন পর্যালোচনার জন্য পেতে হবে); গ) সিএলপি-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ লেবেল যদি কোনো কারণে এসডিএস না পাওয়া যায়

যাচাইকালীন বাড়তি ডকুমেন্টেশন চাওয়া হবেঃ ঘ)  রাসায়নিক ইনভেন্টরি তালিকা, ৩) এমার্জেন্সি রেসপন্স প্ল্যান (জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা), ঙ) উপচে পড়া/ সামলানোর যন্ত্রপাতির ডকুমেন্টেশন , চ) কর্মীদের দ্বারা উপযুক্ত পিপিই ব্যবহৃত হচ্ছে তার ডকুমেন্টেশন, ছ) প্রশিক্ষণের ডকুমেন্টেশন

সেফটি ডাটা শিট অবশ্যই গ্লোব্যাল হারমোনাইজেশন সিস্টেম (জিএইচএস)-এর সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ বা সমতুল থাকতে হবে। 

আংশিক হ্যাঁ বেছে নিন যদি উৎপাদন/নির্মাণ প্রক্রিয়া, টুলিং-এর জন্য ব্যবহৃত সমস্ত রাসায়নিক এবং তরল পরিশোধনযোগ্য রাসায়নিকের জিএইচএস অথবা সমতুল নির্দেশনা না থাকে।

দয়া করে নোট করুনঃ higg.org-এ সমস্ত এসডিএস নথিপত্র আপনার আপলোড করার দরকার নেই যেহেতু প্রচুর পরিমাণে ফাইল এতে অন্তর্ভুক্ত থাকবে; ফাইল আপলোড করার বিষয়টি ঐচ্ছিক। তবে আপনি কোথায় এসডিএস সংক্রান্ত তথ্য সঞ্চয় করেন সেটা আপনার স্পষ্টভাবে চিহ্নিত করতে পারা উচিত, এবং যাচাই চলাকালীন আপনাকে এই তথ্য সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হবে।

উৎপাদনে রাসায়নিক ব্যবহার করে না এমন কারখানাগুলোর জন্যঃ সেফটি ডাটা শিট বাধ্যতামূলক সেই সমস্ত রাসায়নিকের জন্য যেগুলো নির্মাণ প্রক্রিয়া এবং টুলিং/যন্ত্রপাতি বিভাগ, যার অন্তর্ভুক্ত হলো স্পট ক্লিনার, মেশিন গ্রিজ/লুব্রিক্যান্ট, এবং তরল পরিশোধনাগার রাসায়নিকের সঙ্গে সম্পর্কিত। যদি আপনার এমন কোনো রাসায়নিক না থাকে যেটি পণ্যকে স্পর্শ করতে পারে (যেমন, ক্লিনিং প্রোডাক্ট) এবং/অথবা মেশিনকে রক্ষণাবেক্ষণ বা তৈলসিক্ত করার প্রয়োজনে রাসায়নিক ব্যবহার করে না, তাহলে “প্রযোজ্য নয়” বেছে নিন।

পরিচালনামূলক প্রধান কর্মকুশলতার সূচক (অপারেশনাল কী পারফর্ম্যান্স  ইন্ডিকেটর): রাসায়নিক নাড়াচাড়া, ব্যবহার, এবং সঞ্চয়ের চর্চা এবং কর্মীদের প্রশিক্ষণ ও সংযোগ

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

এই কারখানার কাছে কারখানায় ব্যবহৃত সমস্ত রাসায়নিক পণ্য সম্পর্কিত সম্পূর্ণ সেফটি ডাটা শিট (এসডিএস) থাকাটা প্রত্যাশা করা হচ্ছে।  সঞ্চিত, ব্যবহৃত এবং নিষ্কাশিত রাসায়নিকের থেকে স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা সম্পর্কিত প্রভাবের বিষয়টি নিয়ন্ত্রণ চিহ্নিত করার জন্য গ্লোব্যাল হারমোনাইজেশন সিস্টেম (জিএইচএস)-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ অথবা সমতুল সেফটি ডাটা শিট রাসায়নিক তথ্যাদির একটি প্রাথমিক সূত্র হিসেবে ব্যাপকভাবে স্বীকৃত। যদি কারখানা এমন জায়গায় অবস্থিত হয় যেখানে জিএইচএস এখনও বসানো হয়নি, সমতুল একটি মানদণ্ড মেনে চলতে হবে। কারখানাকে রাসায়নিক ব্যবহার করার আগে সেফটি ডাটা শিট (এসডিএস) সংগ্রহ এবং পর্যালোচনা করতে হবে, যাতে এসডিএস-এর সমস্ত জরুরি তথ্য সম্পূর্ণ এবং স্পষ্টভাবে বোঝার বিষয়টি নিশ্চিত করা যায়। এসডিএস একটি ডকুমেন্ট যেখানে সম্ভাব্য ঝুঁকি (স্বাস্থ্য, আগুন, তেজষ্ক্রিয়তা এবং পরিবেশগত) এবং রাসায়নিক পণ্য নিয়ে কীভাবে নিরাপদে কাজ করতে হবে সে সম্পর্কে তথ্যাদি থাকে। সেফটি ডাটা শিট (এসডিএস) থাকার বিষয়টি আসন্ন প্রশিক্ষণ এবং এই বিভাগের ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত আচরণের একটি ভূমিকা।

সেফটি ডাটা শিট (এসডিএস) রাসায়নিক সংক্রান্ত বিপদ, স্বাস্থ্য, এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত একটি সম্পূর্ণ কার্যক্রম গঠন শুরু করার জন্য একটি অত্যাবশ্যকীয় বিন্দু।  তাদেরকে সংস্পর্শে আসতে হবে এমন কোনো রাসায়নিক পণ্য সম্পর্কে কেউ কোনো তথ্য চাইলে এটি যেকোনো ব্যক্তির জন্য একটি আবশ্যক ডকুমেন্ট। রাসায়নিক খুবই বিপজ্জনক হতে পারে, বিশেষ করে যদি আপনি সেগুলোকে বারংবার নাড়াচাড়া করতে থাকেন অথবা যদি সেগুলোকে যথাযথভাবে সঞ্চয়, পরিবহন, বা ব্যবহার না করা হয়।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকা একজন ব্যক্তির জন্য এসডিএস-এ প্রাপ্য সমস্ত প্রয়োজনীয় তথ্য বুঝতে পারাটা এবং এসডিএস-এ প্রদত্ত তথ্যের নির্ভুলতা এবং পর্যাপ্ততা বুঝতে পারাটা দরকারি। বিপদ চিহ্নিত করা এবং রাসায়নিক উপাদানের তথ্যাবলীর বিবরণ যথাযথ রয়েছে কিনা তা দেখার জন্য এই বিভাগগুলোতে দেয়া সমস্ত তথ্য মূল্যায়ণ করা হবে এবং খুঁটিয়ে দেখা হবে।  রাসায়নিকের বাক্সের উপরের লেবেল এবং এসডিএস-এ ঘোষিত তথ্য সম্পর্কিত এবং যাচাইকৃত হতে হবে। ভেতরে আসা সমস্ত রাসায়নিকের লেবেলগুলোকে যাচাই করতে হবে এবং সেগুলো আসল হতে হবে ও জিএইচএস সিএলপি বা দেশভিত্তিক প্রবিধানের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ হতে হবে।

সেইসব ক্ষেত্রে যেখানে নির্দিষ্ট টুলিং/ক্লিনিং রাসায়নিক যথাযথ জিএইচএস-এর সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয় /এসডিএস-এর সমতুল নয়, পণ্যের উপরকার লেবেল দেখে নিন যেখানে উপকরণগুলোর বিবরণ এবং বিপদের সংকেতও থাকা উচিত। সেইসব ক্ষেত্রে, যেখানে যথাযথ লেবেল বা এসডিএস সহজপ্রাপ্য নয়, রাসায়নিকটি সম্পর্কে কারখানাটিকে যথাসাধ্য তথ্য আহরণ করা সম্ভব তা করতে হবে। আসল লেবেলটি জিএইচএস সিএলপি অথবা দেশভিত্তিক প্রবিধানের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ হওয়া উচিত।

আরো বিশদ বোঝাপড়ার জন্যঃ

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

যেসব কারখানা ব্যবহার করে উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক:

হ্যাঁ

  • সম্পূর্ণ এবং হালনাগাদ করা এমএসডিএস/এসডিএস (রাসায়নিক সরবরাহকারীদের কাছে হালনাগাদ করার জন্য আবেদন করা হয় অন্তত প্রতি ৩ বছর অন্তর) পাওয়া যাবে সমস্ত রাসায়নিকের জন্য।
  • কর্মচারীদের জন্য সহজবোধ্য ভাষায় এমএসডিএস/ সেফটি ডাটা শিট পাওয়া যায় (অন্তত যেসব বিভাগগুলো প্রত্যক্ষভাবে পরিচালনামূলক বিভাগের কর্মচারীদের নিরাপত্তা এবং সঞ্চয়ের বাধ্যবাধকতার সঙ্গে জড়িত, যেমন প্রাথমিক শুশ্রুষা, ঝুঁকি, এবং দাহ্যতা সংক্রান্ত তথ্য)।
  • এমএসডিএস/এসডিএস অনুযায়ী মূল বিপদ এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত তথ্যাদি প্রতিটি নির্দিষ্ট রাসায়নিকের জন্য নির্দিষ্ট প্রতিটি অবস্থানে স্পষ্টভাবে/ দৃশ্যমানভাবে প্রদর্শিত হতে হবে।
  • এমএসডিএস/এসডিএস হলো গ্লোব্যাল হারমোনাইজেশন সিস্টেম (জিএইচএস)-এর সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ (অথবা তার সমতুল)।
  • এমএসডিএস/এসডিএস জরুরি প্রতিক্রিয়া দলের সঙ্গে অভ্যন্তরীণভাবে এবং বহিরাগতভাবেও শেয়ার করা হয় যাতে জরুরি পরিস্থিতির জন্য পর্যাপ্ত প্রস্তুতির পরিকল্পনা করা সম্ভব হয়।
  • যেসব রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসবেন সেগুলোর ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত নিরাপত্তা, স্বাস্থ্য, এবং যথাযথভাবে রাসায়নিকগুলোকে নাড়াচাড়া করার বিষয়ে কীভাবে   এমএসডিএস/ এসডিএস পড়তে এবং বুঝতে হবে সেই বিষয়ে এবং যখন দরকার তখন যথাযথভাবে সেগুলোকে নিষ্ক্রমণ করানোর জন্য কর্মচারীদের  (যার অন্তর্ভুক্ত কিন্তু সীমিত নয়ঃ রাসায়নিক পরিচালনা এবং বিপজ্জনক বর্জ্য নাড়াচাড়া করা) প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।
  • শারীরিক বাধা বা বিপদের শ্রেণীবিভাগ, এবং/অথবা সিএলপি লেবেলের মাধ্যমে  রাসায়নিক সঞ্চয় এলাকা যথাযথভাবে পৃথক করা রয়েছে, এবং প্রবেশপথ ও কাজের জায়গায় যথাযথ সংকেত রয়েছে এবং এই সমস্ত জায়গাগুলোতে যথাযথ নিয়ন্ত্রিত অ্যাক্সেসের ব্যবস্থাও রয়েছে।

আংশিক হ্যাঁঃ

  • এমএসডিএস/এসডিএস জিএইচএস ফরম্যাটে নেই, তবে এতে সমস্ত দরকারি তথ্য আছে, যার অন্তর্ভুক্ত হলো তবে এগুলোতেই সীমাবদ্ধ নয়ঃ রাসায়নিক পণ্যের তথ্য এবং তার উপাদান, বিপদের শ্রেণীবিভাগ এবং তার সংকেতগুলো, সরবরাহকারীর (নির্মাতার) তথ্য, উদ্দেশিত ব্যবহার/ নির্দিষ্ট ব্যবহার, স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা, সম্ভাব্য বিপদ এবং ঝুঁকি, ব্যক্তিগত সাবধানতা, সুরক্ষামূলক যন্ত্রপাতি এবং জরুরি প্রক্রিয়াসমূহ, প্রাথমিক শুশ্রুষা পদ্ধতি, লক্ষণগুলো এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা, সীমাবদ্ধ করা এবং ক্লিনিং-এর জন্য প্রয়োজনীয় পদ্ধতি এবং উপকরণ, নিরাপদ ব্যবহার এবং নাড়াচাড়া করার পদ্ধতি, উপচে পড়লে তা সামলানোর পদ্ধতি, নিরাপদে সঞ্চয়ের শর্তাবলী যার অন্তর্ভুক্ত হলো যেকোনো অসঙ্গতি, রাসায়নিক বিষাক্ততা, স্থিরতা, তেজষ্ক্রিয়তা, এবং সম্ভাব্য বিপজ্জনক প্রতিক্রিয়া বা পচন ধরা, নিষ্ক্রমণ এবং বর্জ্য পরিশোধন পদ্ধতিসমূহ, পরিবহনের জন্য বিপদের শ্রেণীবিভাগ এবং ঝুঁকি।
  • সম্পূর্ণ এবং হালনাগাদ করা এমএসডিএস/এসডিএস (অন্তত প্রতি ৩ বছর অন্তর) পাওয়া যাবে সমস্ত রাসায়নিকের জন্য।
  • কর্মচারীদের জন্য সহজবোধ্য ভাষায় এমএসডিএস/এসডিএস পাওয়া যায় (অন্তত যেসব বিভাগগুলো প্রত্যক্ষভাবে পরিচালনামূলক বিভাগের কর্মচারীদের নিরাপত্তা এবং সঞ্চয়ের বাধ্যবাধকতার সাথে জড়িত, যেমন প্রাথমিক শুশ্রুষা, ঝুঁকি, এবং দাহ্যতা সংক্রান্ত তথ্য)।
  • এমএসডিএস/এসডিএস অনুযায়ী মূল বিপদ এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত তথ্যাদি প্রতিটি নির্দিষ্ট রাসায়নিকের জন্য নির্দিষ্ট প্রতিটি অবস্থানে স্পষ্টভাবে/ দৃশ্যমানভাবে প্রদর্শিত হতে হবে।
  • এমএসডিএস/এসডিএস জরুরি প্রতিক্রিয়া দলের সঙ্গে অভ্যন্তরীণভাবে এবং বহিরাগতভাবেও শেয়ার করা হয় যাতে জরুরি পরিস্থিতির জন্য পর্যাপ্ত প্রস্তুতির পরিকল্পনা করা সম্ভব হয়।
  • যেসব রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসবেন সেগুলোর ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত নিরাপত্তা, স্বাস্থ্য, এবং যথাযথভাবে রাসায়নিকগুলোকে নাড়াচাড়া করার বিষয়ে এবং যখন দরকার তখন যথাযথভাবে সেগুলোকে নিষ্ক্রমণ করানোর জন্য  কীভাবে এমএসডিএস/   এসডিএস পড়তে এবং বুঝতে হবে সেই বিষয়ে কর্মচারীদের  প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

কেবলমাত্র কারখানার পরিচালনার কাজে রাসায়নিক ব্যবহার করে যেসব কারখানা 

হ্যাঁঃ 

  • সম্পূর্ণ এবং হালনাগাদ করা এসডিএস (অন্তত প্রতি ৩ বছর অন্তর) পাওয়া যাবে সমস্ত রাসায়নিকের জন্য।
  • কর্মচারীদের জন্য সহজবোধ্য ভাষায় এমএসডিএস/এসডিএস পাওয়া যায় (অন্তত যেসব বিভাগগুলো প্রত্যক্ষভাবে পরিচালনামূলক বিভাগের কর্মচারীদের নিরাপত্তা এবং সঞ্চয়ের বাধ্যবাধকতার সাথে জড়িত, যেমন প্রাথমিক শুশ্রুষা, ঝুঁকি, এবং দাহ্যতা সংক্রান্ত তথ্য)।
  • এমএসডিএস/এসডিএস অনুযায়ী মূল বিপদ এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত তথ্যাদি প্রতিটি নির্দিষ্ট রাসায়নিকের জন্য নির্দিষ্ট প্রতিটি অবস্থানে স্পষ্টভাবে/ দৃশ্যমানভাবে প্রদর্শিত হতে হবে।
  • এমএসডিএস/এসডিএস হলো গ্লোব্যাল হারমোনাইজেশন সিস্টেম (জিএইচএস)-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ (অথবা তার সমতুল), যেখানে প্রযোজ্য, যেমন অনেকটা রাসায়নিকঃ তেল এবং লুব্রিক্যান্ট, ইটিপি রাসায়নিক, ইত্যাদি। অন্যান্য ফরম্যাটে এমএসডিএস/এসডিএস (জিএইচএস বিহীনফরম্যাটে যেমন পণ্য সংক্রান্ত নির্দেশাবলীর ম্যান্যুয়াল) কম পরিমাণের রাসায়নিকের জন্য গৃহীত হতে পারে যেমন স্পট ক্লিনার, স্প্রে গ্রীজ, ইত্যাদি, যতক্ষণ পর্যন্ত এতে সমস্ত দরকারি তথ্য থাকবে, যেমনঃ রাসায়নিক পণ্যের তথ্যাবলী এবং তার গঠনগত উপাদান, বিপদের শ্রেণীবিভাগ এবং সংকেত, সরবরাহকারীর (নির্মাতা) তথ্য, উদ্দেশিত ব্যবহার/নির্দিষ্ট সমাপ্তিগত ব্যবহার (এন্ড ইউজ), স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত সম্ভাব্য বিপদ এবং ঝুঁকি, ব্যক্তিগত সাবধানতা, সুরক্ষামূলক যন্ত্রপাতি এবং জরুরি প্রক্রিয়া, প্রাথমিক শুশ্রুষা পদ্ধতি, লক্ষণ এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা, নিরাপদ ব্যবহার এবং নাড়াচাড়ার পদ্ধতি, নিরাপদ সংরক্ষণের শর্তাবলী যাতে অন্তর্ভুক্ত হলো যেকোনো অসামঞ্জস্য, নিষ্ক্রমণ এবং বর্জ্য পরিশোধন পদ্ধতি।
  • এমএসডিএস/এসডিএস জরুরি প্রতিক্রিয়া দলের সাথে অভ্যন্তরীণ ভাবে এবং বহিরাগতভাবেও শেয়ার করা হয় যাতে জরুরি পরিস্থিতির জন্য পর্যাপ্ত প্রস্তুতির পরিকল্পনা করা সম্ভব হয়।
  • যেসব রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসবেন সেগুলোর ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত নিরাপত্তা, স্বাস্থ্য, এবং যথাযথভাবে রাসায়নিকগুলোকে নাড়াচাড়া করার বিষয়ে এবং যখন দরকার তখন যথাযথভাবে সেগুলোকে নিষ্ক্রমণ করানোর জন্য কীভাবে এমএসডিএস/   এসডিএস পড়তে এবং বুঝতে হবে সেই বিষয়ে কর্মচারীদের  প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

আংশিক হ্যাঁঃ

  • সম্পূর্ণ এবং হালনাগাদ করা এসডিএস (অন্তত প্রতি ৩ বছর অন্তর) পাওয়া যাবে সমস্ত রাসায়নিকের জন্য।
  • কর্মচারীদের জন্য সহজবোধ্য ভাষায় এমএসডিএস/এসডিএস পাওয়া যায় (অন্তত যেসব বিভাগগুলো প্রত্যক্ষভাবে পরিচালনামূলক বিভাগের কর্মচারীদের নিরাপত্তা এবং সঞ্চয়ের বাধ্যবাধকতার সাথে জড়িত, যেমন প্রাথমিক শুশ্রুষা, ঝুঁকি, এবং দাহ্যতা সংক্রান্ত তথ্য)।
  • এমএসডিএস/এসডিএস অনুযায়ী মূল বিপদ এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত তথ্যাদি প্রতিটি নির্দিষ্ট রাসায়নিকের জন্য নির্দিষ্ট প্রতিটি অবস্থানে স্পষ্টভাবে/ দৃশ্যমানভাবে প্রদর্শিত হতে হবে।
  • এমএসডিএস/এসডিএস জিএইচএস ফরম্যাটেনেই, তবে এতে সমস্ত প্রয়োজনীয় তথ্য আছে, যেমনঃ রাসায়নিক পণ্যের তথ্যাবলী এবং তার গঠনগত উপাদান, বিপদের শ্রেণীবিভাগ এবং সংকেত, সরবরাহকারীর (নির্মাতা) তথ্য, উদ্দেশিত ব্যবহার/নির্দিষ্ট সমাপ্তিগত ব্যবহার (এন্ড ইউজ), স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত সম্ভাব্য বিপদ এবং ঝুঁকি, ব্যক্তিগত সাবধানতা, সুরক্ষামূলক যন্ত্রপাতি এবং জরুরি প্রক্রিয়া, প্রাথমিক শুশ্রুষা পদ্ধতি, লক্ষণ এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা, নিরাপদ ব্যবহার এবং নাড়াচাড়ার পদ্ধতি, নিরাপদ সংরক্ষণের শর্তাবলী যাতে অন্তর্ভুক্ত হলো যেকোনো অসামঞ্জস্য, নিষ্ক্রমণ এবং বর্জ্য পরিশোধন পদ্ধতি।
  • এমএসডিএস/এসডিএস জরুরি প্রতিক্রিয়া দলের সাথে অভ্যন্তরীণ ভাবে এবং বহিরাগতভাবেও শেয়ার করা হয় যাতে জরুরি পরিস্থিতির জন্য পর্যাপ্ত প্রস্তুতির পরিকল্পনা করা সম্ভব হয়।
  • যেসব রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসবেন সেগুলোর ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত নিরাপত্তা, স্বাস্থ্য, এবং যথাযথভাবে রাসায়নিকগুলোকে নাড়াচাড়া করার বিষয়ে এবং যখন দরকার তখন যথাযথভাবে সেগুলোকে নিষ্ক্রমণ করানোর জন্য কীভাবে এমএসডিএস/   এসডিএস পড়তে এবং বুঝতে হবে সেই বিষয়ে কর্মচারীদের  প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।
  • এনএ (প্রযোজ্য নয় যন্ত্রপাতি-বিহীন) কারখানাগুলোর জন্য

আবশ্যক ডকুমেন্টঃ (এগুলো আপলোড করা বাধ্যতামূলক নয় কিন্তু যাচাইয়ের সময় চেক করা হবে):

  • রাসায়নিকের বর্ণনামূলক তালিকা (কেমিক্যাল ইনভেন্টরি লিস্ট, সিআইএল)
  • সেফটি ডাটা শিট (এসডিএস বা এমএসডিএস) হলো গ্লোব্যাল হারমোনাইজেশন সিস্টেম (জিএইচএস)-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ অথবা সমতুল [আগের প্রশ্নে আপলোড করে থাকলে ছেড়ে দিন]
  • গ্লোব্যালি হারমোনাইজড সিস্টেম – শ্রেণীবিভাগ, লেবেল লাগানো এবং মোড়কজাত করা (জিএইচএস সিএলপি)
  • জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা
  • উপচে পড়া নিয়ন্ত্রণ / সীমাবদ্ধ করার যন্ত্রপাতির নথিপথ (ডকুমেন্টেশন)
  • যথাযথ পিপিই কর্মচারীদের দ্বারা ব্যবহার হচ্ছে সে বিষয়ে ডকুমেন্টেশন
  • প্রশিক্ষণ সংক্রান্ত নথি (ডকুমেন্টেশন)
  • উপরোক্ত বিষয়বস্তুর নির্ভুলতা যাচাই করা উচিত

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • এমএসডিএস/এসডিএস এবং সিএলপি বিষয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক এবং কর্মীদের বোঝাপড়া পরীক্ষা করুন।
  • তাদের কাজের জায়গায় কি বিভিন্ন রাসায়নিকের শ্রেণীভিত্তিক বিপদ সম্পর্কে তারা ব্যাখ্যা দিতে সক্ষম হয়েছেন?
  • সামঞ্জস্যপূর্ণতা সম্পর্কে তাদের বোঝাপড়া পরীক্ষা করুন যেমন ক্ষয়িষ্ণু এবং দাহ্য রাসায়নিক, ইত্যাদি। ভিন্ন বিপদের শ্রেণীবিভাগ-সম্পন্ন রাসায়নিকগুলোর ক্ষেত্রে কারখানাটি কীভাবে  সঞ্চয়ের ব্যবস্থা করে?
  • ভিন্ন বিপদের সংকেত সম্পর্কে তাদের বোঝাপড়া পরীক্ষা করুন। চাকরিতে রাসায়নিকের বিপদের ক্ষেত্রে শেষ কবে তারা প্রশিক্ষণ পেয়েছিলেন রাসায়নিক নাড়াচাড়া করার সময় প্রয়োজনীয় পিপিই-এর যথাযথ প্রয়োগ সম্পর্কেও জিজ্ঞাসা করুন।

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ       

  • রাসায়নিক রাখার সবকটি আধারে (ব্যবহৃত হচ্ছে এবং ভাণ্ডারে রয়েছে) যথাযথ লেবেল লাগানো আছে কিনা দেখুনঃ রাসায়নিকের নাম, এসডিএস-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ বিপদের শ্রেণীবিভাগ, ব্যাচ/লট নম্বর, নির্মাণের তারিখ।
  • ৫টি রঞ্জক পদার্থ (যদি প্রযোজ্য হয়) এবং ৫টি অক্সিলিয়ারি, অথবা কারখানায়  রয়েছে এমন ১০টি বিভিন্ন রাসায়নিক পরীক্ষা করুন দেখার জন্য যে এমএসডিএস/এসডিএস সম্পূর্ণ আছে কিনা (অন্তর্ভুক্ত আছে বিশদে সমস্ত তথ্য এবং বিভাগ) এবং অন-সাইট পাওয়া যাচ্ছে কিনা।
  • কয়েকটি প্রক্রিয়ার নমুনা পর্যালোচনা করুন যেমন রাসায়নিক সঞ্চয় করা, পৃথক করা, এবং নিষ্ক্রমণ করানো, এমএসডিএস/এসডিএস-এর বাধ্যবাধকতার সাথে কি সেগুলো সঙ্গতিপূর্ণ?
  • ভাণ্ডারজাত করার ক্ষেত্রে এমএসডিএস/এসডিএস-এর কোনো বিশেষ ধরনের  শর্তাবলী কি বাধ্যতামূলক (যেমন, সামঞ্জস্য থাকা, নিয়ন্ত্রিত আর্দ্রতা, তাপমাত্রার সংবেদনশীলতা, পানির তেজষ্ক্রিয়তা, ইত্যাদি)? তত্ত্বাবধায়ক / ম্যানেজার কি এই আবশ্যকতাগুলো বুঝতে পেরেছেন এবং পূরণ করেছেন?
  • কর্মচারীরা যে ধরনের রাসায়নিক নাড়াচাড়া করছেন সেগুলোর জন্য এসডিএস-এ তালিকাভুক্ত বাধ্যবাধকতার সাথে মেলে এমন যথাযথ পিপিই তারা ব্যবহার করছেন কিনা সেটি পরীক্ষা করে দেখুন
  • উপচানো নিয়ন্ত্রণ / সামলানোর জন্য যথাযথ যন্ত্রপাতি রয়েছে
  • রাসায়নিক ভাণ্ডারের এলাকাগুলোতে যথাযথ সংকেতাবলী রয়েছে

আরও তথ্যের জন্য কোথায় যেতে হবেঃ 

যদি তা হয়, আপনার প্রশিক্ষণে অন্তর্ভুক্ত সমস্ত বিষয়গুলো বেছে নিনঃ

কত জন কর্মচারীকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছিল? 

আপনি আপনার কর্মীদের কত ঘন ঘন প্রশিক্ষণ প্রদান করেন?

সুপারিশ করা আপলোডঃ ক) প্রশিক্ষণ, প্রশিক্ষণের মাধ্যমে শেখানো বিষয়বস্তুর নমুনা; খ) প্রশিক্ষণের ক্যালেণ্ডার; গ) কর্মচারীদের প্রশিক্ষণে উপস্থিতদের তালিকা

প্রশিক্ষণ অবশ্যই নথিবদ্ধ হতে হবে এবং এর অন্তর্ভুক্ত হতে হবে রাসায়নিক বিপদ এবং চিহ্নিতকরণ; এমএসডিএস/এসডিএস; সংকেতসমূহ; সামঞ্জস্য এবং ঝুঁকি; যথাযথভাবে সঞ্চয় করা এবং নাড়াচাড়া করা; জরুরি পরিস্থিতি, দুর্ঘটনা, অথবা উপচে পড়ার ঘটনায় ব্যক্তিগত সুরক্ষা যন্ত্রপাতি এবং প্রক্রিয়াসমূহ; রাসায়নিক সঞ্চয় এলাকাতে যাতায়াতে নিষেধাজ্ঞা; ট্যাঙ্কে থাকা রাসায়নিকের সম্ভাব্য পরিবেশগত প্রভাব; এই আধারগুলো যেখানে ব্যবহার করা হয়, সঞ্চয় করা হয় এবং পরিবহন করা হয় সেইসব এলাকাতে কর্মচারীদের দেয়া শারীরিক সুরক্ষাব্যবস্থা; এবং এই সুরক্ষাব্যবস্থাকে নজরে রাখা এবং রক্ষণাবেক্ষণ করার সাথে সম্পর্কিত তাদের ব্যক্তিগত কর্তব্য।

রেফারেন্সঃ জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ 1.0 (মে ২০২০) – অধ্যায় ৪

আংশিক হ্যাঁ লিখুন যদি আপনার নথিপত্র না থাকে অথবা আপনি তালিকাভূক্ত সমস্ত বিষয়বস্তু নিয়ে কাজ না করে থাকেন তবে।

পরিচালনামূলক প্রধান কর্মকুশলতার সূচক (অপারেশনাল কী পারফর্ম্যান্স  ইন্ডিকেটর): রাসায়নিক নাড়াচাড়া, ব্যবহার, এবং সঞ্চয়ের চর্চা এবং কর্মীদের প্রশিক্ষণ ও সংযোগ

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

কর্মচারীদের রাসায়নিকগুলো নাড়াচাড়া করতে দেয়ার আগে কারখানাকে দিয়ে নাড়াচাড়া/নিরাপত্তার উপর একটি প্রশিক্ষণ করানোই এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য।

প্রশিক্ষণের উপকরণের একটি অভ্যন্তরীণ বিপজ্জনক এবং বিপদহীন রাসায়নিকসমূহ, তাদের নাড়াচাড়া করার পদ্ধতি, নিয়ন্ত্রণের পরিমাপ এবং জরুরি পরিস্থিতির তালিকা থাকা উচিত।

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

হ্যাঁঃ 

  • নিয়মিতভাবে প্রশিক্ষণ দেয়া হয় (অন্তত ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে অথবা এমন একটি হারে যেটি টার্নওভাররের হার অনুযায়ী নতুন কর্মীদের প্রশিক্ষণ দেয়াতে পারে) এবং ডকুমেন্ট করা হয়।
  • প্রশিক্ষণের বিষয়বস্তুগুলোর অন্তর্ভুক্ত হতে হবেঃ রাসায়নিক বিপদ এবং চিহ্নিতকরণ; এমএসডিএস/এসডিএস; সংকেতসমূহ; সামঞ্জস্য এবং ঝুঁকি; যথাযথভাবে সঞ্চয় করা এবং নাড়াচাড়া করা; জরুরি পরিস্থিতি, দুর্ঘটনা, অথবা উপচে পড়ার ঘটনায় ব্যক্তিগত সুরক্ষা যন্ত্রপাতি এবং প্রক্রিয়াসমূহ; রাসায়নিক সঞ্চয় এলাকাতে যাতায়াতে নিষেধাজ্ঞা; ট্যাঙ্কে থাকা রাসায়নিকের সম্ভাব্য পরিবেশগত প্রভাব; এই আধারগুলো যেখানে ব্যবহার করা হয়, সঞ্চয় করা হয় এবং পরিবহন করা হয় সেইসব এলাকাতে কর্মচারীদেরকে দেয়া শারীরিক সুরক্ষাব্যবস্থা; এবং এই সুরক্ষাব্যবস্থাকে নজরে রাখা এবং রক্ষণাবেক্ষণ করার সাথে সম্পর্কিত তাদের ব্যক্তিগত কর্তব্য
  • রাসায়নিক পরিচালনা সংক্রান্ত কাজের জন্যদায়বদ্ধ সমস্ত কর্মীরা প্রশিক্ষণে উপস্থিত ছিলেন।

আংশিক হ্যাঁঃ

  • পরিস্থিতি ১ঃ প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছিল কিন্তু সেটিকে ডকুমেন্ট করা হয়নি, অথবা সমস্ত সংশ্লিষ্ট কর্মচারীদের দেয়া সম্ভব হয়নি, অথবা নিয়মিতভাবে দেয়া হয়নি (বার্ষিক)।
  • পরিস্থিতি ২ঃ প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছিল এবং ডকুমেন্টেশনও করা হয়েছিল কিন্তু সমস্ত প্রয়োজনীয় বিষয়ে দেয়া যায়নি যেমন, রাসায়নিক বিপদ এবং তার চিহ্নিতকরণ,  এমএসডিএস/এসডিএস, সংকেত, সামঞ্জস্য এবং ঝুঁকি, যথাযথভাবে ভাণ্ডারজাত করা এবং নাড়াচাড়া করা, পিপিইগুলো, এবং জরুরি পরিস্থিতি, দুর্ঘটনা, অথবা উপচে পড়লে প্রক্রিয়া।

নথিপত্র আবশ্যকঃ 

  • সমস্ত বিষয়গুলোকে অন্তর্ভুক্তকারী প্রশিক্ষণের ডকুমেন্ট (সম্পূর্ণ হ্যাঁ উত্তর দেয়ার জন্য)
  • আংশিক ডকুমেন্টেশন অথবা কেবলমাত্র আংশিক বিষয়বস্তু অন্তর্ভুক্তকারী  প্রশিক্ষণ যেটিকে ডকুমেন্টেড করা হয়েছে

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ 

  • সাইটের মধ্যে দিয়ে ঘুরে ঘুরে দেখার সময় যে সমস্ত কর্মীরা রাসায়নিক সংক্রান্ত পরিচালনা ব্যবস্থা সামলান তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করুন যাতে তারা রাসায়নিকের বিপদ, ঝুঁকি, যথাযথভাবে নাড়াচাড়া করা, পিপিই, এবং জরুরি পরিস্থিতিতে বা উপচে পড়লে কি করতে হবে সে সম্পর্কে অবগত কিনা তা জানা যায়।

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ 

  • প্রশিক্ষণের উপকরণ পর্যালোচনা করুন
  • প্রশিক্ষণের উপকরণের বিষয়ে প্রধান কর্মীরা জানাতে পারবেন এবং প্রশিক্ষণে প্রদত্ত রূপরেখা অনুযায়ী প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে পারবেন।

এই বিষয়ে কতজন কর্মীরা প্রশিক্ষিত হয়েছিল? 

আপনি এই বিষয়ে আপনার কর্মীদের কত ঘন ঘন প্রশিক্ষণ প্রদান করেন?

আপনার কারখানা কি রাসায়নিক স্পিল্‌ এবং জরুরি প্রতিক্রিয়ার সাথে সম্পর্কিত সমস্ত কর্মচারী এবং পরিবেশগত ঘটনাবলীর রেকর্ড রাখে?

আপলোড করুনঃ জরুরি অবস্থার পরিকল্পনা/ কার্যপ্রণালী 

নির্দেশিকা অনুসারে রাসায়নিক উপচে পড়া এবং জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনার ক্ষেত্রে বাধ্যবাধকতাগুলোকে অবশ্যই পূরণ করতে হবে, এবং বছরে দুবার সমস্ত কর্মচারীদের অবশ্যই একটি প্র্যাক্টিস ড্রিল-এ অংশগ্রহণ করতে হবে।

রেফারেন্সঃ জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ 1.0 (মে ২০২০) – অধ্যায়  4.3

যদি আপনার রাসায়নিক উপচে পড়া এবং জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা থাকে, কিন্তু সেটির সমস্ত বাধ্যবাধকতাগুলো এখনও পূরণ না করা হয়ে থাকে অথবা আপনার প্র্যাক্টিস ড্রিল না থাকেআংশিক হ্যাঁ বেছে নিন

সেইসব কারখানাগুলোর জন্য যারা উৎপাদনে রাসায়নিক ব্যবহার করে নাঃ

হ্যাঁ বলুন যদি আপনার রাসায়নিক এবং উপচে পড়া সংক্রান্ত পরিকল্পনাগুলোর বাধ্যবাধকতা পূরণ করেন, তবে দ্বি-বার্ষিক প্র্যাক্টিস ড্রিলের প্রয়োজন নেই।

অপারেশনাল কী পারফর্ম্যান্স ইন্ডিকেটরঃ জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা (এমার্জেন্সি রেসপন্স প্ল্যান, ইআরপি), দুর্ঘটনা এবং স্পিল রেমেডিয়েশন প্ল্যান

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

প্রত্যাশা হলো যে কারখানাটি স্পষ্টভাবে প্রদর্শন করতে সক্ষম হবে যে রাসায়নিক সংক্রান্ত কোনো জরুরি পরিস্থিতি তৈরি হলে কর্মচারীরা জানেন যে তাদের কী করতে হবে। সমস্ত কর্মচারীদের কোনো ঘটনা ঘটলে ব্যবস্থা নেয়ার প্রক্রিয়া অবশ্যই জানতে হবে – কেবলমাত্র সুরক্ষা সংক্রান্ত যন্ত্রপাতি থাকাই যথেষ্ট নয়। কোনো ডকুমেন্ট পর্যালোচনা করা বা কাউকে জিজ্ঞাসা করার জন্য না থেমে প্রতিক্রিয়া তাৎক্ষণিক হওয়া প্রয়োজন – যে কারণে পর্যাবৃত্ত অভ্যাস জরুরি (স্কুলে ফায়ার ড্রিলের মতো)।

রাসায়নিক সংক্রান্ত জরুরি পরিস্থিতির ক্ষেত্রে একটি পরিকল্পনা থেকে থাকলে সেটি কর্মচারীদের মধ্যে এবং কম্যুনিটিতে হতাহতের ঘটনা এবং সংগঠনে সম্ভাব্য আর্থিক ধ্বস নামা প্রতিরোধ করতে পারে। এমার্জেন্সিতে সময় এবং পরিস্থিতির অর্থ হলো যে কর্তৃপক্ষ এবং সংযোগ স্থাপনের জন্য স্বাভাবিক চ্যানেলের উপর নিয়মিতভাবে কাজ করার জন্য নির্ভর করা যাবে না। পরিস্থিতির চাপ খারাপ সিদ্ধান্তের কারণ হতে পারে যার ফলে তীব্র ক্ষতি হতে পারে। রাসায়নিক সংক্রান্ত জরুরি পরিস্থিতির পরিকল্পনাকে পর্যাবৃত্ত হারে পর্যালোচনা করা আপনার কারখানাকে সম্পদহীনতার বিষয়টির সমাধান করতে (যন্ত্রপাতি, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কর্তাব্যক্তি, সরবরাহ) অথবা এমার্জেন্সি তৈরি হওয়ার আগেই সচেতনতা তৈরি করতে সাহায্য করতে পারে। এছাড়াও, জরুরি পরিস্থিতির পরিকল্পনা নিরাপত্তা সংক্রান্ত সচেতনতাকে প্রোমোট করে এবং কর্মচারীদের নিরাপত্তার প্রতি সংগঠনের একনিষ্ঠতা দেখায়। মহানগরপালিকার যথাযথ কর্তাব্যক্তিদের সাথেও কথা বলা দরকার যেহেতু প্রধান এমার্জেন্সিগুলোর সময় নিয়ন্ত্রণ স্থানীয় সরকারের হাতে থাকতে পারে এবং অতিরিক্ত সম্পদ সহজপ্রাপ্য হতে পারে। সংযোগ স্থাপন, প্রশিক্ষণ এবং পর্যাবৃত্ত হারে ড্রিল পর্যাপ্ত কর্মকুশলতার বিষয়টিকে নিশ্চিত করবে যদি পরিকল্পনাটিকে আবশ্যিকভাবে নির্বাহ করার দরকার হয়।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

  • কারখানার জন্য একটি লিখিত, হালনাগাদ করা জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা (সমগ্র কর্মস্থলই এর আওতাধীন) থাকা আবশ্যক। এতে কীভাবে বিল্ডিং ফাঁকা করতে হবে সে সম্পর্কে বিশদে নির্দেশাবলী, যোগাযোগের নাম/খালি করার প্রক্রিয়ার দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিদের তথ্য অন্তর্ভুক্ত থাকতে হবে।
  • পালানোর জন্য প্রাথমিক এবং দ্বিতীয় পথগুলো সম্পর্কে সরল নির্দেশনা গুরুত্বপূর্ণ   জায়গাতে, প্রবেশপথে এবং এলিভেটোর, টেলিফোন ইত্যাদির কাছে লাগানো থাকতে হবে।
  • জরুরি প্রতিক্রিয়ার নেতৃবৃন্দকে নির্দিষ্ট কর্তব্য দেয়া উচিত, যেমন সমস্ত কর্মচারীরা বেরিয়ে গিয়েছেন কিনা সেটি যাচাই করে দেখা।
  • অক্ষমতা-সম্পন্ন কর্মচারীদের এবং অতীতে নির্দিষ্ট শারীরবৃত্তীয় সমস্যা রয়েছে এমন ব্যক্তিদের নিরাপদে বার করে নেয়ার জন্য একজন এমার্জেন্সি রেসপন্স লিডার স্থির করতে হবে।
  • অপসারণ প্রক্রিয়াকে আটকাতে পারে বা বাধা দিতে পারে এমন উপকরণ সিঁড়িতে না রেখে খালি রাখতে হবে। 
  • বাস্তবে আগুন লেগে যাওয়ার আগে সমস্যাগুলোকে চিহ্নিত করার জন্য নিয়মিত ফায়ার ড্রিল অভ্যাস করাতে হবে এবং চিহ্নিত করতে পারা এই সমস্যাজনক ক্ষেত্রগুলোতে, একটি সংশোধনী এবং প্রতিরোধমূলকপদক্ষেপ নেয়ার জন্য কাজ করুন এবং সেটিকে বাস্তবায়ন করুন। ড্রিলকে সব সময় প্রকৃত এমার্জেন্সির মত করেই বিবেচনা করতে হবে।
  • জরুরি ফোন নম্বরগুলো যেমন এমার্জেন্সি, দমকল এবং অভ্যন্তরীণ এমার্জেন্সি রেসপন্স নেতাদের প্রত্যেক ফোনের কাছে পোস্ট করতে হবে।

এমার্জেন্সি রেসপন্স পরিকল্পনার সাথে:

  • ত্বক বা চোখে চলে গিয়ে থাকতে পারে এমন রাসায়নিক সরিয়ে ফেলার জন্য একটি এমার্জেন্সি শাওয়ার এবং আই ওয়াশ স্টেশন রক্ষণাবেক্ষণ করে আসতে হবে।
  • একটি প্রাথমিক শুশ্রুষার বাক্স রাখুন যেটিকে স্পষ্টভাবে চিহ্নিত করা আছে, সহজপ্রাপ্য হবে এবং ধুলা ও পানির বিরুদ্ধে সুরক্ষিত আছে।  বাক্সে থাকতে হবেঃ 
    • মাসিক ভিত্তিতে পরীক্ষা করে দেখাকে নথিবদ্ধ করার জন্য পরিদর্শনের ট্যাগ
    • স্থানীয় ভাষায় লিখিত প্রাথমিক শুশ্রুষার নির্দেশাবলী এবং ব্যবহারের তারিখ শেষ হওয়ার তারিখ সহ সমস্ত জিনিসের একটি তালিকা

রেফারেন্সঃ

  • জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ 1.0 (মে ২০২০) – অধ্যায়  4.3

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিকযেসব কারখানা ব্যবহার করে :

হ্যাঁঃ 

  • জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা / প্রক্রিয়া ন্যূনতম নির্দেশিকা সম্বলিত কাগজে থাকে যা জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ ১.০ (মে ২০২০) – অধ্যায় ৪.৩ থেকে প্রাপ্ত এবং এই পদার্থগুলোর কোনোভাবে দুর্ঘটনাজনিত প্রকাশ হলে পরিবেশ রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপগুলোও থাকে।
  • পর্যাবৃত্ত ভাবে প্র্যাক্টিস/ড্রিল সংঘটিত হয় (বছরে অন্তত ২ বার) এবং ভালোভাবে নথিবদ্ধ করা হয়
  • প্র্যাক্টিস/ড্রিলে সমস্ত কর্মচারীদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়

আংশিক হ্যাঁঃ

  • জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা / প্রক্রিয়া রয়েছে কিন্তু জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ ১.০ (মে ২০২০) – অধ্যায় ৪.৩ দ্বারা প্রদত্ত ন্যূনতম নির্দেশিকা নেই
  • প্র্যাক্টিস/ড্রিল নথিবদ্ধ করা হয় এবং পর্যাবৃত্ত ভাবে সংঘটিত হয় কিন্তু বছরে ২ বারের কম

কেবলমাত্র কারখানার পরিচালনার কাজে রাসায়নিক ব্যবহার করে যেসব কারখানা 

হ্যাঁ

  • জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা / প্রক্রিয়া ন্যূনতম নির্দেশিকা সম্বলিত কাগজে থাকে যা জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ ১.০ (মে ২০২০) – অধ্যায় ৪.৩ থেকে প্রাপ্ত

আংশিক হ্যাঁঃ

  • জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা / প্রক্রিয়া রয়েছে কিন্তু ন্যূনতম নির্দেশিকা নেই যা জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ ১.০ (মে ২০২০) – অধ্যায় ৪.৩ প্রদান করে
  • এনএ (প্রযোজ্য নয় যন্ত্রপাতি-বিহীন) কারখানাগুলোর জন্য

নথিপত্র আবশ্যকঃ

  • জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা / প্রক্রিয়া ন্যূনতম নির্দেশিকা সহ রয়েছে যা জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ ১.০ (মে ২০২০) – অধ্যায় ৪.৩ থেকে প্রাপ্ত (সম্পূর্ণ হ্যাঁ-বাচক পয়েন্টের জন্য)
  • জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা / প্রক্রিয়া রয়েছে কিন্তু ন্যূনতম নির্দেশিকা নেই যা জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ ১.০ (মে ২০২০) – অধ্যায় ৪.৩ থেকে প্রাপ্ত (আংশিক হ্যাঁ-বাচক পয়েন্টের জন্য)

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • এমার্জেন্সি রেসপন্স প্ল্যানের জন্য দায়বদ্ধ ঊর্ধ্বতন ম্যানেজার
  • প্রশিক্ষণ এবং ড্রিলের জ্ঞান সম্পর্কে অবহিত ম্যানেজার/কর্মীরা

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • লিখিত এবং অভ্যাস করা এমার্জেন্সি রেসপন্স প্ল্যান
  • স্পষ্টভাবে চিহ্নিত করা, বাধামুক্ত এবং খোলা এমার্জেন্সি এক্সিটগুলো
  • এমার্জেন্সি রেসপন্সের জন্য যন্ত্রপাতি যেমন, স্পিল কিট, শাওয়ার, আইওয়াশ স্টেশন, আগুন নির্বাপক যন্ত্র, সমস্তই সাইটে পাওয়া যায় এবং সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলোতে যাতে কর্মীরা সহজে পেতে পারেন সেজন্য সুকৌশলে রাখা থাকে
  • এমার্জেন্সি রেসপন্স প্র্যাক্টিস /ড্রিলের রেকর্ড 
  • এমএসডিএস/এসডিএস 

আপলোডের জন্য সুপারিশঃ ক) সংশ্লিষ্ট রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসার ঝুঁকি এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত যন্ত্রপাতি যে রাসায়নিক নিরাপত্তা ব্যবস্থার অধীন তার অভ্যন্তরীণ চেক/ অডিটের সময়সূচী, যার অন্তর্ভুক্ত থাকবে দায়িত্বের স্পষ্ট বিভাজন এবং চেক/ অডিটের ফলাফল; খ) যেখানে প্রযোজ্য, সেখানে পিপিই এবং নিরাপত্তামূলক যন্ত্রপাতির তালিকা সহ, মজুত ভাণ্ডার পুনঃসরবরাহ করা, যন্ত্রপাতির রক্ষণাবেক্ষণ অথবা প্রতিস্থাপনের সময়সূচী, যেখানে প্রযোজ্য (আগে আপলোড হয়ে থাকলে করবেন না)।

সুরক্ষা এবং নিরাপত্তা বিষয়ক সরঞ্জামের অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে স্পিল রেসপন্স কিট (রাসায়নিকটির জন্য যথার্থভাবে বেছে নেয়া আকার, ধরন এবং অবস্থান), নিয়মিতভাবে পরীক্ষা করা শাওয়ার এবং আইওয়াশ, নিয়মিতভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা আগুন নির্বাপক যন্ত্র, রাসায়নিকের জন্য যথাযোগ্য (এমএসডিএস/এসডিএস-এর ভিত্তিতে) ব্যক্তিগত সুরক্ষামূলক সরঞ্জাম (পার্সোন্যাল প্রোটেকটিভ ইক্যুইপমেন্ট, পিপিই) যেমন সট্টহিক দস্তানা, সুরক্ষামূলক মুখোশ, লম্বা হাতলওয়ালা স্কুপ ইত্যাদি।

সরঞ্জামগুলোকে জিএইচএস-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ অথবা সমতুল সেফটি ডেটা শীটে উল্লিখিত বৈশিষ্ট্যগুলোকে অনুসরণ করতে হবে, সমস্ত সংশ্লীষ্ট কর্মচারীদের জন্য স্পষ্টভাবে দৃশ্যমান থাকতে হবে (যেমন, তালা লাগানো কাবার্ডে রাখা চলবে না; এবং সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলোর কাছাকাছি রাখতে হবে), ভালোভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করতে হবে, এবং সংশ্লিষ্ট কর্মীদের দ্বারা কর্মকাণ্ডের সুষ্ঠুতার জন্য নিয়মিতভাবে চেক করাতে হবে।

যেসব কারখানা উৎপাদনের ক্ষেত্রে রাসায়নিক ব্যবহার করে নাঃ নির্মাণ প্রক্রিয়া, টুলিং/ যন্ত্রপাতির শ্রেণী, এবং পণ্যকে স্পর্শ করে না যেসব পরিচালনা-সংক্রান্ত  রাসায়নিক সেই সমস্ত রাসায়নিকের ক্ষেত্রে এটি প্রযোজ্য।

প্রয়োগগত মূল কর্মকুশলতার সূচকঃ রাসায়নিক নাড়াচাড়া, ব্যবহার, এবং সংরক্ষণের অভ্যাস

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

ঝুঁকি চিহ্নিত করা এবং প্রতিরোধমূলক/ জরুরি যন্ত্রপাতি লাগানো ও যেখানে প্রয়োজন সেই সমস্ত জায়গায় সংকেত লাগানোর জন্য কারখানাটি সেফটি ডেটা শীট (এসডিএস) ব্যবহার করবে এই প্রত্যাশা রয়েছে।

মূল উদ্দেশ্য হওয়া উচিত কর্মচারী এবং/অথবা রেসপণ্ডারদের অনিচ্ছাকৃতভাবে সংস্পর্শে আসা থেকে রক্ষা করা, তা সেটি স্বাভাবিক ব্যবহারকালীন অথবা দুর্ঘটনার কারণে অথবা যথাযথ ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি এবং পরিচালনামূলক প্রক্রিয়া অনুসরণ সত্ত্বেও কোনো ঘটনার কারণে হোক। স্পষ্ট সংকেত থাকা গুরুত্বপূর্ণ, যাতে কারখানার কর্মচারীরা এবং জরুরি বিভাগের   কর্মীরা তাৎক্ষণিকভাবে জানতে পারেন যে সংরক্ষণ করা সাবস্ট্যান্স এবং/অথবা যেগুলো তারা নাড়াচাড়া করেন সেগুলো তাদেরকে বিপজ্জনক কোনো বস্তুর  সম্মুখীন করতে পারে।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

এমএসডিএস/এসডিএস-এর বিভাগ ৮-এ পিপিই-এর বিবরণ দেয়া আছে এবং বিবরণগুলোকে বোঝা প্রয়োজন এবং যথাযথভাবে অনুসরণ করা দরকার। যদি কোনো কারখানায় অত্যন্ত অধিক সংখ্যক রাসায়নিক থাকে এবং যোগ্য পিপিই-এর নির্বাচন বিবেচনা করার প্রয়োজন হয়, সেক্ষেত্রে সমস্ত রাসায়নিকের মধ্যে   পিপিই-এর তীব্রতা এবং যথার্থতার ভিত্তিতে যোগ্য পিপিই নির্বাচন করার পরামর্শ দেয়া হয়।  কারখানাতে প্রয়োজনীয় পিপিই-এর ধরনগুলো পর্যবেক্ষণ করুন এবং সেই   পিপিইগুলোকে নির্বাচন করুন যেগুলো সম্ভাব্য সমস্ত রাসায়নিকগুলোর জন্য যথাযথভাবে যথেষ্ট হতে পারে এবং নিশ্চিত করুন যে সংশ্লিষ্ট রাসায়নিক নাড়াচাড়া করার জন্য যথাযথ পিপিই-এর ব্যবহার সম্পর্কে কর্মচারীদের বোঝার জন্য পিপিই-এর ধরনের ভিত্তিতে তাদের পৃথকীকরণ করা হয়। পিপিইগুলোকে পর্যাবৃত্ত পদ্ধতিতে পর্যালোচনা করা এবং যখন প্রয়োজন প্রতিস্থাপন করাও দরকারি। পিপিইগুলো যেখানে সংস্পর্শে আসে সেখানে সময়ের বিরতির গণনার ভিত্তিতে এই মূল্যায়ণ করা হয়।

অন্যান্য তথ্যাদিঃ

জিআইজেড কারখানার পরিকল্পনা

সংজ্ঞাসমূহঃ

‘যথাযথ’ – গ্লোব্যাল হারমোনাইজেশন সিস্টেম (জিএইচএস)-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ  (অথবা সমতুল) এসডিএস-এ এর অর্থ যেভাবে নির্দিষ্ট করা হয়েছে;

‘ক্রিয়ামূলক’ – অর্থ

  1. সমস্ত সংশ্লিষ্ট কর্মচারীদের জন্য সহজে পাওয়ার মতো (স্পষ্টভাবে প্রতীয়মান – তালা লাগানো স্টোরেজ কাবার্ডে রাখা থাকে না; এবং সংশ্লিষ্ট এলাকার খুব কাছে),
  2. সুসংরক্ষিত,
  3. ক্রিয়াশীলতার জন্য নিয়মিতভাবে চেক করা হয়, সংশ্লিষ্ট কর্মীদের দ্বারা যেমন এলাকা তত্ত্বাবধায়ক (এরিয়া সুপারভাইজার), ইএইচএস কর্তাব্যক্তি।

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

যথাযথ সংকেত এবং নিরাপদে নাড়াচাড়া করার সরঞ্জামের জন্য অন-সাইট কারখানার দ্বারা কাজ/সংরক্ষণ এলাকার পর্যালোচনা করার মাধ্যমে যাচাই করা হয়েছে।

দয়া করে নোট করুন যে এই প্রশ্নের জন্য কোনো আংশিক হ্যাঁ  নেই। 

যেসব কারখানাগুলো উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক ব্যবহার করে:

হ্যাঁ

  • কারখানার একটি পরিকল্পনাতে কারখানাতে রাসায়নিক সংরক্ষণ এবং ব্যবহারের জন্য নির্দিষ্ট অঞ্চলগুলোর একটি বিবরণ থাকতে হবে। ছবিযুক্ত পরিকল্পনাটিতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলোর একটি চটজলদি রূপরেখা থাকে।
  • গ্রহণ এবং সরবরাহ দেয়া
  • রাসায়নিক সংরক্ষণ এলাকা (কেন্দ্রীভূত গুদাম এবং অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকা)
  • রাসায়নিক প্রক্রিয়াকরণ এলাকা
  • নির্মাণ / উৎপাদন এলাকা
  • বর্জ্য রাসায়নিক সংরক্ষণ (যার অন্তর্ভুক্ত হলো অবশিষ্ট এবং তারিখ পেরিয়ে যাওয়া রাসায়নিক)
  • পরীক্ষাগার, টুল শপ, রক্ষণাবেক্ষণ, ইত্যাদি।
  • সুরক্ষামূলক এবং নিরাপত্তামূলক যন্ত্রপাতি সব সময়ই অন-সাইট পাওয়া যাবে এবং সংশ্লিষ্ট এলাকাতে কর্মচারীদের কাছে সহজপ্রাপ্য হওয়ার জন্য সুকৌশলে অবস্থিত
  • সুরক্ষামূলক এবং নিরাপত্তামূলক যন্ত্রপাতি যথাযথ এবং গ্লোব্যাল হার্মোনাইজেশন সিস্টেম (জিএইচএস)-এর সাথে সঙ্গতি রেখে প্রতিটি সংরক্ষিত/ব্যবহৃত রাসায়নিকের জন্য এমএসডিএস/এসডিএস-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ (অথবা সমতুল্য)
  • সুরক্ষামূলক এবং নিরাপত্তামূলক যন্ত্রপাতিগুলোকে ভালোভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা হয় এবং সেগুলোর কার্যক্ষমতাকে নিয়মিতভাবে পরীক্ষা করে দেখা হয়

কারখানা যেটি টুলিং এবং/অথবা ক্রিয়াকলাপের ক্ষেত্রেই কেবলমাত্র কারখানায় রাসায়নিক ব্যবহার করেঃ

হ্যাঁ

  • কারখানার একটি পরিকল্পনাতে কারখানাতে রাসায়নিক সংরক্ষণ এবং ব্যবহারের জন্য নির্দিষ্ট অঞ্চলগুলোর একটি বিবরণ থাকতে হবে। ছবিযুক্ত পরিকল্পনাটিতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলোর একটি চটজলদি রূপরেখা থাকে।
  • গ্রহণ এবং সরবরাহ দেয়া
  • রাসায়নিক সংরক্ষণ এলাকা (কেন্দ্রীভূত গুদাম এবং অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকা)
  • রাসায়নিক প্রক্রিয়াকরণ এলাকা
  • নির্মাণ / উৎপাদন এলাকা
  • বর্জ্য রাসায়নিক সংরক্ষণ (যার অন্তর্ভুক্ত হলো অবশিষ্ট এবং তারিখ পেরিয়ে যাওয়া রাসায়নিক)
  • পরীক্ষাগার, টুল শপ, রক্ষণাবেক্ষণ, ইত্যাদি।
  • সুরক্ষামূলক এবং নিরাপত্তামূলক যন্ত্রপাতি সব সময়ই অন-সাইট পাওয়া যাবে এবং সংশ্লিষ্ট এলাকাতে কর্মচারীদের কাছে সহজপ্রাপ্য হওয়ার জন্য সুকৌশলে অবস্থিত
  • সুরক্ষামূলক এবং নিরাপত্তামূলক যন্ত্রপাতি যথাযথ এবং গ্লোব্যাল হার্মোনাইজেশন সিস্টেম (জিএইচএস)-এর সাথে সঙ্গতি রেখে প্রতিটি সংরক্ষিত/ব্যবহৃত রাসায়নিকের জন্য এমএসডিএস/এসডিএস-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ (অথবা সমতুল্য)
  • সুরক্ষামূলক এবং নিরাপত্তামূলক যন্ত্রপাতিগুলোকে ভালোভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা হয় এবং সেগুলোর কার্যক্ষমতাকে নিয়মিতভাবে পরীক্ষা করে দেখা হয়

আবশ্যক ডকুমেন্টঃ (এগুলো আপলোড করা বাধ্যতামূলক নয় কিন্তু যাচাইয়ের সময় চেক করা হবে):

  • স্পষ্টভাবে দায়িত্ব বুঝিয়ে দেয়া এবং চেক/অডিটের ফলাফল সহ রাসায়নিক নিরাপত্তার জন্য অভ্যন্তরীণ পরীক্ষা / অডিটের সময় নির্ধারণ করুন যেগুলোর আওতায় আসে সংশ্লিষ্ট রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসার ঝুঁকি এবং নিরাপত্তামূলক সরঞ্জাম
  • ভাণ্ডার আবার ভর্তি করা, সরঞ্জামের রক্ষণাবেক্ষণ অথবা প্রতিস্থাপন, যেখানে প্রযোজ্য সহ পিপিই এবং নিরাপত্তামূলক সরঞ্জামের ইনভেন্টরি তালিকার জন্য সময়সূচী নির্ধারণ

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • কারখানার পরিকল্পনা/জরুরি প্রতিক্রিয়া বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ
  • নিজেদের দায়িত্বপ্রাপ্ত জায়গাগুলোতে কর্তৃপক্ষ / তত্ত্বাবধায়ক ঘুরিয়ে দেখাবেন
  • সুরক্ষামূলক এবং নিরাপত্তামূলক যন্ত্রপাতিগুলোকে খুঁটিয়ে দেখা এবং রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা কর্মী(রা)

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • নির্ভুলতা/সম্পূর্ণতা যাচাই করার জন্য ঘুরে দেখার সময় কারখানার নকশাটি ব্যবহার করুন
  • কর্মচারীদের জন্য পিপিই-এর সহজপ্রাপ্যতা এবং যথাযথ ব্যবহারের পর্যালোচনা, এবং প্রাসঙ্গিক এলাকাগুলোতে এমএসডিএস/এসডিএস-এর ভিত্তিতে করা বিপদের শ্রেণীবিভাগের সাথে সঙ্গতি রেখে নিরাপত্তামূলক যন্ত্রপাতির  সহজলভ্যতা  কারখানার ভেতরে ঘুরেফিরে দেখা। 
  • যখনই সম্ভব, যন্ত্রপাতিগুলো কাজ করছে কিনা দেখুন যেমন আইওয়াশ স্টেশন, সেফটি শাওয়ার

আপলোডের জন্য সুপারিশ: রাসায়নিক সংক্রান্ত যেসব নিরাপত্তা সংশ্লিষ্ট রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসার ঝুঁকি থেকে রক্ষা করে এবং নির্দেশ দেয় (সংকেত লাগানোর জায়গা এবং হালনাগাদ করা) সেগুলো অভ্যন্তরীণভাবে খুঁটিয়ে দেখা/ অডিট করানো, এবং তার সাথে স্পষ্টভাবে  দায়িত্ব ভাগ করে দেয়া এবং খুঁটিয়ে দেখার/ অডিটের ফলাফল (যদি আগে আপলোড করা হয়ে গিয়ে থাকে তাহলে ছেড়ে দিন)।

রাসায়নিক সঞ্চয় করা হয় বা ব্যবহার করা হয় যেসব এলাকাগুলোতে সেখানে আপনার কারখানার সংকেত লাগানো উচিত। রাসায়নিকের বিপদ কোন শ্রেণীতে পড়ে সেই বিষয়ে সংকেত স্পষ্ট হওয়া উচিত। সংকেতের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলো হলোঃ গ্রহণ করা এবং ডেলিভারি দেয়া, রাসায়নিকের গুদাম (কেন্দ্রীভূত ওয়্যারহাউস এবং অস্থায়ী সঞ্চয় এলাকা), রাসায়নিক  প্রক্রিয়াকরণের এলাকা, নির্মাণ / উৎপাদন এলাকা, বর্জ্য রাসায়নিক সংরক্ষণাগার (রাসায়নিকের অবশিষ্টাংশ এবং সময়সীমা শেষ হয়ে যাওয়া রাসায়নিক), এবং গবেষণাগার, যন্ত্রপাতি রাখার জায়গা, রক্ষণাবেক্ষণ এলাকা। সরঞ্জাম নাড়াচাড়া করার সুবিধা সংশ্লিষ্ট জায়গাগুলোতে পাওয়া উচিত এবং প্রতিটি নির্দিষ্ট রাসায়নিকের নিরাপত্তার বাধ্যবাধকতা এবং ঝুঁকি সংক্রান্ত নির্দেশ / সংকেতের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হওয়া উচিত।

উৎপাদনে রাসায়নিক ব্যবহার করে না যেসব কারখানা তাদের জন্যঃ আপনার কারখানাতে সমস্ত টুলিং এবং পরিচালনামূলক রাসায়নিকের প্রতি প্রযোজ্য।

প্রয়োগগত মূল কর্মকুশলতার সূচকঃ রাসায়নিক নাড়াচাড়া, ব্যবহার, এবং সংরক্ষণের অভ্যাস

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

কোনো সাবস্ট্যান্স/রাসায়নিক বিপজ্জনক কিনা তা কর্মীদের তাৎক্ষণিকভাবেই জানা উচিত। কারখানাটি সংস্পর্শে আসার ঝুঁকিকে সংজ্ঞায়িত করা এবং যেখানে প্রয়োজন সেই সমস্ত জায়গাতে প্রতিরোধমূলক/ এমার্জেন্সি যন্ত্রপাতি লাগানো এবং সংকেত লাগানো এবং টুলিং-এর জন্য দরকারি রাসায়নিকে সিএলপি-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ  লেবেল লাগানোর জন্য সেফটি ডেটা শীট ব্যবহার করবে, এই প্রত্যাশা রয়েছে।

মূল উদ্দেশ্য হওয়া উচিত কর্মচারী এবং/অথবা রেসপণ্ডারদের অনিচ্ছাকৃতভাবে সংস্পর্শে আসা থেকে রক্ষা করা, তা সেটি স্বাভাবিক ব্যবহারকালীন অথবা দুর্ঘটনার কারণে অথবা যথাযথ ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি এবং পরিচালনামূলক প্রক্রিয়া অনুসরণ সত্ত্বেও কোনো ঘটনার কারণে হোক। স্পষ্ট সংকেত থাকা গুরুত্বপূর্ণ যাতে কারখানার কর্মচারীরা এবং জরুরি বিভাগের   কর্মীরা তাৎক্ষণিকভাবে জানতে পারেন যে সংরক্ষণ করা সাবস্ট্যান্স এবং/অথবা যেগুলো তারা নাড়াচাড়া করেন সেগুলো তাদেরকে বিপজ্জনক কোনো বস্তুর  সম্মুখীন করতে পারে।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

  • রাসায়নিক ঝুঁকির চিহ্নগুলো রাসায়নিকগুলোর সাথেই এবং বিভাগ ২ বা বিভাগ ৩-এর এমএসডিএস/এসডিএস-এ প্রদত্ত তথ্যাবলী অনুসারে যথাযথভাবে প্রদর্শিত হতে হবে। নিরাপদে নাড়াচাড়া করার যন্ত্রপাতিগুলো যেমন, ট্রলি, কন্টেনারগুলোকে অবশ্যই  যথাযথ অবস্থায় থাকতে হবে যাতে সেগুলোতে ভাঙা চাকা, না তেল দেয়া চাকা বা ছিদ্র না থাকে। ওয়াক-থ্রু-এর ব্যবস্থা করুন এবং ফ্লোরে প্রকৃত অবস্থা পরিদর্শন করুন।
  • জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ  ১.০ (মে ২০২০) – অধ্যায় ৬
  • এমএসডিএস/এসডিএস 
  • কারখানার নকশা
  • https://www.osha.gov/dsg/hazcom/pictograms/index.html
  • http://www.nfpa.org/Assets/files/AboutTheCodes/704/NFPA704_HC2012_QCard.pdf
  • http://www.hse.gov.uk/chemical-classification/labelling-packaging/hazard-symbols-hazard-pictograms.htm
  • http://www.safework.sa.gov.au/uploaded_files/CoPManagingRisksHazardousChemicals.pdf
  • http://www.baua.de/en/Topics-from-A-to-Z/Hazardous-Substances/EMKG/EMKG.html
  • জিআইজেড ব্যবহারিক রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার যন্ত্রপাতি (জিআইজেড প্র্যাক্টিক্যাল কেমিক্যাল ম্যানেজমেন্ট টুলকিট)

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

যথাযথ সংকেত এবং নিরাপদে নাড়াচাড়া করার সরঞ্জামের জন্য অন-সাইট কারখানার দ্বারা কাজ/সংরক্ষণ এলাকার পর্যালোচনা করার মাধ্যমে যাচাই করা হয়েছে।

দয়া করে নোট করুন যে এই প্রশ্নের জন্য কোনো আংশিক হ্যাঁ  নেই। 

 

যেসব কারখানাগুলো  উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক ব্যবহার করে:

হ্যাঁ

  • কারখানার একটি পরিকল্পনাতে কারখানাতে রাসায়নিক সংরক্ষণ এবং ব্যবহারের জন্য নির্দিষ্ট অঞ্চলগুলোর একটি বিবরণ থাকতে হবে। ছবিযুক্ত পরিকল্পনাটিতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলোর একটি চটজলদি রূপরেখা থাকে।
  • গ্রহণ এবং সরবরাহ দেয়া
  • রাসায়নিক সংরক্ষণ এলাকা (কেন্দ্রীভূত গুদাম এবং অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকা)
  • রাসায়নিক প্রক্রিয়াকরণ এলাকা
  • নির্মাণ / উৎপাদন এলাকা
  • বর্জ্য রাসায়নিক সংরক্ষণ (যার অন্তর্ভুক্ত হলো অবশিষ্ট এবং তারিখ পেরিয়ে যাওয়া রাসায়নিক)
  • পরীক্ষাগার, টুল শপ, রক্ষণাবেক্ষণ, ইত্যাদি।
  • সংরক্ষণাগার এবং রাসায়নিক পরিচালনা এলাকাতে লাগানো সংকেতগুলো  সংরক্ষিত রাসায়নিকের ঝুঁকি(গুলোর) শ্রেণীবিভাগকে চিহ্নিত করে।
  • সংশ্লিষ্ট কর্মচারী যারা রাসায়নিক পরিচালনার ক্ষেত্রে দায়িত্বপ্রাপ্ত তারা সংকেতাবলী স্পষ্টভাবে দেখতে পান এবং বোঝেন
  • সরঞ্জাম নাড়াচাড়া করার সুবিধা সংশ্লিষ্ট জায়গাগুলোতে পাওয়া যায় এবং প্রতিটি নির্দিষ্ট রাসায়নিকের নিরাপত্তার বাধ্যবাধকতা এবং ঝুঁকি সংক্রান্ত নির্দেশ / সংকেতের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

কারখানা যেটি টুলিং এবং/অথবা ক্রিয়াকলাপের ক্ষেত্রেই কেবলমাত্র কারখানায় রাসায়নিক ব্যবহার করেঃ

হ্যাঁ

  • কারখানার একটি পরিকল্পনাতে কারখানাতে রাসায়নিক সংরক্ষণ এবং ব্যবহারের জন্য নির্দিষ্ট অঞ্চলগুলোর একটি বিবরণ থাকতে হবে। ছবিযুক্ত পরিকল্পনাটিতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলোর একটি চটজলদি রূপরেখা থাকে।
  • গ্রহণ এবং সরবরাহ দেয়া
  • রাসায়নিক সংরক্ষণ এলাকা (কেন্দ্রীভূত গুদাম এবং অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকা)
  • রাসায়নিক প্রক্রিয়াকরণ এলাকা
  • নির্মাণ / উৎপাদন এলাকা
  • বর্জ্য রাসায়নিক সংরক্ষণ (যার অন্তর্ভুক্ত হলো অবশিষ্ট এবং তারিখ পেরিয়ে যাওয়া রাসায়নিক)
  • পরীক্ষাগার, টুল শপ, রক্ষণাবেক্ষণ, ইত্যাদি।
  • সংরক্ষণাগার এবং রাসায়নিক পরিচালনা এলাকাতে লাগানো সংকেতগুলো  সংরক্ষিত রাসায়নিকের ঝুঁকি(গুলোর) শ্রেণীবিভাগকে চিহ্নিত করে।
  • সংশ্লিষ্ট কর্মচারী যারা রাসায়নিক ব্যবহারবিধির জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত তারা সংকেতাবলী স্পষ্টভাবে দেখতে পান এবং বোঝেন

নথিপত্র আবশ্যকঃ 

  • স্পষ্টভাবে দায়িত্ব বুঝিয়ে দেয়া এবং চেক/অডিটের ফলাফল সহ রাসায়নিক নিরাপত্তার জন্য অভ্যন্তরীণ পরীক্ষা / অডিটের সময় নির্ধারণ করুন যেগুলোর আওতায় আসে সংশ্লিষ্ট রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসার ঝুঁকি এবং সংযোগ ব্যবস্থা (সংকেতের অবস্থান এবং হালনাগাদ করা)

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • কারখানার পরিকল্পনা/জরুরি প্রতিক্রিয়া বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ
  • নিজেদের দায়িত্বপ্রাপ্ত জায়গাগুলোতে কর্তৃপক্ষ / তত্ত্বাবধায়ক ঘুরিয়ে দেখাবেন
  • সংশ্লিষ্ট এলাকাতে কর্মচারী(রা) সংকেত এবং ঝুঁকি সংক্রান্ত সংযোগ স্থাপনের ক্ষেত্রে তাদের বোঝাপড়া বিষয়ে

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • নির্ভুলতা/সম্পূর্ণতা যাচাই করার জন্য ঘুরে দেখার সময় কারখানার নকশাটি ব্যবহার করুন
  • রাসায়নিক সংকেতাবলী এবং ঝুঁকি সংক্রান্ত সংযোগ স্থাপনের পর্যালোচনার জন্য কারখানার ভেতরে সাধারণভাবে ঘুরেফিরে দেখা
  • প্রত্যেক এলাকাতে সংরক্ষিত/ব্যবহৃত রাসায়নিকের এমএসডিএস/এসডিএস-এর সাথে সংকেতগুলো মিলছে কিনা পরীক্ষা করুন

যদি তা হয়, ক্রয় করা এবং উৎপাদনে ব্যবহৃত সমস্ত রাসায়নিক কি কারখানার রাসায়নিক ক্রয় নীতির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ?

যদি না হয়, কারখানার রাসায়নিক ক্রয় নীতির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় এমন রাসায়নিকগুলোকে দূর করার জন্য কি আপনার কোনো প্রক্রিয়া বা পরিকল্পনা আছে ?

(টীকাঃ সমস্ত কিছু আপলোড করার প্রয়োজন নেই, কিন্ত যাচাই চলাকালীন পুনর্বিবেচনার জন্য হাতের কাছে থাকা দরকার) নিচের কিছু বিষয় প্রস্তাবিত আপলোডের অন্তর্ভুক্ত হতে পারে অভ্যাসগুলোকে প্রদর্শন করার জন্যঃ ক)কারখানার জন্য প্রযোজ্য এমআরএসএল(গুলো) যেমন ক্রেতাদের এমআরএসএল, জেডডিএইচসি এমআরএসএল, কারখানার মালিকানাধীন এমআরএসএল (মিশ্র বিপদ-ভিত্তিক এবং সমস্ত খদ্দেরদের থেকে এমআরএসএল); খ) রাসায়নিক ক্রয়ের প্রক্রিয়া এবং প্রামাণ্য কার্যসম্পাদনকারী প্রক্রিয়া; গ) রাসায়নিক সরবরাহকারী/ভেন্ডরদের জন্য শর্তাবলী; ঘ) ইতিবাচক তালিকাসমূহ; ঙ) রাসায়নিক নিরাপত্তা সংক্রান্ত উপাত্তের শীট এবং টিডিএস (যদি আগে আপলোড করে থাকেন, তাহলে লাগবে না); চ) রাসায়নিক গঠনের বিশ্লেষণের শংসাপত্র (বিপজ্জনক রাসায়নিকের উপস্থিতির সাথে তার অশুদ্ধতার একটি প্রোফাইলকে মূল্যায়ন করার জন্য রাসায়নিকটিকে পরীক্ষার ফলাফল); ছ) এমআরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণতার শংসাপত্র (জেডডিএইচসি গেটওয়ে স্তরের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ গেটওয়ে থেকে প্রাপ্ত কেমচেক রিপোর্ট) এবং ঘোষণামূলক চিঠি (এমআরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণতার যথাযথ প্রমাণ সহ যদি রাসায়নিকটি জেডডিএইচসি গেটওয়েতে না থাকে) যাতে ইস্যু হওয়ার তারিখ, উদ্বেগজনক রাসায়নিকটির নাম, যে এমআরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণতার ঘোষণা দেয়া হচ্ছে সেটি, এবং সামঞ্জস্যপূর্ণতাকে নিশ্চিত করে এমন একটি রাসায়নিক পরীক্ষার ফলাফল; জ) এমআরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণতার পরীক্ষার ফলাফল, যেখানে প্রযোজ্য এমআরএসএল হলো ম্যানুফ্যাকচারিং রেস্ট্রিক্টেড সাবস্ট্যান্স লিস্ট (নিষিদ্ধ পদার্থের তালিকার নির্মাণ)। কারখানাগুলো সাধারণত নিষিদ্ধ পদার্থের তালিকা রেস্ট্রিকটেড সাবস্ট্যান্স লিস্ট, আরএসএল) সম্পর্কে অবহিত থাকে; তবে, শিল্পক্ষেত্রগুলো সাম্প্রতিক সময়ে নির্মাণকালীন নিষিদ্ধ পদার্থের তালিকার (এমআরএসএল) বিষয়ে মনোযোগ দেয়ার বিষয়টিতে বিবর্তন করেছে যাতে নিষিদ্ধ পদার্থের তালিকা সহ পরিবেশ-বান্ধব রাসায়নিকের ব্যবহার করা সম্ভব হয়। এমআরএসএল প্রয়োজনীয় কারণ একটি কারখানা যেটি প্রযুক্তিগত বৈশিষ্ট্যের  নির্দেশনার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ রাসায়নিক ব্যবহার করে, সেই কারখানার বিভিন্ন নিষ্ক্রমণের ক্ষেত্রে পরিবেশগত ফলাফল উন্নততর এবং আরএসএল পদার্থের সাথে সঙ্গতিরক্ষাও বেশি সামঞ্জস্যপূর্ণ। 

হ্যাঁ বলুন  যদি আপনার কেনা সমস্ত রাসায়নিকগুলো আরএসএল/ এমআরএসএল  কেনার সমস্ত বাধ্যবাধকতাগুলোকে পূরণ করে থাকে এবং এই দাবির সমর্থনে আপনার কাছে নথিপত্র থাকে।

আংশিক হ্যাঁ বলবেনযদি আপনার কেনা রাসায়নিকে(গুলো)র আরএসএল/ এমআরএসএল সঙ্গতিরক্ষার সমর্থনে পর্যাপ্ত নথিপত্র না থাকে। এবং রাসায়নিক সরবরাহকারীর থেকে ৬ মাসের মধ্যে নথিপত্র যোগাড় করার অথবা সরবরাহকারীকে বদলানোর পরিকল্পনা থাকে যাতে সরবরাহকারী আরএসএল/ এমআরএসএল -এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ % রাসায়নিক বৃদ্ধি করতে পারেন।

তাদের জন্য যেসব কারখানা উৎপাদনে রাসায়নিক ব্যবহার করে না: সমস্ত ক্রয় করা রাসায়নিকগুলোকে অবশ্যই এইসব বাধ্যবাধকতাগুলোকে পূরণ করতে হবে নথিপত্র সহ যাতে অন্তর্ভুক্ত থাকবে উপাদানের বিশ্লেষণের সার্টিফিকেট এবং যেখানে প্রযোজ্য এমএসডিএস / এসডিএস এবং প্রযুক্তিগত উপাত্তের কাগজ। এমআরএসএল আপনার কারখানার ক্রয় নীতিতে অন্তর্ভুক্ত থাকতে হবে যাতে সামঞ্জস্যবিহীন রাসায়নিক কারখানাতে ঢোকা প্রতিরোধ করা যায় এবং আরএসএল সামঞ্জস্য-বিধান থাকতে হবে যথাযথ উৎপাদন নিয়ন্ত্রণ এবং দুর্ঘটনার ফলে শৃঙ্খলাভঙ্গ এড়ানোর জন্য, এভাবে একটি সম্পূর্ণ আরএসএল-সামঞ্জস্যবিধান বিষয়ক কর্মকাণ্ড হিগ এফইএম-এ দেখানো যায়। কিছু রাসায়নিকের জন্য যেমন ক্লিনার ইত্যাদি, উপকরণের তথ্যের জন্য লেবেল দেখুন এবং এমআরএসএল-এর সাথে যেকোনো সামঞ্জস্যবিহীনতা এড়িয়ে যাওয়ার জন্য সিওএ দেখার চেষ্টা করুন।

প্রয়োগগত প্রধান কর্মকুশলতার সূচক:  রাসায়নিক নির্বাচন, যোগাড়, এবং ক্রয়ের অভ্যাস

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

কর্মচারী, কাজের জায়গা, পরিবেশ এবং খরিদ্দারদের জন্য সর্বনিম্ন বিপদের ঝুঁকিসম্পন্ন সর্বোত্তম রাসায়নিক / রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন ক্রয়কে চালিত করাই উদ্দেশ্য।

ক্রয়ের বিষয়টি যাতে এমআরএসএল/আরএসএল-কে লঙ্ঘন না করে সেটিকে সুনিশ্চিত করার জন্য এই প্রশ্নটি জিজ্ঞাসা করা হবে। উৎপাদনবিহীন কারখানাগুলোকে আমাদের জিজ্ঞাসা করা প্রয়োজন যে দুর্ঘটনা ঘটলে লঙ্ঘন প্রতিরোধ করার জন্য এমআরএসএল তাদের পারচেজিং-এ অন্তর্ভুক্ত কিনা, এবং এর ফলে আসন্ন আরএসএল সম্পর্কিত প্রশ্নাবলীতে আরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ একটি সম্পূর্ণ কর্মসূচী রাখা থেকেও এই গোষ্ঠীটি ছাড় পেয়ে যায়।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

জেডডিএইচসি গেটওয়ে লেভেল ১-৩-এর সাথে সুসমঞ্জস এবং পণ্য যেগুলো আরএসএল /এমআরএসএল-এর দ্বারা গ্রহণযোগ্য সেগুলো সম্পর্কে রাসায়নিক সরবরাহকারীদের সাথে  আলোচনা করা গুরুত্বপূর্ণ। তবে, এটি জরুরি যে কারখানাটি কেবলমাত্র সররবরাহকারীদের থেকে পাওয়া ঘোষণাপত্র বা আশ্বাসের উপর নির্ভর করবে না বরং কিছু বৈধতা প্রক্রিয়া চালু করার বিষয়টি নিশ্চিত করবে যাতে সামঞ্জস্যের বিষয়টি নিশ্চিত করা যায় যেমন যোগ্য আইএসও-17025 সার্টিফিকেশন-প্রাপ্ত গবেষণাকেন্দ্র যারা এই টেস্টগুলো করার জন্য অনুমোদিত তাদের থেকে পাওয়া পরীক্ষার ফলাফল। কারখানার পরিচালনার শর্তাবলী এবং রেসিপির ঘনত্বের ক্ষেত্রে তার সীমাবদ্ধতা ইত্যাদি বিষয়ে রাসায়নিক / উপকরণ সরবরাহকারীদের সাথে তাদের পণ্যের বিবরণ সম্পর্কে আলোচনা করা গুরুত্বপূর্ণ।

জেডডিএইচসি গেটওয়ে -কেমিক্যাল মড্যুল, BLUESIGN®, OEKO-TEX®, ইকোপাসপোর্ট, সামঞ্জস্যের শংসাপত্র, বিশ্লেষণের শংসাপত্র

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

যেসব কারখানা ব্যবহার করে উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক:

হ্যাঁঃ 

  • সমস্ত রাসায়নিক এমআরএসএল / আরএসএল-এর বাধ্যবাধকতাগুলোর সাথে সঙ্গতি রক্ষা করে, এবং এটিকে প্রদর্শন করার জন্য নথিপত্রও আছে। জেডডিএইচসি গেটওয়ে কেমিক্যাল মড্যুল থেকে জেডডিএইচসি এমআরএসএল সামঞ্জস্যের স্তর (১, ২,৩) ব্যবহার করা উচিত রাসায়নিকগুলোর সামঞ্জস্য চিহ্নিত করার জন্য এবং অনুমোদিত রাসায়নিকগুলোর তালিকা তৈরির জন্য। জেডডিএইচসি এমআরএসএল-এর সংগে সঙ্গতি রক্ষার বিষয়ে আরও তথ্যের জন্য, জেডডিএইচসি এমআরএসএল সঙ্গতি রক্ষা নির্দেশিকাটি দেখুন।
  • কারখানা কৌশল অনুযায়ী তাদের ঝুঁকির ভিত্তিতে তাদের নিজেদের রাসায়নিক এমআরএসএল তৈরি করে এবং তারা যে সমস্ত ব্র্যান্ডগুলোর সাথে কাজ করছে সেগুলোর এমআরএসএল এবং আরএসএল সংক্রান্ত বাধ্যবাধকতা পূরণ করে, অথবা বিকল্পভাবে সমস্ত ধরনের এমআরএসএলকে অন্তর্ভুক্ত করে (যেমন, ব্লুসাইন সিস্টেম) এমন একটি সক্রিয় তালিকা অনুযায়ী সামঞ্জস্যপূর্ণ রাসায়নিকগুলোকে ব্যবহার করার কৌশলকে বাস্তবায়ন করে।
  • এমআরএসএল এবং আরএসএল সংক্রান্ত বাধ্যবাধকতাগুলোর সাথে সঙ্গতি রক্ষা করার জন্য প্রত্যায়নপত্র-প্রাপ্ত রাসায়নিকগুলোকে কৌশলগতভাবে ক্রয় করে যেমন ব্লুসাইন (সি)-এর অনুমোদন-প্রাপ্ত রসায়ন, ওকিয়োটেক্স-এর ইকোপাসপোর্ট। এই প্রত্যায়নপত্রগুলোকে বৈধতার জন্য খুঁটিয়ে দেখা হয় এবং অন্তত বার্ষিকভাবে হালনাগাদ করা হয়।
  • যদি উক্ত সার্টিফিকেটগুলো না পাওয়া যায়, তবে কারখানার সেই সমস্ত রাসায়নিক ক্রয় করা উচিত যেগুলোকে রাসায়নিক সরবরাহকারী দ্বারা এমআরএসএল এবং আরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ বলে ঘোষণা করা হয়েছে। এর সাথে এই বিবৃতিকে সমর্থন প্রদানকারী বিশ্লেষণ / পরীক্ষার ফলাফলও থাকতে হবে যে পরীক্ষা কোনো ৩য়পক্ষীয় গবেষণাকেন্দ্রে করা হয়েছে। বিবৃতি এবং বিশ্লেষণের রিপোর্টটি বৈধতার জন্য খুঁটিয়ে দেখা হয় এবং অন্তত বার্ষিক হারে হালনাগাদ করা হয়।
  • কারখানাটির অভ্যন্তরীণ ক্রয় নীতি রয়েছে যেটিকে বাস্তবায়ন করা হয় এবং যার অন্তর্ভুক্ত হলো রঞ্জক পদার্থ এবং রাসায়নিক সরবরাহকারীদের নির্বাচন এবং ব্যবহারের শর্তাবলীর রেফারেন্স। ক্রয়ের প্রক্রিয়ার অন্তর্ভুক্ত হতে হবে (তবে সীমিত থাকবে না): রাসায়নিক সরবরাহকারীদেরকেএমআরএসএল / আরএসএল সম্পর্কে জানানোর প্রক্রিয়া, এমআরএসএল / আরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ থাকার বিষয়ে সরবরাহকারীদের সম্মতি/অস্বীকৃতি যোগাড় করা, রাসায়নিক সরবরাহকারীদের কাছ থেকে হালনাগাদ করা ইতিবাচক তালিকা যোগাড় করা, ইতিবাচক তালিকায় থাকা রাসায়নিকগুলোকে ক্রয় করার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার প্রদান, পারচেজ অর্ডারের উপর এমআরএসএল বাধ্যতামূলক লেখা একটি মন্তব্য, রাসায়নিকগুলোর কারিগরি বৈশিষ্ট্য এবং গ্রহণের শর্ত, বাধ্যবাধকতাগুলোর বাইরে কোনো ত্রুটি বা তা থেকে সরে যাওয়ার ঘটনায় যে পদক্ষেপ নেয়া হবে।
  • বাধ্যবাধকতাগুলোকে পূরণ করার বিষয়টিকে নিশ্চিত করার জন্য এমআরএসএল এবং ক্রয়ের প্রক্রিয়া সম্পর্কে পারচেজিং দপ্তর এবং কর্তৃপক্ষ অবহিত
  • রাসায়নিক সরবরাহকারীর কাছ থেকে পাওয়া একটি বিশ্লেষণের প্রত্যয়নপত্র কারখানার কাছে আছে (যেখানে প্রযোজ্য) যেটি একটি অনুমোদিত গবেষণাকেন্দ্র থেকে এমআরএসএল পরীক্ষার জন্য পাওয়া গেছে গঠনমূলক উপাদানের জন্য যার অন্তর্ভুক্ত হলো নিম্নমানের দূষক পদার্থ এবং একটি এমএসডিএস / এসডিএস কারিগরী উপাত্তের শীট। বিশ্লেষণের এই সার্টিফিকেটগুলোকে অন্তত বার্ষিকভাবে হালনাগাদ করা হয় এবং এক বছর অবধি রেখে দেয়া হয়। কারিগরি উপাত্তের কাগজপত্র (টিডিএস) হলো সেইসব নথিপত্র যেখানে রাসায়নিকগুলোকে কীভাবে ব্যবহার করতে হয়, পরিমাণের  বাধ্যবাধকতা, অবস্থার বাধ্যবাধকতা ইত্যাদি অন্যান্য তথ্য সহ প্রয়োগের প্রক্রিয়া সম্পর্কে রাসায়নিক সরবরাহকারী তথ্য প্রদান করেন। সেই কারণে এটি জরুরি যে সব কারখানাগুলো টিডিএস-এর জন্য অনুরোধ জানায় এবং প্রয়োগের আগে তথ্যাবলী দেখে নেয়।
  • ক্রয়ের মানদণ্ডের প্রক্রিয়ার বাধ্যবাধকতার সাথে সামঞ্জস্যের সাধারণ স্তর নির্ধারণ করার জন্য ঊর্ধ্বতন এক্সিকিউটিভদের জন্য একটি ট্র্যাকিং/ড্যাশবোর্ড ব্যবস্থা পাওয়া যায়।
  • নির্মাণ প্রক্রিয়ায় ব্যবহৃত না হওয়া রাসায়নিকগুলোর জন্য (উদাহরণ, লুব্রিক্যান্ট, ক্লিনিং-এর রাসায়নিক…) এমআরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্য রক্ষার প্রত্যায়নপত্র বা বিশ্লেষণের প্রত্যায়নপত্র সংগ্রহ করা কার্যকরী নাও হতে পারে। সেইসব রাসায়নিক যেগুলোর জন্য কারখানার এমআরএসএল/আরএসএল-এর প্রেক্ষিতে উপকরণগুলোকে পর্যালোচনা করার একটি প্রক্রিয়া রয়েছে খুঁটিয়ে দেখার জন্য যে সেই রাসায়নিকগুলো সাবস্ট্যান্স তালিকার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ কিনা।

আংশিক হ্যাঁঃ

  • কারখানাতে সামঞ্জস্যবিহীন রাসায়নিকও থাকতে পারে, কিন্তু অপসারণ করার একটি প্রক্রিয়া প্রদর্শন করে।
  • বাধ্যবাধকতাগুলোকে পূরণ করার বিষয়টিকে নিশ্চিত করার জন্য এমআরএসএল এবং ক্রয়ের প্রক্রিয়া সম্পর্কে পারচেজিং দপ্তর এবং কর্তৃপক্ষ অবহিত
  • কারখানাটি সাধারণভাবে এমআরএসএল-এর বাধ্যবাধকতার ভিত্তিতে রাসায়নিক ক্রয় করে থাকে, যেটির প্রমাণ হিসেবে রয়েছে আপস্ট্রিম সরবরাহকারীর    এমআরএসএল সংক্রান্ত চুক্তিপত্র, অথবা অনুরূপ প্রত্যায়নপত্র, অথবা ঘোষণার চিঠি।
  • এমআরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্য রক্ষার প্রত্যায়নপত্র এবং রাসায়নিক সরবরাহকারীদের ঘোষিত স্বীকৃতির চিঠিতে স্পষ্টভাবে জানাতে হবেঃ ইস্যু করার তারিখ, নির্দিষ্ট রাসায়নিকটির নাম, যে এমআরএসএল-টির সাথে সামঞ্জস্যের কথা তারা বলছেন (যুক্ত), এবং অভ্যন্তরীণ রাসায়নিক পরীক্ষার ফলাফল যেটি সঙ্গতিরক্ষার বিষয়টিকে নিশ্চিত করে।

যে কারখানাগুলো  টুলিং এবং/অথবা পরিচালনার ক্ষেত্রেই কেবলমাত্র কারখানায় রাসায়নিক ব্যবহার করেঃ

হ্যাঁঃ 

  • সমস্ত রাসায়নিক এমআরএসএল এবং আরএসএল-এর বাধ্যবাধকতাগুলোর সাথে সামঞ্জস্য রক্ষা করে, এবং এটিকে প্রদর্শন করার জন্য নথিপত্রও আছে।
  • প্রক্রিয়ার সাথে যুক্ত কারিগরি বৈশিষ্ট্য়ের ব্যবহার এবং বিপদগুলোর মাধ্যমে একটি রাসায়নিক / রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন নির্বাচন করার জন্য প্রয়োজনীয় শর্তাবলীর বিবরণ দেয়ার জন্য কারখানাতে একটি প্রক্রিয়া রয়েছে।
  • বাধ্যবাধকতাগুলোকে পূরণ করার বিষয়টিকে নিশ্চিত করার জন্য এমআরএসএল /আরএসএল এবং ক্রয়ের প্রক্রিয়া সম্পর্কে পারচেজিং দপ্তর এবং কর্তৃপক্ষ অবহিত
  • গঠনগত উপাদান সম্পর্কে প্রাপ্ত বিশ্লেষণের প্রত্যায়নপত্র কারখানাটির রয়েছে যাতে অন্তর্ভুক্ত হলো এমএসডিএস / এসডিএস এবং কারিগরি উপাত্তের কাগজ সহ নিম্ন মাত্রার দূষণকারী পদার্থ। বিশ্লেষণের এই সার্টিফিকেটগুলোকে অন্তত বার্ষিকভাবে হালনাগাদ করা হয় এবং এক বছর অবধি রেখে দেয়া হয়।

আংশিক হ্যাঁঃ

  • এমআরএসএল / আরএসএল-এর প্রেক্ষিতে রাসায়নিকগুলোর সঙ্গতি রক্ষা করার বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য কারখানাটির একটি প্রক্রিয়া রয়েছে কিন্তু সেটিকে ভাণ্ডারের রাসায়নিকগুলোর ১০০%-এর ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা হয় না। এইসব ক্ষেত্রে কারখানাটিকে একটি পরিভাষিত সময়ের মধ্যে রাসায়নিক সরবরাহকারীর কাছ থেকে এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিরক্ষার প্রয়োজনীয় নথি সংক্রান্ত প্রমাণ যোগাড় করার জন্য অবশ্যই একটি প্রক্রিয়া প্রদর্শন করতে হবে, অথবা তার বদলে এমন একজন সরবরাহকারীকে নেয়ার পরিকল্পনা করতে হবে যিনি বাধ্যবাধকতাগুলোকে মেনে চলেন এবং প্রয়োজনীয় নথিপত্র / প্রত্যায়নপত্র  জমা দিতে পারবেন।
  • বাধ্যবাধকতাগুলোকে পূরণ করার বিষয়টিকে নিশ্চিত করার জন্য এমআরএসএল /আরএসএল এবং ক্রয়ের প্রক্রিয়া সম্পর্কে পারচেজিং দপ্তর এবং কর্তৃপক্ষ অবহিত
  • কারখানাটি সাধারণত এমআরএসএল/আরএসএল-এর বাধ্যবাধকতার   ভিত্তিতে রাসায়নিক ক্রয় করে থাকে, যেটির প্রমাণস্বরূপ এমআরএসএল/আরএসএল বিষয়ে আপস্ট্রিম সরবরাহকারীর চুক্তিপত্র, অথবা সঙ্গতিরক্ষার   প্রত্যায়নপত্র, অথবা ঘোষণা পত্র রয়েছে।
  • এমআরএসএল / আরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্য রক্ষার প্রত্যায়নপত্র এবং রাসায়নিক সরবরাহকারীদের ঘোষিত স্বীকৃতির চিঠিতে স্পষ্টভাবে জানাতে হবেঃ ইস্যু করার তারিখ, নির্দিষ্ট রাসায়নিকটির নাম, যে এমআরএসএল / আরএসএল-টির সাথে সামঞ্জস্যের কথা তারা বলছেন (যুক্ত), এবং অভ্যন্তরীণ রাসায়নিক পরীক্ষার ফলাফল যেটি সঙ্গতিরক্ষার বিষয়টিকে নিশ্চিত করে।

নথিপত্র আবশ্যকঃ

  • উপরে হ্যাঁ এবং আংশিক হ্যাঁ-এর জন্য রেফারেন্সের বাধ্যবাধকতাগুলো। 
  • কারখানাতে প্রযোজ্য এমআরএসএল(গুলো) যেমন খরিদ্দারের এমআরএসএল, জেডডিএইচসি এমআরএসএল, কারখানার মালিকানাধীন এমআরএসএল (হয় একটি মিশ্রিত ঝুঁকিভিত্তিক এবং সমস্ত খরিদ্দারদের থেকে এমআরএসএল তৈরি করুন অথবা এমআরএসএল অনুসরণ করুন যেটি ব্র্যান্ড এবং খুচরো বিক্রেতাদের সমস্ত বাধ্যবাধকতাকে আওতায় আনার জন্য তৈরি করা হয়েছিল।)
  • আরএসএল
  • রাসায়নিক ক্রয়ের প্রক্রিয়া এবং এসওপিগুলো
  • রাসায়নিক সরবরাহকারী/ভেণ্ডরের নির্ণায়ক বিষয়গুলো
  • জেডডিএইচসি গেটওয়ে কেমিক্যাল মড্যুল সামঞ্জস্যপূর্ণতার স্তর ১-৩
  • রাসায়নিক এসডিএস এবং টিডিএস
  • গঠনগত উপাদান খুঁটিয়ে দেখার জন্য বিশ্লেষণের প্রত্যয়নপত্র যাতে গঠনগত উপাদানে মজুত যেকোনো দূষণ খুঁটিয়ে দেখা যায়
  • এমআরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্য রক্ষার সার্টিফিকেট এবং ঘোষিত স্বীকৃতির চিঠি যেটিতে থাকবে ইস্যু করার তারিখ, নির্দিষ্ট রাসায়নিকটির নাম, যে এমআরএসএল-টির সাথে সামঞ্জস্যের কথা তারা বলছেন (যুক্ত), এবং অভ্যন্তরীণ রাসায়নিক পরীক্ষার ফলাফল যেটি সঙ্গতিরক্ষার বিষয়টিকে নিশ্চিত করে
  • এমআরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যের পরীক্ষার ফলাফল, যেখানে প্রযোজ্য

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • এমআরএসএল এবং রাসায়নিকের ঝুঁকি, এবং ক্রয়ের নীতিমালা এবং এমআরএসএল-এর সাথে সম্পর্কিত প্রক্রিয়াগুলোর জ্ঞান সম্পর্কে পারচেজিং ম্যানেজার

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • ডকুমেন্টের পর্যালোচনা, যেমন, সার্টিফিকেটগুলো, ক্রয়ের নীতি এবং প্রক্রিয়াগুলো, রাসায়নিক সরবরাহকারীদের তালিকা, এমআরএসএল-এর বাধ্যবাধকতাগুলোর বিষয়ে প্রাসঙ্গিক আলাপ-আলোচনা, রাসায়নিক সরবরাহকারীদের সাথে ক্রয়ের চুক্তিপত্র, ভেণ্ডরদের জন্য মানদণ্ড, ইত্যাদি।

আরো তথ্যের জন্য কোথায় যেতে হবে (যেমন, লিঙ্ক অথবা ওয়েবসাইট): 

(টীকাঃ সমস্ত কিছু আপলোড করার প্রয়োজন নেই, কিন্ত যাচাই চলাকালীন পুনর্বিবেচনার জন্য হাতের কাছে থাকা দরকার) প্রস্তাবিত আপলোডের অন্তর্ভুক্ত হতে পারে নিচের কয়েকটি অভ্যাসগুলোকে প্রদর্শন করার জন্যঃ ক) চাকরির নিয়োগপত্র, কাজের বিবরণ, দায়বদ্ধ EHS-এর সংস্থার চার্ট; খ) দায়বদ্ধ ব্যক্তির/দলের কারিক্যুলাম ভিটে, রাসায়নিক ব্যবস্থাপনায় প্রাসঙ্গিক বিষয়বস্তু প্রদর্শনকারী অভিজ্ঞতা/প্রশিক্ষণের রেকর্ড; গ) রাসায়নিক সঞ্চয়, পরিচালনা, ব্যবহার, এবং নিষ্পত্তির সাথে সম্পর্কিত পরিবেশগত স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা প্রক্রিয়া; ঘ) SDS/ MSDS-এর সাথে সম্পর্কিত চিহ্নিত বিপত্তিসমূহ সহ রাসায়নিকের ইনভেন্টরি, পরিবেশগত স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের জন্য উপলব্ধ এবং তাদের দ্বারা ব্যবহৃত প্রযুক্তিগত কাগজপত্র (আগে আপলোড করে থাকলে দরকার নেই); ঙ) পরিচালনার সীমাবদ্ধতা এবং প্রাসঙ্গিক আইন সহ পারমিটসমূহ যা  রাসায়নিকের সঞ্চয়, পরিচালনা, এবং নিষ্পত্তির জন্য স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত প্রয়োজনীয়তাগুলির নিয়ন্ত্রণ করে (আগে আপলোড করে থাকলে দরকার নেই); চ) রাসায়নিক সংক্রান্ত যেকোনো ঘটনা/ দুর্ঘটনা এবং স্পিল রেকর্ড (আগে আপলোড করে থাকলে দরকার নেই); ছ) স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তার লগ (প্রাথমিক চিকিৎসা এবং হেলথ স্টেশন)। 

রাসায়নিকের স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা কর্মসূচীর জন্য অবশ্যই একজন পদাধিকারী ব্যক্তি অথবা একটি দল থাকতে হবে, আইনি স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তামূলক বাধ্যবাধকতা পূরণ করতে হবে, এবং রাসায়নিক সংরক্ষণ, নাড়াচাড়া, ব্যবহার, ডিসপোজাল, এবং বর্জ্যের পরিবেশগত নিয়ন্ত্রণ ও পরিবেশে তার নিষ্ক্রমণ সম্পর্কে লিখিত কার্যপ্রণালী থাকতে হবে।

দয়া করে বেছে নিন  আংশিক হ্যাঁ  যদি আপনার স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত কর্মসূচী সম্পূর্ণ হয়ে থাকে, কিন্তু এখনও লিখিতভাবে নথিবদ্ধ না হয়ে থাকে।

প্রয়োগগত মূল কর্মকুশলতার সূচকঃ রাসায়নিক নাড়াচাড়া, ব্যবহার, এবং সংরক্ষণের অভ্যাস

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

মানুষ এবং পরিবেশকে সংস্পর্শে আসা থেকে রক্ষা করা এই কর্মসূচীর উদ্দেশ্য। কারখানাটির সংরক্ষিত, ব্যবহৃত এবং নিষ্কাশিত রাসায়নিকের সম্ভাব্য ক্ষতিকর প্রভাবগুলোকে চিহ্নিত করা এবং নিয়ন্ত্রণ করার জন্য কারখানাটির একটি প্রক্রিয়া অবশ্যই থাকা উচিত।

রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসার বিষয়টি বিভিন্নভাবে ঘটতে পারে। একটি কারখানার অবশ্যই স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত ভূমিকা এবং দায়দায়িত্বগুলোকে, এবং স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তাকে নিয়ন্ত্রণকারী একটি ব্যবস্থা, এবং স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তার উপর সম্ভাব্য ক্ষতি কমানোর জন্য একটি ব্যবস্থাকে  চিহ্নিত করতে হবে।  এমএসডিএস/এসডিএস থেকে বিপদ এবং সংস্পর্শে আসার ধরনগুলো সম্পর্কে  জ্ঞান অর্জন করার মাধ্যমেই ইএইচএস কর্মসূচীর শুরু।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ 1.0 (মে ২০২০) – অধ্যায় ১ এবং অধ্যায় ২

বাড়তি প্রশিক্ষণ

  • জেডডিএইচসি সিএমএস প্রশিক্ষণ
  • প্রশিক্ষণের বিষয়বস্তু সহ রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার প্রশিক্ষণের রেকর্ড। রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার প্রশিক্ষণের বাধ্যবাধকতাগুলো কারখানাভিত্তিক হওয়া দরকার এবং কেবলমাত্র কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিভাগকে বিশদ করার মধ্যে সীমিত থাকতে পারে না.

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

যেসব কারখানা ব্যবহার করে উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক:

হ্যাঁঃ 

  • রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার জন্য কারখানার একজন মনোনীত ব্যক্তি বা একটি দল একনিষ্ঠভাবে থাকতে হবে যাদের এমএসডিএস/এসডিএস-এ উল্লিখিত যথাযথ পেশাগত নিরাপত্তা এবং স্বাস্থ্য সংক্রান্ত পদক্ষেপগুলোকে এবং/অথবা কর্মচারীদের, কম্যুনিটিকে এবং পরিবেশকে সুরক্ষিত রাখার জন্য কারিগরি ডেটা শীট সম্পর্কে বোঝার মতো এবং সক্রিয় করার মতো যোগ্যতা থাকে।
  • প্রাথমিক রাসায়নিক ঝুঁকি সংক্রান্ত মূল্যায়ণ নির্বাহ করা হয়েছে যেটির অন্তর্গত হলো ঝুঁকি চিহ্নিতকরণ এবং সম্ভাব্য বিপদ অথবা ক্ষতি যা কারখানায় রাসায়নিকের ব্যবহার সংক্রান্ত কোনো নির্দিষ্ট কার্যকলাপের ফলস্বরূপ হতে পারে। উদাহরণ স্বরূপ, রাসায়নিকটি প্রকাশ হয়ে পড়ার সম্ভাব্য পথটি বিবেচনা করে, একটি প্রকল্পিত পরিমাণে এবং পদ্ধতিতে নির্দিষ্ট রাসায়নিকটিকে ব্যবহার করা। মূল্যায়ণটিতে উৎপাদন প্রক্রিয়ার ভিন্ন ধরনের রাসায়নিক এবং বিপজ্জনক বর্জ্যকেও চিহ্নিত করার প্রয়োজন যেগুলো বর্জ্যপানির গুণগত মানকে প্রভাবিত করার ক্ষেত্রে কারখানাতে প্রাসঙ্গিক। রাসায়নিক বিপদের মূল্যায়ণকে একটি বিচ্ছিন্ন অথবা পরিবেশগত মূল্যায়ণের  রিপোর্টের অংশ হিসেবে নির্বাহ করা যেতে পারে। 
  • কারখানাটি রাসায়নিকের সাথে সম্পর্কিত স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা বিষয়ে নিয়মিতভাবে পর্যবেক্ষণ এবং ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে রিপোর্ট করা সহ সমস্ত পারমিট/আইনি বাধ্যবাধকতার আওতার মধ্যে থেকে পরিচালনা করছে। 
  • বায়ু, মাটি, মাটির তলার পানি, শব্দ, বর্জ্য এবং কাদা, বর্জ্যপানির কারণে রাসায়নিক ভাণ্ডার সংক্রান্ত চিহ্নিত সম্ভাব্য পরিবেশগত  ক্ষতির ক্ষেত্রে রাসায়নিকগুলোর  সংরক্ষণ, নাড়াচাড়া করা, ব্যবহার, নিষ্কাশন, এবং প্রাথমিক পরিবেশগত  নিয়ন্ত্রণের  জন্য নিরাপত্তা এবং স্বাস্থ্য সম্পর্কিত লিখিত প্রক্রিয়া রয়েছে। এলাকাতে সর্বাধিক সম্ভাব্য প্রাকৃতিক বিপর্য্যয়গুলোকেও এই প্রক্রিয়াগুলোর বিবেচনা করতে হবে, উদাহরণ স্বরূপ, ভারি বৃষ্টি এবং বন্যা, ভূমিকম্প, তুফান, ইত্যাদি প্রবণ এলাকাগুলো।
  • একটি তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে সাইটে প্রাথমিক স্বাস্থ্য/ভালো থাকার প্রক্রিয়া পাওয়া যায় যখন বিপজ্জনক রাসায়নিকগুলোকে নাড়াচাড়া করা হয়, অথবা সংস্পর্শে   আসার ঘটনা ঘটে।

আংশিক হ্যাঁঃ

  • রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার জন্য কারখানার একজন মনোনীত ব্যক্তি বা একটি দল একনিষ্ঠভাবে থাকতে হবে যাদের এমএসডিএস/এসডিএস-এ উল্লিখিত যথাযথ পেশাগত নিরাপত্তা এবং স্বাস্থ্য সংক্রান্ত পদক্ষেপগুলোকে এবং/অথবা কর্মচারীদের, কম্যুনিটিকে এবং পরিবেশকে সুরক্ষিত রাখার জন্য কারিগরি ডেটা শীট (টিডিএস) সম্পর্কে বোঝার মতো এবং সক্রিয় করার মতো যোগ্যতা থাকে।
  • কারখানাটি রাসায়নিকের সাথে সম্পর্কিত স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা বিষয়ে নিয়মিতভাবে পর্যবেক্ষণ এবং ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে রিপোর্ট করা সহ সমস্ত পারমিট/আইনি বাধ্যবাধকতার আওতার মধ্যে থেকে পরিচালনা করছে। 
  • কারখানাটি তার রাসায়নিকগুলোর সংরক্ষণ, নাড়াচাড়া করা, ব্যবহার, এবং নিষ্ক্রমণের ক্ষেত্রে সম্ভাব্য পরিবেশগত, স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তার বিপদ চিহ্নিত করেছে তার রাসায়নিক পরিচালনারকিছু অংশে এবং সম্ভাব্য বিপদগুলোকে চিহ্নিত করা গেছে  সঠিকভাবে এমএসডিএস এবং টিডিএস-এর ভিত্তিতে। তবে, কারখানা-জোড়া রাসায়নিক সংক্রান্ত বিপদের মূল্যায়ণ করাহয়নি
  • রাসায়নিক সংক্রান্ত চিহ্নিত সম্ভাব্য পরিবেশগত ক্ষতির ক্ষেত্রে রাসায়নিকগুলোর  সংরক্ষণ, নাড়াচাড়া করা, ব্যবহার, নিষ্ক্রমণ, এবং প্রাথমিক পরিবেশগত  নিয়ন্ত্রণের জন্য কিছু প্রক্রিয়া এবং অনুশীলন অনুসরণ করা হয়, তবে সেগুলো লিখিত এবং নথিবদ্ধ অবস্থায় নেই

যে কারখানাগুলো  টুলিং এবং/অথবা পরিচালনার ক্ষেত্রেই কেবলমাত্র কারখানায় রাসায়নিক ব্যবহার করেঃ

হ্যাঁঃ 

  • রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার জন্য কারখানার একজন মনোনীত ব্যক্তি বা একটি দল একনিষ্ঠভাবে থাকতে হবে যাদের এমএসডিএস/এসডিএস-এ উল্লিখিত যথাযথ পেশাগত নিরাপত্তা এবং স্বাস্থ্য সংক্রান্ত পদক্ষেপগুলোকে এবং/অথবা কর্মচারীদের, কম্যুনিটিকে এবং পরিবেশকে সুরক্ষিত রাখার জন্য কারিগরি ডেটা শীট সম্পর্কে বোঝার মতো এবং সক্রিয় করার মতো যোগ্যতা থাকে।
  • কারখানাটি রাসায়নিকের সাথে সম্পর্কিত স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা বিষয়ে নিয়মিতভাবে পর্যবেক্ষণ এবং ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে রিপোর্ট করা সহ সমস্ত পারমিট/আইনি বাধ্যবাধকতার আওতার মধ্যে থেকে পরিচালনা করছে। 
  • বায়ু, মাটি, মাটির তলার পানি, শব্দ, বর্জ্য এবং কাদা, বর্জ্যপানির কারণে রাসায়নিক ভাণ্ডার সংক্রান্ত চিহ্নিত সম্ভাব্য পরিবেশগত  ক্ষতির ক্ষেত্রে রাসায়নিকগুলোর  সংরক্ষণ, নাড়াচাড়া করা, ব্যবহার, নিষ্কাশন, এবং প্রাথমিক পরিবেশগত  নিয়ন্ত্রণের  জন্য নিরাপত্তা এবং স্বাস্থ্য সম্পর্কিত লিখিত প্রক্রিয়া রয়েছে। এলাকাতে সর্বাধিক সম্ভাব্য প্রাকৃতিক বিপর্য্যয়গুলোকেও এই প্রক্রিয়াগুলোর বিবেচনা করতে হবে, উদাহরণ স্বরূপ, ভারি বৃষ্টি এবং বন্যা, ভূমিকম্প, তুফান, ইত্যাদি প্রবণ এলাকাগুলো।
  • একটি তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে অথবা সাইটে প্রাথমিক স্বাস্থ্য/ভালো থাকার প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানা যায় যখন বিপজ্জনক রাসায়নিকগুলোকে নাড়াচাড়া করা হয়, অথবা সংস্পর্শে আসার ঘটনা ঘটে।

আংশিক হ্যাঁঃ

  • রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার জন্য কারখানার একজন মনোনীত ব্যক্তি বা একটি দল একনিষ্ঠভাবে থাকতে হবে যাদের এমএসডিএস/এসডিএস-এ উল্লিখিত যথাযথ পেশাগত নিরাপত্তা এবং স্বাস্থ্য সংক্রান্ত পদক্ষেপগুলোকে এবং/অথবা কর্মচারীদের, কম্যুনিটিকে এবং পরিবেশকে সুরক্ষিত রাখার জন্য কারিগরি ডেটা শীট সম্পর্কে বোঝার মতো এবং সক্রিয় করার মতো যোগ্যতা থাকে।
  • কারখানাটি রাসায়নিকের সাথে সম্পর্কিত স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা বিষয়ে নিয়মিতভাবে পর্যবেক্ষণ এবং ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে রিপোর্ট করা সহ সমস্ত পারমিট/আইনি বাধ্যবাধকতার আওতার মধ্যে থেকে পরিচালনা করছে। 
  • রাসায়নিক সংক্রান্ত চিহ্নিত সম্ভাব্য পরিবেশগত ক্ষতির ক্ষেত্রে রাসায়নিকগুলোর  সংরক্ষণ, নাড়াচাড়া করা, ব্যবহার, নিষ্ক্রমণ, এবং প্রাথমিক পরিবেশগত  নিয়ন্ত্রণের  সাথে সম্পর্কিত নিরাপত্তা এবং স্বাস্থ্য বিষয়ে জন্য কিছু প্রক্রিয়া এবং অনুশীলন অনুসরণ করা হয়, তবে সেগুলো লিখিত এবং নথিবদ্ধ অবস্থায়  নেই ।

নথিপত্র আবশ্যকঃ

  • নিয়োগপত্রের চিঠি, চাকুরির বিবরণ, সংগঠনের চার্ট
  • দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি/দলের কারিকুলাম ভিটে
  • রাসায়নিক সংরক্ষণ, নাড়াচাড়া করা, ব্যবহার, এবং নিষ্ক্রমণ সংক্রান্ত ইএইচএস প্রক্রিয়া
  • এমএসডিএস-এর সাথে চিহ্নিত বিপদ এবং কারিগরি সংক্রান্ত কাগজপত্র সহ রাসায়নিকের ভাণ্ডার, ইএইচএস কর্তাব্যক্তিদের জন্য সহজলভ্য এবং ব্যবহৃত হয়ে থাকে
  • পরিচালনাগত সীমা এবং প্রাসঙ্গিক আইন সহ পারমিট যেগুলোর আওতাধীন হলো রাসায়নিক সংরক্ষণ, পরিচালনা, এবং নিষ্ক্রমণের সাথে সম্পর্কিত স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তার বাধ্যবাধকতা
  • রাসায়নিক দুর্ঘটনা এবং উপচে পড়ার রেকর্ড
  • স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তার লগ (প্রাথমিক শুশ্রুষা এবং হেলথ স্টেশন)

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • ইএইচএস, রাসায়নিক বিষয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি/দল রাসায়নিক সংরক্ষণ, পরিচালনা, এবং নিষ্ক্রমণের সাথে সম্পর্কিত স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে তাদের  বোঝাপড়াগুলো এবং তাদের সংশ্লিষ্ট দায়িত্বসমূহ যার অন্তর্গত হলো কারখানা জুড়ে ইএইচএস চেক/অডিট, পিপিই-এর অবস্থান এবং সহজপ্রাপ্যতা, নিরাপত্তা বিষয়ক যন্ত্রপাতির রক্ষণাবেক্ষণ, এমার্জেন্সি রেসপন্স প্ল্যান, ইত্যাদি বিষয়।  যে অঞ্চলে কারখানাটি অবস্থিত, সেই অঞ্চলের সবচেয়ে সম্ভাব্য প্রাকৃতিক বিপর্য্যয় সম্পর্কেও দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে সচেতন হতে হবে, উদাহরণ স্বরূপ, ভারি বর্ষা এবং বন্যা, ভূমিকম্প, সামুদ্রিক তুফান, ইত্যাদি প্রবণ এলাকা, এবং কীভাবে এই বিবেচনাগুলোকে প্রাকৃতিক বিপর্য্যয়ের ফলস্বরূপ ঘটা রাসায়নিক এক্সপোজারের সাথে সম্পর্কিত ইএইচএস পরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়।
  • স্বাস্থ্য/মেডিক্যাল স্টেশন, এমার্জেন্সি রেসপন্স টিম (যদি থাকে)
  • চিকিৎসক, নার্স, হেলথ প্র্যাক্টিশনার যদি সাইটে থাকেন

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • দায়ী ব্যক্তি/দল যথাস্থানে থাকা এবং রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার সাথে সম্পর্কিত ইএইচএস কর্মসূচী সামলানোর জন্য যোগ্যতাসম্পন্ন হওয়ার বিষয়গুলো যাচাই করুন
  • এমএসডিএস/এসডিএস, কারিগরি কাগজপত্রের সাথে চিহ্নিত বিপদ সহ রাসায়নিক ভাণ্ডার ইএইচএস কর্তাব্যক্তিদের কাছে সহজলভ্য এবং এবং ইএইচএস কর্মসূচীর ভিত্তি হিসাবে ব্যবহার করা হয় যেমন রাসায়নিক দুর্ঘটনা এবং এমার্জেন্সি রেসপন্স প্ল্যান, নিরাপত্তা বিষয়ক যন্ত্রপাতি এবং পিপিই-এর অবস্থান, কর্মচারীদের প্রশিক্ষণ, ইএইচএস ইউটিলিটি নিয়মিতভাবে খুঁটিয়ে দেখা এবং সেগুলোর রক্ষণাবেক্ষণ
  • বিস্ফোরণরোধী বৈদ্যুতিন আলো এবং আধার দাহ্য ব্যবহার এবং সংরক্ষণ এলাকাতে পাওয়া যায়

যদি হ্যাঁ হয়, যা কিছু প্রযোজ্য সেগুলো বেছে নিনঃ

  • রাসায়নিক সংরক্ষণ এলাকাতে বায়ু চলাচলের ব্যবস্থা থাকে, শুকনো এবং আবহাওয়া ও আগুনের ঝুঁকি থেকে সুরক্ষিত রাখা হয়।
  • সঞ্চয় এলাকা অননুমোদিত কর্মচারীদের থেকে সুরক্ষিত (যেমন, তালা লাগানো থাকে)।
  • রাসায়নিক সঞ্চয় এলাকাটিকে স্পষ্টভাবে চিহ্নিত করা থাকে।
  • জরুরি অবস্থা তৈরি হওয়ার সম্ভাব্যতার জন্য রাসায়নিক সংরক্ষণ এলাকাতে সহজ প্রবেশ এবং বহির্গমন ব্যবস্থা আছে। 
  • সংরক্ষণের আধারগুলো ভালো অবস্থায় রয়েছে, তাদের বিষয়বস্তুর জন্য যথাযথ, বন্ধ এবং স্পষ্টভাবে বিষয়বস্তুর নাম সহ লেবেল লাগানো রয়েছে। 
  • সঞ্চয় এলাকার মেঝে দৃঢ় এবং ছিদ্রবিহীন, পানির জন্য কনো এমন নালী নেই যেখান দিয়ে তরল বেরিয়ে যেতে পারে, এবং উপচে পড়া তরলের কোনো প্রমাণ নেই। 
  • অবাঞ্ছিতভাবে তরল যাতে না বেরিয়ে যায়, সেটি নিশ্চিত করার জন্য কঠিন এবং তরল রাসায়নিকের জন্য আনুষঙ্গিক ধারণের ব্যবস্থা রয়েছে ট্যাঙ্ক, ড্রাম, এবং অস্থায়ী ধারকে (যেখানে প্রযোজ্য)। 
  • সামঞ্জস্যবিহীন পদার্থগুলো (যেমন তীব্র অ্যাসিড এবং তীব্র বেস) পৃথকভাবে সংরক্ষণ করা হয়। 
  • দাহ্য পদার্থ তাপ অথবা দহনের উৎসের থেকে দূরে রাখা হয়, যার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হলো গ্রাউণ্ডিং এবং বিস্ফোরণ-বিরোধী আলো।
  • অস্থায়ী সংরক্ষণ পাত্রগুলো বন্ধ থাকে এবং বিষয়বস্তু, এবং বিপদের শ্রেণীর তথ্যসহ লেবেল লাগানো থাকে। 

(টীকাঃ সমস্ত কিছু আপলোড করার প্রয়োজন নেই, কিন্ত যাচাই চলাকালীন পুনর্বিবেচনার জন্য হাতের কাছে থাকা দরকার) প্রস্তাবিত আপলোডের অন্তর্ভুক্ত হতে পারে নিচের কয়েকটি অভ্যাসগুলোকে প্রদর্শন করার জন্যঃ ক) কারখানার নকশা অথবা যেখানে প্রযোজ্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষ সহ জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা (আগে আপলোড করে থাকলে প্রয়োজন নেই); খ) নিষেধাজ্ঞা সহ সঞ্চয়/ব্যবহারের পারমিট (যদি প্রযোজ্য হয়); গ) স্থানীয় ভাষায় স্থানীয় ফায়ার কোড এমএসডিএস/এসডিএস এবং প্রযুক্তিগত কাগজপত্র (আগে আপলোড করে থাকলে প্রয়োজন নেই); ঘ) রাসায়নিক আধারগুলোর উপরে রাসায়নিক লেবেল লাগানো (প্রকৃত লেবেলিং, হাতে লেখা নয়)’ ঙ) রাসায়নিক সঞ্চয় এলাকার নকশা, যাতে বিভিন্ন ধরনের রাসায়নিকের শ্রেণীবিভাগ এবং প্লেসমেন্ট থাকবে; চ) প্রতিটি রাসায়নিকের ভাণ্ডারে পৌঁছনোর তারিখ, লট নম্বর, রাসায়নিকের এক্সপায়ারেশনের তারিখ, উৎপাদনস্থলে প্রেরণ করার তারিখ, ইত্যাদি সহ ঢোকা/বেরনোর রেকর্ড, এফআইএফও রেকর্ড (আগে আপলোড করে থাকলে প্রয়োজন নেই); ছ) রাসায়নিক সঞ্চয় এলাকার জন্য ব্যবস্থাপনার অডিট/ পরিদর্শনের চেকলিস্ট; জ) যথাযথভাবে রাসায়নিক সঞ্চয়ের জন্য প্রামাণ্য পরিচালনাগত প্রক্রিয়া।

সঠিকভাবে রাসায়নিক নাড়াচাড়া করার জন্য যথাযথ রাসায়নিক সঞ্চয় ব্যবস্থা নিরাপত্তার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। প্রায়শই, আপাতদৃষ্টিতে যুক্তিসম্পন্ন সঞ্চয়ের ধারণা, যেমন বর্ণানুক্রমিক ভাবে রাসায়নিকগুলোকে রাখা, অনৈক্যবিশিষ্ট রাসায়নিকগুলোকে একসাথে সঞ্চিত করে ফেলতে পারে। কারখানাগুলোকে অবশ্যই দেখাতে হবে যে দূষণ এবং নিরাপত্তার ঝুঁকি এড়ানোর জন্য সঞ্চয়ের জন্য সমস্ত এলাকাগুলো ঠিকভাবে চিহ্নিত এবং যথাযথভাবে ব্যবস্থাপনাধীন রয়েছে। কাজের সেই জায়গায় অস্থায়ী সঞ্চয় হয় যেখানে রাসায়নিকগুলোকে প্রয়োগ করা হয়, যেমন স্ক্রীন-প্রিন্টিং স্টেশন। অস্থায়ী সঞ্চয় সংক্রান্ত প্রশ্নগুলো কেবলমাত্র সেইসব কারখানার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য যেগুলো উৎপাদন প্রক্রিয়াতে রাসায়নিক ব্যবহার করে।

আপনি যদি সঞ্চয় সংক্রান্ত সমস্ত বাধ্যবাধকতা পূরণ করেন তবে আপনাকে  পুরো পয়েন্ট দেয়া হবে। 

আপনি যদি সংরক্ষণের ক্ষেত্রে অর্ধেক বাধ্যবাধকতা পূরণ করেন তবে আপনাকে  আংশিক পয়েন্ট  দেয়া হবে।

প্রয়োগগত মূল কর্মকুশলতার সূচকঃ রাসায়নিক নাড়াচাড়া, ব্যবহার, এবং সংরক্ষণের অভ্যাস

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

প্রত্যাশা রয়েছে যে কারখানাটি স্পষ্টভাবে প্রদর্শন করতে পারবে যে দূষণ এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত ঝুঁকি প্রতিরোধ করার জন্য সমস্ত সংরক্ষণ এলাকাগুলো  ভালোভাবে চিহ্নিত এবং যথাযথ ব্যবস্থাপনার অধীন।

সঠিকভাবে রাসায়নিক নাড়াচাড়া করার জন্য যথাযথ রাসায়নিক সঞ্চয় ব্যবস্থা নিরাপত্তার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। নিরাপদ সংরক্ষণের প্রয়োজনীয়তা-সম্পন্ন একটি ব্যাপক পরিসরের   রাসায়নিকগুলোর কাছে কারখানাই তাদের ঘরবাড়ি। একটি বিল্ডিঙে রাসায়নিক সংরক্ষণের ক্ষেত্রে বিবিধ বিপজ্জনক উপাদান একটি নিরাপদ পৃথকীকরণ করা এবং নিরাপত্তা-সম্পন্ন এলাকা(গুলো)য় রাখার জন্য যথাযথ নকশা দরকার। প্রায়শই, আপাতদৃষ্টিতে যুক্তিসম্পন্ন সঞ্চয়ের ধারণা, যেমন বর্ণানুক্রমিক ভাবে রাসায়নিকগুলোকে রাখা, অনৈক্যবিশিষ্ট রাসায়নিকগুলোকে একসাথে সঞ্চিত করে ফেলতে পারে। যথাযথ প্রতিক্রিয়ার জন্য এমার্জেন্সি কর্মী, দমকল বিভাগ ইত্যাদির কাছে অবশ্যই  সংরক্ষণ এবং পরিমাণ সংক্রান্ত তথ্য থাকতে হবে।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ 1.0 (মে ২০২০) – অধ্যায় ৩

তৈরি করার জন্য টেমপ্লেটঃ

  • এমার্জেন্সি রেসপন্স পরিকল্পনা (টেমপ্লেট) – জেডডিএইচসি সিএমএস হাইপারলিঙ্ক হিসেবে পাওয়া যায়

আরো তথ্যের জন্য কোথায় যেতে হবে (যেমন, লিঙ্ক অথবা ওয়েবসাইট): 

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

যেসব কারখানা ব্যবহার করে উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক:

পুরো পয়েন্টঃ

  • রাসায়নিক সংরক্ষণ এলাকাতে (গুদাম এবং অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকা যার অন্তর্ভুক্ত হলো মাটির নিচের সংরক্ষণ এলাকা) বায়ুচলাচলের ব্যবস্থা থাকে, শুকনো থাকে, এবং আবহাওয়ার (ছাদ এবং দেয়াল সহ), আগুনের ঝুঁকি, এবং অননুমোদিত কর্মচারীদের প্রত্যক্ষ সংস্পর্শে আসা থেকে সুরক্ষিত রাখা হয়, যেমন, তালা লাগানো থাকে। অ্যাক্সেসের অনুমতি স্পষ্টভাবে সংজ্ঞায়িত করা আছে।
  • জরুরি অবস্থা তৈরি হওয়ার সম্ভাব্যতার জন্য রাসায়নিক সংরক্ষণ এলাকাতে সহজ প্রবেশ এবং বহির্গমন ব্যবস্থা আছে।
  • সংরক্ষণ এলাকার মেঝে দৃঢ় এবং ছিদ্রবিহীন, পানির জন্য এমন কোনও নালী নেই যেখান দিয়ে তরল বেরিয়ে যেতে পারে, এবং উপচে পড়া তরলের কোনো প্রমাণ নেই
  • রাসায়নিকগুলোকে মেঝে এবং দেয়ালের সাথে প্রত্যক্ষ সংস্পর্শে না আসার মতো করে সংরক্ষণ করা হয়
  • গুদাম এবং অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকাতে সংরক্ষিত সমস্ত রাসায়নিক স্পষ্টভাবে  চিহ্নিত, যার অন্তর্ভুক্ত হলো এমএসডিএস/এসডিএস অনুয়ায়ী, দৃশ্যমান সংকেত দ্বারা যথাযথভাবে চিহ্নিত করা প্রতিটি রাসায়নিক যাতে অন্তত রাসায়নিক পণ্যের নাম এবং যথাযথ বিপদের সতর্কতাবার্তা থাকে (গ্লোব্যাল হারমোনাইজেশন সিস্টেম (জিএইচএস)-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ সংকেত, অথবা সমতুল) 
  • গুদাম এবং অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকার সমস্ত রাসায়নিক আধারগুলো ভালো অবস্থায় আছে, তাদের প্রকৃত লেবেলিং, লট নম্বর, পণ্যের নাম, সরবরাহকারী/নির্মাতার নাম, এবং বিপদের শ্রেণী দ্বারা চিহ্নিত রয়েছে
  • অস্থায়ী/উপ-আধারগুলোতে আসল আধারের উপরে লাগানো লেবেলের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ যথাযথ তথ্যাদি সহ লেবেল লাগানো রয়েছে
  • ভিন্ন রাসায়নিকগুলোকে যথাযথ পার্টিশন দ্বারা সঠিকভাবে পৃথকীকরণ করা আছে
  • কঠিন এবং তরল রাসায়নিকগুলোকে যথাযথভাবে পৃথকীকরণ করা আছে
  • রাসায়নিকগুলোকে সুসংগঠিতভাবে সংরক্ষণ করা আছে, তাদের প্রকৃত লেবেল এবং এমএসডিএস-এ প্রদর্শিত বিপদের শ্রেণীবিভাগ অনুযায়ী
  • সামঞ্জস্যবিহীন পদার্থগুলো যেমন তীব্র অ্যাসিড, তীব্র বেস, করোসিভ, দাহ্য পদার্থ, ইত্যাদিগুলোকে চিহ্নিত এবং পৃথকভাবে সংরক্ষণ করা হয়।
  • দাহ্য পদার্থ তাপ অথবা দহনের উৎসের থেকে দূরে রাখা হয়, যার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হলো গ্রাউণ্ডিং এবং বিস্ফোরণ-বিরোধী আলো। সমস্ত বিস্ফোরক অথবা দাহ্য উপকরণগুলো ধূমপানের জায়গা থেকে অন্তত ~ ১৫ মিটার (৫০ ফিট) দূরে অবস্থিত
  • সময়সীমা শেষ হয়ে যাওয়া রাসায়নিকগুলোকে নিয়মিতভাবে ট্র্যাক করা হয়, পৃথকভাবে সংরক্ষণ করা হয়, এবং যথাযথভাবে লেবেল লাগিয়ে রাখা হয়
  • গুদাম এবং অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকায় কর্মচারীদের বোঝার মতো ভাষায়   এমএসডিএস/এসডিএস সহজেই পাওয়া যায়
  • সংরক্ষণের শর্তাবলী যেমন তাপমাত্রা, জলীয়ভাব, বিস্ফোরণরোধী স্থাপত্য   এমএসডিএস অনুযায়ী পূরণ করা হয়েছে
  • যথাযথ পিপিই এবং স্পিলেজ কিট পাওয়া যায় এবং সহজে অ্যাক্সেস করা যায়
  • গুদাম এবং অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকাতে সমস্ত রঞ্জক পদার্থ এবং রাসায়নিকের   আধারগুলো ঢাকা দেয়া থাকে এবং ঠেসে বোঝাই করা থাকে না
  • অবাঞ্ছিতভাবে তরল যাতে না বেরিয়ে যায়, সেটি নিশ্চিত করার জন্য কঠিন এবং তরল রাসায়নিকের জন্য আনুষঙ্গিক ধারণের ব্যবস্থা রয়েছে ট্যাঙ্ক, ড্রাম, এবং অস্থায়ী ধারকে (যেখানে প্রযোজ্য)। আনুষঙ্গিক ধারণ ব্যবস্থা ফাটল বা ফাঁকবিহীনভাবে ভালো অবস্থাতে আছে। আনুষঙ্গিক ধারণের, ন্যূনতম, ধারণক্ষমতা হওয়া উচিত রাসায়নিকের মূল (প্রাথমিক) আধারটির অন্তত ১১০%, অথবা মূল (প্রাথমিক) আধারটির সম্পূর্ণ আয়তনের অন্তত ১০% ধারণ করতে সক্ষম হওয়া উচিত।
  • প্রতিটি রাসায়নিক এবং রঞ্জক পদার্থের জন্য নির্দিষ্টভাবে সেই রাসায়নিক পণ্যটির জন্যই যথাযথভাবে লেবেল লাগানো স্বতন্ত্র স্কুপ আছে (অথবা জার, বালতি, চামচ, ইত্যাদি)।
  • স্কুপ এবং অস্থায়ী ধারকগুলো যেমন বালতি স্থিতিশীল পদার্থ দিয়ে তৈরি হয় রাসায়নিক পণ্যটির সাথে যেকোনো ধরনের ক্ষয়/ রাসায়নিক বিক্রিয়া এড়িয়ে যাওয়ার জন্য। রাসায়নিক বহনকারী সেই সমস্ত আধারগুলোকে এড়িয়ে যাওয়ার জন্য সুপারিশ করা হয় যেগুলো বিক্রিয়া করে অথবা বিপজ্জনক রাসায়নিক অবশিষ্টাংশ যেগুলো থেকে বেরিয়ে আসতে পারে, যেমন, পিভিসি এবং লোহা সমন্বিত উপকরণগুলোকে এড়িয়ে যেতে হবে।
  • ওজনকারী যন্ত্রপাতি/টুলগুলোকে পরিষ্কার, শুকনো, মসৃণ এবং সমতল তলদেশে রাখা হয়
  • কারখানার নকশা অথবা এমার্জেন্সি রেসপন্স পরিকল্পনাকে হালনাগাদ রাখা হয়েছে এবং যেখানে প্রযোজ্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সাথে শেয়ার করা হয়েছে 
  • যেখানে প্রয়োজন গ্রাউণ্ডিং এবং বণ্ডিং ব্যবহার করা হয় (আগুনের ঝুঁকি)
  • পর্যাবৃত্ত পরিদর্শন চালু রয়েছে (সাপ্তাহিক ভিত্তিতে করার সুপারিশ করা হয়)

আংশিক পয়েন্টঃ (নিচে তালিকাভুক্ত বাধ্যবাধকতাগুলোর অন্তত অর্ধেক পূরণ করে))

  • রাসায়নিক সংরক্ষণ এলাকাতে (গুদাম এবং অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকা যার অন্তর্ভুক্ত হলো মাটির নিচের সংরক্ষণ এলাকা) বায়ুচলাচলের ব্যবস্থা থাকে, শুকনো থাকে, এবং আবহাওয়ার (ছাদ এবং দেয়াল সহ), আগুনের ঝুঁকি, এবং অননুমোদিত কর্মচারীদের প্রত্যক্ষ সংস্পর্শে আসা থেকে সুরক্ষিত রাখা হয়, যেমন, তালা লাগানো থাকে। অ্যাক্সেসের অনুমতি স্পষ্টভাবে সংজ্ঞায়িত করা আছে।
  • জরুরি অবস্থা তৈরি হওয়ার সম্ভাব্যতার জন্য রাসায়নিক সংরক্ষণ এলাকাতে সহজ প্রবেশ এবং বহির্গমন ব্যবস্থা আছে।
  • সংরক্ষণ এলাকার মেঝে দৃঢ় এবং ছিদ্রবিহীন, পানির জন্য এমন কোনও নালী নেই যেখান দিয়ে তরল বেরিয়ে যেতে পারে, এবং উপচে পড়া তরলের কোনো প্রমাণ নেই
  • রাসায়নিকগুলোকে মেঝে এবং দেয়ালের সাথে প্রত্যক্ষ সংস্পর্শে না আসার মতো করে সংরক্ষণ করা হয়
  • গুদাম এবং অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকাতে সংরক্ষিত সমস্ত রাসায়নিক স্পষ্টভাবে  চিহ্নিত, যার অন্তর্ভুক্ত হলো এমএসডিএস/এসডিএস অনুয়ায়ী, দৃশ্যমান সংকেত দ্বারা যথাযথভাবে চিহ্নিত করা প্রতিটি রাসায়নিক যাতে অন্তত রাসায়নিক পণ্যের নাম এবং যথাযথ বিপদের সতর্কতাবার্তা থাকে (গ্লোব্যাল হারমোনাইজেশন সিস্টেম (জিএইচএস)-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ সংকেত, অথবা সমতুল) 
  • গুদাম এবং অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকার সমস্ত রাসায়নিক আধারগুলো ভালো অবস্থায় আছে, তাদের প্রকৃত লেবেলিং, লট নম্বর, পণ্যের নাম, সরবরাহকারী/নির্মাতার নাম, এবং বিপদের শ্রেণী দ্বারা চিহ্নিত রয়েছে
  • অস্থায়ী/উপ-আধারগুলোতে আসল আধারের উপরে লাগানো লেবেলের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ যথাযথ তথ্যাদি সহ লেবেল লাগানো রয়েছে
  • ভিন্ন রাসায়নিকগুলোকে যথাযথ পার্টিশন দ্বারা সঠিকভাবে পৃথকীকরণ করা আছে
  • কঠিন এবং তরল রাসায়নিকগুলোকে যথাযথভাবে পৃথকীকরণ করা আছে
  • রাসায়নিকগুলোকে সুসংগঠিতভাবে সংরক্ষণ করা আছে, তাদের প্রকৃত লেবেল এবং এমএসডিএস-এ প্রদর্শিত বিপদের শ্রেণীবিভাগ অনুযায়ী
  • সামঞ্জস্যবিহীন পদার্থগুলো যেমন তীব্র অ্যাসিড, তীব্র বেস, করোসিভ, দাহ্য পদার্থ, ইত্যাদিগুলোকে চিহ্নিত এবং পৃথকভাবে সংরক্ষণ করা হয়।
  • দাহ্য পদার্থ তাপ অথবা দহনের উৎসের থেকে দূরে রাখা হয়, যার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হলো গ্রাউণ্ডিং এবং বিস্ফোরণ-বিরোধী আলো। সমস্ত বিস্ফোরক অথবা দাহ্য উপকরণগুলো ধূমপানের জায়গা থেকে অন্তত ~ ১৫ মিটার (৫০ ফিট) দূরে অবস্থিত
  • সময়সীমা শেষ হয়ে যাওয়া রাসায়নিকগুলোকে নিয়মিতভাবে ট্র্যাক করা হয়, পৃথকভাবে সংরক্ষণ করা হয়, এবং যথাযথভাবে লেবেল লাগিয়ে রাখা হয়
  • গুদাম এবং অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকায় কর্মচারীদের বোঝার মতো ভাষায়   এমএসডিএস/এসডিএস সহজেই পাওয়া যায়
  • সংরক্ষণের শর্তাবলী যেমন তাপমাত্রা, জলীয়ভাব, বিস্ফোরণরোধী স্থাপত্য   এমএসডিএস অনুযায়ী পূরণ করা হয়েছে
  • যথাযথ পিপিই এবং স্পিলেজ কিট পাওয়া যায় এবং সহজে অ্যাক্সেস করা যায়
  • গুদাম এবং অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকাতে সমস্ত রঞ্জক পদার্থ এবং রাসায়নিকের   আধারগুলো ঢাকা দেয়া থাকে এবং ঠেসে বোঝাই করা থাকে না
  • অবাঞ্ছিতভাবে তরল যাতে না বেরিয়ে যায়, সেটি নিশ্চিত করার জন্য কঠিন এবং তরল রাসায়নিকের জন্য আনুষঙ্গিক ধারণের ব্যবস্থা রয়েছে ট্যাঙ্ক, ড্রাম, এবং অস্থায়ী ধারকে (যেখানে প্রযোজ্য)। আনুষঙ্গিক ধারণ ব্যবস্থা ফাটল বা ফাঁকবিহীনভাবে ভালো অবস্থাতে আছে। আনুষঙ্গিক ধারণের, ন্যূনতম, ধারণক্ষমতা হওয়া উচিত রাসায়নিকের মূল (প্রাথমিক) আধারটির অন্তত ১১০%, অথবা মূল (প্রাথমিক) আধারটির সম্পূর্ণ আয়তনের অন্তত ১০% ধারণ করতে সক্ষম হওয়া উচিত।
  • প্রতিটি রাসায়নিক এবং রঞ্জক পদার্থের জন্য নির্দিষ্টভাবে সেই রাসায়নিক পণ্যটির জন্যই যথাযথভাবে লেবেল লাগানো স্বতন্ত্র স্কুপ আছে (অথবা জার, বালতি, চামচ, ইত্যাদি)।
  • স্কুপ এবং অস্থায়ী ধারকগুলো যেমন বালতি স্থিতিশীল পদার্থ দিয়ে তৈরি হয় রাসায়নিক পণ্যটির সাথে যেকোনো ধরনের ক্ষয়/ রাসায়নিক বিক্রিয়া এড়িয়ে যাওয়ার জন্য। রাসায়নিক বহনকারী সেই সমস্ত আধারগুলোকে এড়িয়ে যাওয়ার জন্য সুপারিশ করা হয় যেগুলো বিক্রিয়া করে অথবা বিপজ্জনক রাসায়নিক অবশিষ্টাংশ যেগুলো থেকে বেরিয়ে আসতে পারে, যেমন, পিভিসি এবং লোহা সমন্বিত উপকরণগুলোকে এড়িয়ে যেতে হবে।
  • ওজনকারী যন্ত্রপাতি/টুলগুলোকে পরিষ্কার, শুকনো, মসৃণ এবং সমতল তলদেশে রাখা হয়
  • কারখানার নকশা অথবা এমার্জেন্সি রেসপন্স পরিকল্পনাকে হালনাগাদ রাখা হয়েছে এবং যেখানে প্রযোজ্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সাথে শেয়ার করা হয়েছে 
  • যেখানে প্রয়োজন গ্রাউণ্ডিং এবং বণ্ডিং ব্যবহার করা হয় (আগুনের ঝুঁকি)
  • পর্যাবৃত্ত পরিদর্শন চালু রয়েছে (সাপ্তাহিক ভিত্তিতে করার সুপারিশ করা হয়)

যে কারখানাগুলো  টুলিং এবং/অথবা পরিচালনার ক্ষেত্রেই কেবলমাত্র কারখানায় রাসায়নিক ব্যবহার করেঃ

পুরো পয়েন্টঃ

  • রাসায়নিকগুলোকে মেঝে এবং দেয়ালের সাথে প্রত্যক্ষ সংস্পর্শে না আসার মতো করে সংরক্ষণ করা হয়
  • রাসায়নিকগুলোকে বায়ু-চলাচলসম্পন্ন জায়গায়, শুকনো অবস্থায়, এবং আবহাওয়ার প্রত্যক্ষ সংস্পর্শে আসা থেকে সুরক্ষিত রাখা হয়
  • কঠিন এবং তরল রাসায়নিক (যেখানে প্রযোজ্য) যথাযথভাবে পৃথকীকরণ করা হয়
  • রাসায়নিক আধারগুলো ভালো অবস্থায় আছে, তাদের প্রকৃত লেবেল এবং বিপদের শ্রেণীবিভাগ অনুযায়ী চিহ্নিত 
  • দাহ্য পদার্থগুলোকে (যেখানে প্রযোজ্য) তাপ বা দাহ্য পদার্থের উৎস থেকে দূরে রাখা হয়। সমস্ত বিস্ফোরক অথবা দাহ্য উপকরণগুলো ধূমপানের জায়গা থেকে অন্তত ~ ১৫ মিটার (৫০ ফিট) দূরে অবস্থিত
  • অনিচ্ছাকৃতভাবে কিছু যাতে না বেরিয়ে যায় তা নিশ্চিত করার জন্য আনুষঙ্গিক আধার রয়েছে (যেখানে প্রযোজ্য)। আনুষঙ্গিক ধারণ ব্যবস্থা ফাটল বা ফাঁকবিহীনভাবে ভালো অবস্থাতে আছে। আনুষঙ্গিক ধারণের, ন্যূনতম, ধারণক্ষমতা হওয়া উচিত রাসায়নিকের মূল (প্রাথমিক) আধারটির অন্তত ১১০%, অথবা মূল (প্রাথমিক) আধারটির সম্পূর্ণ আয়তনের অন্তত ১০% ধারণ করতে সক্ষম হওয়া উচিত।
  • এমএসডিএস/এসডিএস (যেখানে প্রযোজ্য) অথবা বিপদ সংক্রান্ত অন্যান্য সংযোগ ব্যবস্থা কর্মচারীদের বোধগম্য ভাষায় তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া যায়/ দৃশ্যমান থাকে
  • যথাযথ পিপিই পাওয়া যায় এবং সহজলভ্য (যেখানে প্রযোজ্য)
  • কারখানার নকশা অথবা এমার্জেন্সি রেসপন্স পরিকল্পনাকে হালনাগাদ রাখা হয়েছে এবং যেখানে প্রযোজ্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সাথে শেয়ার করা হয়েছে 
  • কারখানাটির পর্যবেক্ষণের একটি কার্যক্রম আছে তাদের উপঠিকাদারদের  রাসায়নিক সংরক্ষণ সংক্রান্ত ব্যবস্থাপনার জন্য।

আংশিক পয়েন্টঃ (নিচে তালিকাভুক্ত বাধ্যবাধকতাগুলোর অন্তত অর্ধেক পূরণ করে)

  • রাসায়নিকগুলোকে মেঝে এবং দেয়ালের সাথে প্রত্যক্ষ সংস্পর্শে না আসার মতো করে সংরক্ষণ করা হয়
  • রাসায়নিকগুলোকে বায়ু-চলাচলসম্পন্ন জায়গায়, শুকনো অবস্থায়, এবং আবহাওয়ার প্রত্যক্ষ সংস্পর্শে আসা থেকে সুরক্ষিত রাখা হয়
  • কঠিন এবং তরল রাসায়নিক (যেখানে প্রযোজ্য) যথাযথভাবে পৃথকীকরণ করা হয়
  • রাসায়নিক আধারগুলো ভালো অবস্থায় আছে, তাদের প্রকৃত লেবেল এবং বিপদের শ্রেণীবিভাগ অনুযায়ী চিহ্নিত 
  • দাহ্য পদার্থগুলোকে (যেখানে প্রযোজ্য) তাপ বা দাহ্য পদার্থের উৎস থেকে দূরে রাখা হয়। সমস্ত বিস্ফোরক অথবা দাহ্য উপকরণগুলো ধূমপানের জায়গা থেকে অন্তত ~ ১৫ মিটার (৫০ ফিট) দূরে অবস্থিত
  • অনিচ্ছাকৃতভাবে কিছু যাতে না বেরিয়ে যায় তা নিশ্চিত করার জন্য আনুষঙ্গিক আধার রয়েছে (যেখানে প্রযোজ্য)। আনুষঙ্গিক ধারণ ব্যবস্থা ফাটল বা ফাঁকবিহীনভাবে ভালো অবস্থাতে আছে। আনুষঙ্গিক ধারণের, ন্যূনতম, ধারণক্ষমতা হওয়া উচিত রাসায়নিকের মূল (প্রাথমিক) আধারটির অন্তত ১১০%, অথবা মূল (প্রাথমিক) আধারটির সম্পূর্ণ আয়তনের অন্তত ১০% ধারণ করতে সক্ষম হওয়া উচিত।
  • এমএসডিএস/এসডিএস (যেখানে প্রযোজ্য) অথবা বিপদ সংক্রান্ত অন্যান্য সংযোগ ব্যবস্থা কর্মচারীদের বোধগম্য ভাষায় তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া যায়/ দৃশ্যমান থাকে
  • যথাযথ পিপিই পাওয়া যায় এবং সহজলভ্য (যেখানে প্রযোজ্য)
  • কারখানার নকশা অথবা এমার্জেন্সি রেসপন্স পরিকল্পনাকে হালনাগাদ রাখা হয়েছে এবং যেখানে প্রযোজ্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সাথে শেয়ার করা হয়েছে 

নথিপত্র আবশ্যকঃ

  • কারখানার নকশা অথবা স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সাথে এমার্জেন্সি রেসপন্স  পরিকল্পনা (যেখানে প্রযোজ্য)
  • সীমাবদ্ধতা সহ সংরক্ষণ / ব্যবহারের অনুমতি (যদি প্রযোজ্য হয়)
  • স্থানীয় ফায়ার কোড
  • স্থানীয় ভাষায় এমএসডিএস/এসডিএস এবং কারিগরি শীট
  • রাসায়নিক আধারের উপর রাসায়নিক লেবেলিং (প্রকৃত লেবেলিং, হাতে লেখা নয়)
  • রাসায়নিক সংরক্ষণ এলাকার নকশা, শ্রেণীবিভাগ এবং ভিন্ন ধরনের রাসায়নিকের   অবস্থান নির্দিষ্টকরণ সহ
  • প্রতিটি রাসায়নিকের সংরক্ষণ এলাকায় উপস্থিত হওয়ার নির্দিষ্ট তারিখ উল্লেখ সহকারে সংরক্ষণে ঢোকা/বেরনোর লগ্‌, এফআইএফও রেকর্ড, লট নম্বর, ব্যবহার শেষ হওয়ার সময়সীমা, উৎপাদনে যাওয়ার তারিখ, ইত্যাদি।
  • রাসায়নিক সংরক্ষণ এলাকাগুলোতে কর্তৃপক্ষের অডিট / পরিদর্শনের চেকলিস্ট
  • যথাযথভাবে রাসায়নিক সংরক্ষণের জন্য প্রামাণ্য পরিচালনা সংক্রান্ত প্রক্রিয়াসমূহ

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • এমএসডিএস/এসডিএস এবং সিএলপি বিষয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক এবং কর্মীদের বোঝাপড়া পরীক্ষা করুন।
  • তাদের কাজের জায়গায় কি বিভিন্ন রাসায়নিকের শ্রেণীভিত্তিক বিপদ সম্পর্কে তারা ব্যাখ্যা দিতে সক্ষম হয়েছেন?
  • বিবিধ বিপদসংকেত এবং সংরক্ষণের সামঞ্জস্য সম্পর্কে তাদের বোঝাপড়া খুঁটিয়ে দেখুন।

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • কারখানার নকশা অথবা এমার্জেন্সি রেসপন্স পরিকল্পনাকে হালনাগাদ রাখা হয়েছে এবং যেখানে প্রযোজ্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সাথে শেয়ার করা হয়েছে 
  • সমস্ত প্রাসঙ্গিক এলাকাগুলোকে খুঁটিয়ে দেখুন যেখানে রাসায়নিকগুলোকে ব্যবহার এবং সংরক্ষণ করা হয়, যার অন্তর্ভুক্ত হলোঃ গুদাম, অস্থায়ী সংরক্ষণ এলাকা, অভ্যন্তরীণ পরীক্ষাগার, রাসায়নিক রেসিপি মিশ্রণ এলাকা, ওয়র্কশপ/উৎপাদন এলাকা, ইটিপি।
  • রাসায়নিকগুলোকে যথাযথভাবে লেবেল লাগানো হয় (প্রকৃত লেবেল, হাতে লেখা নয়) এবং যথাযথভাবে  পৃথকীকরণ, ফ্লোর থেকে দূরে সংরক্ষণ, ইত্যাদি করা হয়।
  • সংরক্ষণের অবস্থা বাধ্যবাধকতাগুলোকে পূরণ করে (বিপদের শ্রেণী, ঝুঁকি, সামঞ্জস্য, রূপ (কঠিন বনাম তরল), সংরক্ষণের শর্তগুলো অনুয়ায়ী ছাদ, দেয়াল, মেঝে, পৃথকীকরণের শর্তগুলো পূরণ করা হয়েছে, যেমন, তাপমাত্রা, জলীয়ভাব, বিস্ফোরণরোধী কাঠামো, ইত্যাদি।
  • অ্যাক্সেস করার অনুমতি এবং বিপদের সতর্কবার্তার সংকেত
  • কর্মচারীদের বোঝার মতো ভাষায় হালনাগাদ এবং যথাযথভাবে অনূদিত   এমএসডিএস/এসডিএস তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া যায়; সংকেতগুলো স্পষ্টভাবে   দৃশ্যমান কিনা এবং সংরক্ষিত রাসায়নিক ও তার এমএসডিএস/এসডিএস-এর সাথে মিলছে কিনা খুঁটিয়ে দেখুন – প্রতিটি অবস্থানে অন্তত ৫টি পরীক্ষা করুন
  • আনুষঙ্গিক ধারণব্যবস্থা রয়েছে এবং তা যথাযথ
  • বিপজ্জনক বর্জ্য এবং কর্দমের সংরক্ষণ এবং ধারণ এলাকা খুঁটিয়ে দেখুন
  • সাধারণ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা এবং রাসায়নিকের সংগঠনগত /শ্রেণীবিভাগ, রাসায়নিক আধারের অখণ্ডতা ইত্যাদি পরীক্ষা করে দেখুন যেমন, ট্যাঙ্ক অথবা ড্রাম, ইত্যাদি, রাসায়নিকগুলোর উপরে লেখা ব্যবহারযোগ্যতা শেষ হওয়ার তারিখ
  • রাসায়নিক বার করায় সহায়তা করার জন্য আধারগুলোতে পরিবর্তন ঘটানো হয়নি
  • আধারগুলো ভালোভাবে ঢাকা দিয়ে বন্ধ করা আছে
  • ওজন করার সমস্ত যন্ত্রপাতি এবং আনুষঙ্গিক জিনিসগুলো (নাড়াচাড়া করা এবং ওজন করার প্রক্রিয়া চলাকালীন কি ধুলো উৎপন্ন হচ্ছে?)
  • স্কুপ এবং বালতি চেক করুন যেমন যে পণ্যের জন্য সেগুলোকে ব্যবহার করা হচ্ছে তার নাম আছে কিনা সেগুলোতে
  • পিপিই ব্যবহার এবং সহজপ্রাপ্যতা এবং রক্ষণাবেক্ষণের রেকর্ড দেখুন যেখানে প্রযোজ্য
  • অন্তত ৩টি ভিন্ন রাসায়নিকের একটি ডেমো চেয়ে নিন এবং খুঁটিয়ে দেখুন যে প্রতিটি রাসায়নিকের নিজস্ব নাড়াচাড়া করা এবং ওজন করার এমন যন্ত্রপাতি আছে কিনা যেগুলোতে যে পণ্যের জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে সেই পণ্যের নাম লেখা লেবেল লাগানো রয়েছে। সেই ডেমো চলাকালীন, যাচাইকারীর খুঁটিয়ে দেখা উচিত যে তারা একটি মিশ্রণের ভিন্ন রাসায়নিকগুলোকে স্বাধীনভাবে ওজন করে কিনা।
  • সংরক্ষণ এলাকার ছবি তুলুন
  • পর্যাবৃত্ত পরিদর্শনের রেকর্ড

আপনার প্রশিক্ষণে অন্তর্ভুক্ত সমস্ত বিষয়গুলি দয়া করে বেছে নিনঃ এমআরএসএল; আরএসএল

গত ক্যালেন্ডার বছরে নির্বাহ হওয়া আরএসএল এবং এমআরএসএল প্রশিক্ষণ সম্পর্কে দয়া করে বিবৃত করুন

কত জন কর্মচারীকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছিল?

আপনি আপনার কর্মীদের কত ঘন ঘন প্রশিক্ষণ প্রদান করেন?

আপলোডের জন্য সুপারিশ: এমআরএসএল / আরএসএল প্রশিক্ষণের রেকর্ড(গুলো) নাম, তারিখ, প্রশিক্ষণের বিষয়বস্তু, যা প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে তার সম্বন্ধে সংক্ষিপ্ত বিবরণ সহ

এমআরএসএল এবং আরএসএল প্রশিক্ষণ অবশ্যই একজন জ্ঞানসম্পন্ন কর্মীর মাধ্যমে হতে হবে এবং নথিপত্র থাকতে হবে যাতে বোঝা যায় যে কে, কবে, কোথায়, এবং কীভাবে তাদের এমআরএসএল এবং আরএসএল প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছিল।

যাচাই চলাকালীন অতিরিক্ত ডকুমেন্টেশনের জন্য অনুরোধ করা হবেঃ চাকরির বিবরণ।

আংশিক হ্যাঁ বেছে নিন যদি প্রশিক্ষণ দেয়া হয়ে থাকে কিন্তু ভালোভাবে সে বিষয়টি নথিবদ্ধ না হয়ে থাকে।

প্রক্রিয়াগত মূল কর্মকুশলতার সূচকঃ  কর্মী প্রশিক্ষণ এবং সংযোগ

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

আরএসএল, এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকার বিষয়টিকে বাধ্যতামূলক করার আগে, আমাদের অবশ্যই বিষয়টি এবং তার সপক্ষে যুক্তিগুলোকে কর্মীদের কাছে পরিচিত করাতে হবে যাতে একটি কর্মসূচীকে কার্যকরীভাবে  বাস্তবায়িত করা যায়। এমআরএসএল/আরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকার বিষয়টির দায়িত্বে থাকা কর্তাব্যক্তিদের সঠিক ধরনের শিক্ষা, প্রশিক্ষণ এবং/অথবা অভিজ্ঞতার মাধ্যমে যোগ্য হয়ে ওঠাটি সুনিশ্চিত করার জন্য কারখানাকে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে।

কারখানায় ব্যবহৃত সামঞ্জস্যবিহীন বিপজ্জনক রাসায়নিকগুলোকে আইনসমূহ, প্রবিধানসমূহ, অথবা খরিদ্দারদের বাধ্যবাধকতা (যেমন জেডডিএইচসি থেকে নির্মীয়মাণ আরএসএল (এমআরএসএল) পূরণের জন্য সমস্ত কারখানাকেই নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে হবে। তবে, নিষিদ্ধ পরিচালনাগত রাসায়নিকগুলোর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকার বিষয়টিকে বাধ্যতামূলক করার আগে, আমাদের অবশ্যই প্রথমে বিষয়টি এবং তার সপক্ষে যুক্তিগুলোকে কর্মীদের কাছে পরিচিত করাতে হবে যাতে একটি কর্মসূচীকে  কার্যকরীভাবে বাস্তবায়িত করা যায়।

রাসায়নিক এবং সেগুলোকে নাড়াচাড়া করাই হলো রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা এবং কাজের জায়গাতে নিরাপত্তা বজায় রাখার মূল অপরিহার্যতা। রাসায়নিক, কর্মকাণ্ডের জন্য তাদের যথাযথ প্রয়োগ, এবং কর্মচারী এবং কাজের  জায়গায় তাদের সম্ভাব্য বিপজ্জনক বৈশিষ্ট্য নিয়ে কাজ করার সময় একটি সম্পূর্ণ রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা প্রক্রিয়ায় এমআরএসএল/আরএসএল কেবলমাত্র একটি দৃষ্টিভঙ্গী।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা প্রক্রিয়ায় এমআরএসএল/আরএসএল বিষয়ে প্রশিক্ষণের  আওতাধীন হওয়া উচিত কারখানায় বিপজ্জনক রাসায়নিকগুলোর সম্ভাব্য উৎস(গুলো) যার সাথে থাকবে সম্পূর্ণ রাসায়নিক ভাণ্ডার এবং যতটা পাওয়া যাবে ততখানি স্টক থেকে তার ঝুঁকির সম্পূর্ণ বিশ্লেষণ। কোনো ধরনের সামঞ্জস্যহীনতা খুঁজে পাওয়া গেলে মূল কারণ বিশ্লেষণ করার মতো জায়গায় কারখানাটিকে থাকতে হবে

আরও তথ্যের জন্য কোথায় যেতে হবেঃ 

https://mrsl.roadmaptozero.com/MRSL2_0

http://afirm-group.com/afirm-rsl/

https://www.aafaglobal.org/AAFA/Solutions_Pages/Restricted_Substance_List

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

যেসব কারখানা উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক ব্যবহার করে:

হ্যাঁ

  • রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা, এমআরএসএল এবং আরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্য বজায় রাখার জন্য একজন পদমর্যাদা-সম্পন্ন ব্যক্তি(গণ) দায়বদ্ধ, যিনি বা যারা আনুষ্ঠানিক চাকরির আবেদন দ্বারা চিহ্নিত, যার অন্তর্ভুক্ত হলো কিন্তু সীমাবদ্ধ নয়ঃ পারচেজিং, প্রোডাকশন লাইন এবং কারিগরি বিভাগের ম্যানেজাররা।
  • প্রশিক্ষণের একটি আনুষ্ঠানিক ব্যবস্থা রয়েছে যেটি কে, কবে, কোথায়, এবং কীভাবে তাদেরকে এমআরএসএল/আরএসএল বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছিল সেটিকে নথিবদ্ধ করে।
  • রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার জন্য দায়বদ্ধ পদমর্যাদা-সম্পন্ন ব্যক্তি(গণ) এমআরএসএল এবং আরএসএল বিষয়ে জ্ঞানসম্পন্ন হবেন (জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে)

আংশিক হ্যাঁ 

  • দৃশ্যপট ১ঃ 
    • রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা, এমআরএসএল এবং আরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্য বজায় রাখার জন্য একজন পদমর্যাদা-সম্পন্ন ব্যক্তি(গণ) দায়বদ্ধ, যিনি বা যারা আনুষ্ঠানিক চাকরির আবেদন দ্বারা চিহ্নিত, যার অন্তর্ভুক্ত হলো কিন্তু সীমাবদ্ধ নয়ঃ পারচেজিং, প্রোডাকশন লাইন এবং কারিগরি বিভাগের ম্যানেজাররা।
    • এমআরএসএল এবং আরএসএল প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে কিন্তু ভালোভাবে নথিবদ্ধ করা হয়নি।
  • দৃশ্যপট ২ঃ 
    • রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার জন্য একজন পদমর্যাদা-সম্পন্ন ব্যক্তি(গণ) দায়ী, যিনি বা যারা আনুষ্ঠানিক চাকরির আবেদন দ্বারা চিহ্নিত, যার অন্তর্ভুক্ত হলো কিন্তু সীমাবদ্ধ নয়ঃ পারচেজিং, প্রোডাকশন লাইন এবং কারিগরি বিভাগের ম্যানেজাররা।
    • প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে এবং ভালোভাবে নথিবদ্ধ করা হয়েছে কিন্তু দায়বদ্ধ ব্যক্তি(রা) এখনও  এমআরএসএল এবং আরএসএল সম্বন্ধে জ্ঞানপ্রাপ্ত হননি।

নথিপত্র আবশ্যকঃ

  • কাজের বিবরণ
  • নাম, তারিখ, প্রশিক্ষণের বিষয়বস্তু, কোন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছিল তার  সংক্ষিপ্ত বিবরণ সহ প্রশিক্ষণের রেকর্ড
  • কর্তৃপক্ষ বা মূল কর্মচারীদের জিজ্ঞাসাবাদ / কথোপকথন (অন্তর্ভুক্ত কিন্তু সীমিত নয় পারচেজিং, প্রোডাকশন লাইন এবং কারিগরি বিভাগের ম্যানেজারদের মধ্যে): 
    • দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তির বোঝাপড়া খুঁটিয়ে দেখুন
    • এমআরএসএল এবং আরএসএল-এর মধ্যে পার্থক্য
    • কয়েকটি (ন্যূনতম ৫টি) এমআরএসএল স্থিতিমাপের উদাহরণ
    • নির্দিষ্ট স্থিতিমাপের (প্যারামিটারের) (র‍্যান্ডম বেছে নেয়া) জন্য বিভিন্ন এমআরএসএল সীমা – এর অর্থ কি এবং কীভাবে ব্যবস্থাপনা করতে হবে
    • ডাইস্টাফ থেকে প্রাপ্ত মূল নিষিদ্ধ পদার্থটি কি? (কেবলমাত্র প্রিন্টিং / রঞ্জন কার্যের কারখানাগুলোর জন্য)
    • তারা এমআরএসএল এবং আরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকা সম্পর্কে তথ্য কোথায় পাবে
    • যথাযথ ব্যবহারের জন্য প্রযুক্তি শীটের সাথে যোগসূত্র থাকা কোনো রেসিপি কার্ডের উদাহরণ কি তারা দিতে পারবে?
    • এমআরএসএল ডকুমেন্ট সম্পর্কে জ্ঞান, কীভাবে সেটি কাজ করে এবং তালিকাভুক্ত পণ্য ব্যবহার করার পরিণতি সম্পর্কে তাদের বোঝাপড়া

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  •  প্রশিক্ষণের উপকরণ এবং লগ পর্যালোচনা করুন
  • চাকরির বিবরণের পর্যালোচনা।
  • সমস্ত মনোনীত ব্যক্তি(দের) জিজ্ঞাসাবাদ করুন।
  • পারচেজিং, প্রোডাকশন লাইন এবং কারিগরি বিভাগের ম্যানেজারদের প্রশিক্ষণ দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করুন।

আপনার কারখানাতে কি ব্যর্থতা সমাধান করার কোনো প্রক্রিয়া রয়েছে যা কোনও আরএসএল পরীক্ষার ব্যর্থতার ক্ষেত্রে অনুসরণ করা হয়?

(টীকাঃ সমস্ত কিছু আপলোড করার দরকার নেই, কিন্তু যাচাই চলাকালীন পুনর্বিবেচনার জন্য হাতের কাছে থাকা দরকার) চর্চার ব্যবহারিক প্রমাণ দেয়ার জন্য নিম্নলিখিত কয়েকটি প্রস্তাবিত আপলোডের অন্তর্ভুক্ত হতে পারেঃ ক) সমস্ত রাসায়নিকের জন্য কারিগরি উপাত্ত/ বিবরণের শীট (টিডিএস); যেখানে রাসায়নিক ব্যবহার হয় সেখানকার প্রক্রিয়াসমূহের রেসিপি; গ) ক্রয় করা উপাদানসমূহের তালিকা, সাথে সমস্ত রাসায়নিকের জন্য আরএসএল-কে দেয়া লেটার অব কমপ্লায়েন্স এবং রাসায়নিক সরবরাহকারীদের কাছ থেকে ব্যবহারের নিরাপদ সীমার বিষয়ে নির্দেশিকা; ঘ) পদ্ধতিগতভাবে চিহ্নিত করা, নজরদারি করা এবং রেস্ট্রিকটেড সাবস্ট্যান্স লিস্ট, আরএসএল-এর সাথে সমস্ত পণ্যের সামঞ্জস্যপূর্ণ থাকার বিষয়টি যাচাই করা

কারখানাগুলোকে অবশ্যই শিল্পক্ষেত্রের যেকোনো একটি মানদণ্ড যেমন এএফআইআরএম, এএএফএ, অথবা গুরুত্বপূর্ণ গ্রাহকদের আরএসএল(গুলো)-কে তাদের ব্যবসায়িক অনুশীলনে আরোপ করতে হবে। দয়া করে হ্যাঁ বলবেন যদি আপনি আপনার আরএসএল পর্যালোচনা প্রক্রিয়া এবং প্রযুক্তিগত উপাত্তের কাগজপত্র, আরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণতার তালিকা, এবং আরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণতা বিষয়ক চিঠিপত্র, এবং/অথবা পণ্যের পরীক্ষার ফলাফল প্রদানের মাধ্যমে আপনার আরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণতা রক্ষার বিষয়টি যাচাই করার জন্য প্রমাণ দিতে পারেন।

উত্তরে আংশিক হ্যাঁ বলবেন যদি আপনি আরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিরক্ষার বিষয়টি প্রমাণ করতে পারেন কিন্তু এখনও আরএসএল-এর বিষয়টিতে নজরদারি করার জন্য পদ্ধতিগতভাবে আপনার কোনো অভ্যন্তরীণ পুনর্বিবেচনা প্রক্রিয়া না থাকে

প্রয়োগগত মূল কর্মকুশলতার সূচক (অপারেশনাল কী পারফরম্যান্স ইন্ডিকেটর): রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা নীতিমালা, সঙ্গতিরক্ষার প্রক্রিয়া, এবং একনিষ্ঠতা

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

কারখানাগুলোকে অবশ্যই শিল্পক্ষেত্রের যেকোনো একটি মানদণ্ড যেমন এএফআইআরএম, এএএফএ, অথবা গুরুত্বপূর্ণ গ্রাহক আরএসএল(গুলো)-কে তাদের ব্যবসায়িক অনুশীলনগুলোর মধ্যে আরোপ করতে হবে। যখন রাসায়নিকগুলোকে কোনো প্রক্রিয়াতে ব্যবহার করা হয় সেগুলোকে প্রযুক্তিগত ডেটা শীটের (টিডিএস) আবশ্যকতা(গুলো)র সাথে সামঞ্জস্য বজায় রাখতে হবে যেটি আকাঙ্খিত আরএসএল অর্জন করার জন্য জরুরি। আরএসএল-এর এই প্রক্রিয়াটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে নথিবদ্ধ করতে হবে কোনো একটি লিখিত রূপে এবং বার্ষিক ভিত্তিতে হালনাগাদ করতে হবে।

প্রস্তুত হতে থাকা পণ্যটি যাতে গ্রাহকের স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তাকে সুরক্ষিত রাখে এবং সংশ্লিষ্ট রাসায়নিক সংক্রান্ত প্রবিধানের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকে সেটিকে নিশ্চিত করার জন্য আরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ থাকাটি গুরুত্বপূর্ণ সেই সমস্ত আইনগত ক্ষেত্রবিশেষে যেখানে পণ্যগুলোকে তৈরি করা হয় বা বিক্রি করা হয়। এমআরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ রাসায়নিকগুলোকে অবশ্যই কারিগরি বৈশিষ্ট্যের সাথে সঙ্গতিপূর্ণভাবে ব্যবহার করতে হবে যাতে আরএসএল উপাদানের  সাথে সামঞ্জস্য রক্ষার ফলাফলকে পূরণ করা যায়।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

আরএসএল এবং এমআরএসএল-এর জন্য ঝুঁকির মূল্যায়ণ সম্পর্কে একটি সম্পূর্ণ ডকুমেন্ট কারখানাতে উপস্থিত থাকা উচিত এবং রাসায়নিক ভান্ডার এবং এসডিএস/এমএসডিএস সম্পর্কিত তথ্যাবলী সহ রাসায়নিক সরবরাহকারীদের দেয়া ডকুমেন্ট যেমন টেকনিক্যাল ডেটা শীট, বিশ্লেষণের প্রত্যায়নপত্র, সামঞ্জস্য রক্ষা সংক্রান্ত প্রত্যায়নপত্র, পরীক্ষার ফলাফল ইত্যাদির ভিত্তিতে তা প্রস্তুত করা যেতে পারে। ঝুঁকির মূল্যায়ণ সংক্রান্ত ডকুমেন্টটিতে রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনের গঠনগত উপাদানে উপস্থিত উপকরণগুলো এবং তার ঘনত্বের স্তর, রাসায়নিকের প্রক্রিয়াকরণের পথ অথবা তার উৎসের কারণে উপস্থিত কোনো অবাঞ্ছিত উপাদানকে চিহ্নিত করা উচিত, এবং উৎপাদনের প্রক্রিয়াকরণের পথ অথবা বর্জ্যপানি পরিশোধন ইত্যাদি চলাকালীন সম্ভাব্য ঝুঁকিও মূল্যায়ণ করা উচিত।

আরএসএল এবং/ এমআরএসএল-এর জন্য রেফারেন্স তালিকার অন্তর্ভুক্ত হলোঃ

  • আরইএসিএইচ এসভিএইচসি স্তর ১
  • আরওএইচএস
  • প্রপ ৬৫
  • জেডডিএইচসি অগ্রাধিকার ১১
  • এএফআইআরএম
  • এএএফএ
  • ব্লুসাইন® ব্যবস্থার পদার্থের তালিকা
  • ওইকেও টিইএক্স ১০০
  • জেডডিএইচসি এমআরএসএল (সবচেয়ে হালনাগাদ করা সংস্করণ)

অন্যান্য রেফারেন্সঃ 

  • জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ ১;০ (মে ২০২০) – অধ্যায় ৩, ৫ এবং ৮ 
  • রাসায়নিক সরবরাহকারীর কাছ থেকে পণ্য সংক্রান্ত প্রযুক্তিগত নির্দেশনার ডকুমেন্ট

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

যেসব কারখানা ব্যবহার করে উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক:

হ্যাঁ

  • কারখানাটি অথবা তার প্যারেন্ট/কর্পোরেট দলটি একটি লিখিত ডকুমেন্ট দিতে পারে যেটি একটি পর্যালোচনা প্রক্রিয়ার কথা উল্লেখ করে যেটি আরএসএল সংক্রান্ত বিষয়টিকে পর্যবেক্ষণ করে, হালনাগাদ করে এবং সঙ্গতিপূর্ণ থাকার বিষয়টি প্রদর্শন করে।
  • আরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকাটা নিশ্চিত করার জন্য প্রতিটি কারিগরি উপাত্তের শীট (টিডিএস) অনুযায়ী রাসায়নিকের ব্যবহারবিধি প্রক্রিয়ার রেসিপিগুলোর বিবেচনা করা উচিত যেমন, প্রক্রিয়ার রেসিপিতে রাসায়নিকগুলোর রাসায়নিক নির্মাতার সুপারিশ করে দেয়া ঘনত্ব অতিক্রম করা উচিত নয়।
  • রাসায়নিক বিবরণী-তালিকার সমস্ত রাসায়নিক আরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্য রক্ষা করছে কিনা তা অন্তত বার্ষিক ভিত্তিতে পরীক্ষা করা হয়।
  • কারখানাটি অথবা তার প্যারেন্ট/কর্পোরেট দলটি আরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকার বিষয়টি সংক্রান্ত চিঠিগুলো সমস্ত প্রাসঙ্গিক রাসায়নিকের জন্য পরীক্ষা/বিশ্লেষণের ফলাফল সহ প্রদান করতে পারে।
  • আরএসএল আনুষ্ঠানিকভাবে আপস্ট্রিম সরবরাহকারীকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে, যেমন, রাসায়নিক সরবরাহকারী, কাঁচা মাল সরবরাহকারী, প্রক্রিয়ার উপঠিকাদার    (যেমন ওয়াশিং, ফিনিশিং, প্রিন্টিং)
  • আরএসএল-এর সাথে পণ্যগুলোর সামঞ্জস্যপূর্ণ থাকার বিষয়টি যাচাই করার পদ্ধতি বা প্রক্রিয়াগুলো যেমন গ্রাহকের প্রয়োজনীয়তা অনুসারে পরীক্ষা করানো, অথবা কারখানার নিজস্ব ঝুঁকি-মূল্যায়ণ অনুসারে পণ্যগুলোকে পরীক্ষা করানো (পদ্ধতি এবং প্রক্রিয়াতে অভিনিবেশ করতে হবে)
  • কারখানাটি অথবা তার প্যারেন্ট/কর্পোরেট দলটির নিশ্চিত করা উচিত যে সমস্ত কাঁচা মাল (তাকলি, কাপড় প্রভৃতি,) এমআরএসএল / আরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ।

আংশিক হ্যাঁ 

  • আরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকাটা নিশ্চিত করার জন্য প্রতিটি কারিগরি উপাত্তের শীট (টিডিএস) অনুযায়ী রাসায়নিকের ব্যবহারবিধি প্রক্রিয়ার রেসিপিগুলোর বিবেচনা করা উচিত যেমন, প্রক্রিয়ার রেসিপিতে রাসায়নিকগুলোর রাসায়নিক নির্মাতার সুপারিশ করে দেয়া ঘনত্ব অতিক্রম করা উচিত নয়।
  • কারখানাটি অথবা তার প্যারেন্ট/কর্পোরেট দলটি আরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকার বিষয় সংক্রান্ত চিঠিগুলো সমস্ত প্রাসঙ্গিক রাসায়নিকের জন্য পরীক্ষা/বিশ্লেষণের ফলাফল সহ প্রদান করতে পারে।
  • কারখানাটি অথবা তার প্যারেন্ট/কর্পোরেট দলটির রাসায়নিক ক্রয় এবং পরিচালনা বিভাগে গ্রাহকের আরএসএল ব্যবহার সংক্রান্ত প্রক্রিয়া আছে, তবে এর কোনো লিখিত ডকুমেন্ট নেই যেটি পর্যবেক্ষণ, হালনাগাদ করা এবং আরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ থাকা প্রদর্শন করার জন্য একটি সম্পূর্ণ পর্যালোচনা প্রক্রিয়াকে উল্লেখ করে।

আবশ্যক ডকুমেন্টেশন: 

  • সমস্ত রাসায়নিকের প্রযুক্তি সংক্রান্ত উপাত্ত/বৈশিষ্ট্য সংক্রান্ত শীট (টেকনিক্যাল  ডেটা/স্পেসিফিকেশন শীট)।
  • যেসব প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক ব্যবহার করা হয় সেগুলোর রেসিপি।
  • সমস্ত রাসায়নিকের জন্য সামঞ্জস্যপূর্ণ থাকার চিঠি সহ ক্রয় করা উপকরণসমূহের তালিকা।
  • রাসায়নিকের তালিকা – যাচাই করুন যে সমস্ত রাসায়নিকগুলোকে আরএসএল-এর আওতাধীন এবং তার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ থাকার জন্য যাচাই করা হয় অন্তত বার্ষিক ভিত্তিতে, এর আগে কবে খুঁটিয়ে দেখা হয়েছে তার তারিখটি দেখুন।

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ 

  • যাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে তারা আরএসএল সম্পর্কে প্রাথমিক জ্ঞান প্রদর্শন করেন এবং রেসিপি কার্ডের সাথে সম্পর্কিত একটি টেকনিক্যাল ডেটা শীটের (টিডিএস) প্রেক্ষিতে ব্যবহারবিধি সুনিশ্চিত করার জন্য সামঞ্জস্যতার পরীক্ষা কীভাবে করা যায়, সেটি জানেন।
  • ভিন্ন খরিদ্দার বা গ্রাহকদের আরএসএল এবং তার হালনাগাদ সম্পর্কে কীভাবে কারখানাটি ট্র্যাক রাখতে পারছে, এবং কীভাবে আরএসএল সম্পর্কে জানানো হয় এবং অভ্যন্তরীণভাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয় সেগুলো সম্বন্ধে সংশ্লিষ্ট কর্মীদের জিজ্ঞাসা করুন (যেমন ল্যাব ম্যানেজার, প্রোডাকশন ম্যানেজার, ইএইচএস ম্যানেজার, পারচেজিং, ইত্যাদি)। ক্রিয়াকলাপ নির্বিশেষে অভ্যন্তরীণ স্টেকহোল্ডারদের বোঝাপড়ার রৈখিকতা পরীক্ষা করুন।

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • কারখানা যে আরএসএল(গুলো) নিয়ে কাজ করছে, সেগুলো এবং সেগুলোর হালনাগাদ সম্পর্কে কারখানাটি কীভাবে ট্র্যাক রাখছে, এবং কীভাবে আরএসএল সম্পর্কে জানানো হয় এবং তাকে ইন্টার্নালাইজ করা হয় পরীক্ষা করে দেখুন।
  • যথাযথ এলাকাতে সমস্ত প্রাসঙ্গিক রাসায়নিকের জন্য টেকনিক্যাল ডেটা শীটের (টিডিএস) সহজপ্রাপ্যতা যেমন ল্যাব, রাসায়নিক মেশানো।
  • আরএসএল বিষয়ে আপস্ট্রিম সাপ্লায়ারদের সাথে আনুষ্ঠানিক কথোপকথনের ট্রেইল যেমন রাসায়নিক সরবরাহকারী, কাঁচা মাল সরবরাহকারী, প্রক্রিয়ার   উপঠিকাদারদের সাথে (যেমন ওয়াশিং, ফিনিশিং, প্রিন্টিং)
  • কারখানাটি সমস্ত প্রাসঙ্গিক রাসায়নিকের পরীক্ষা/বিশ্লেষণের ফলাফল সহ   আরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ থাকার চিঠি
  • রেসিপি কার্ড এবং / অথবা উপকরণে রাসায়নিকগুলোর গঠনগত উপাদান নির্ধারণের জন্য কার্য প্রক্রিয়ার দৃশ্যগত পর্যবেক্ষণ, আরএসএল-এর প্রেক্ষিতে  সামঞ্জস্যপূর্ণতাকে সুনিশিচত করার জন্য প্রক্রিয়াটির টিডিএস-এর রেফারেন্সকে আরোপিত করা উচিত। উদ্দেশ্যকৃত ব্যবহার / প্রক্রিয়াসমূহ এবং যেকোনো নির্দিষ্ট কম্বিনেশনকে এড়িয়ে যাওয়ার জন্য রাসায়নিকগুলোর ক্ষেত্রে যেমন রঞ্জক পদার্থ এবং পিগমেন্ট   রেসিপিগুলোর রাসায়নিক নির্মাতার সুপারিশ করা ঘনত্ব অতিক্রম করা উচিত নয়।
  • রাসায়নিক ভাণ্ডারে থাকা সমস্ত রাসায়নিকের জন্য অন্তত একবার বার্ষিকভাবে করা আরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্য রক্ষার পরীক্ষার হালনাগাদের প্রক্রিয়া দেখুন  

আরও তথ্যের জন্য কোথায় যেতে হবেঃ 

আপনার কারখানা কি তার রাসায়নিক সরবরাহকারীর ক্ষেত্রেও একই আবশ্যকতা রেখেছে?

আপনার কারখানা কি তার ওয়াশিং এবং প্রিন্টিং উপঠিকাদারদের ক্ষেত্রেও  একই বাধ্যবাধকতা রেখেছে?

দয়া করে এই প্রক্রিয়াগুলোর বিবরণ দিন

(টীকাঃ সমস্তকিছু আপলোড করার দরকার নেই, কিন্তু যাচাই চলাকালীন পুনর্বিবেচনার জন্য হাতের কাছে থাকা দরকার) প্রস্তাবিত আপলোড পরবর্তী কয়েকটি ব্যবহারিক চর্চার জন্য অন্তর্ভুক্ত করতে পারেঃ ক) রাসায়নিকের ভাণ্ডার (আগে আপলোড করে থাকলে প্রয়োজন নেই); খ) রাসায়নিক পর্যালোচনা নীতি এবং প্রক্রিয়ার ফ্লো; গ) সেইসব রাসায়নিকের তালিকা যেগুলোর ক্ষেত্রে এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকাটা দেখানোর জন্য সম্পূর্ণ কাগজপত্র নেই; ঘ) যে সব রাসায়নিকের বর্তমানে কাগজপত্র নেই সেগুলোর জন্য যথাযথ কাগজপত্র যোগাড় করার পরিকল্পনা; ঙ) কারখানার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য এমআরএসএল যেমন নিজের এমআরএসএল, ক্রেতার এমআরএসএল, অথবা জেডডিএইচসি এমআরএসএল; চ) রাসায়নিক সরবরাহকারীদের থেকে পাওয়া ইতিবাচক তালিকা (আগে আপলোড করে থাকলে প্রয়োজন নেই); ছ) এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতি রক্ষার বিষয়ে কারখানা এবং তার রাসায়নিক সরবরাহকারী এবং উপঠিকাদারদের (যদি থাকে) মধ্যে ইমেইল সংযোগ অথবা সংযোগের রেকর্ড; জ) রাসায়নিকের নাম, ইস্যু করার তারিখ, এবং পরীক্ষার ফলাফল সহ এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিরক্ষা সংক্রান্ত চিঠি; ঝ) প্রতিটি রাসায়নিকের ক্ষেত্রে জেডডিএইচসি গেটওয়ের প্রেক্ষিতে নথিভুক্ত পর্যাবৃত্ত স্ক্রিনিং প্রক্রিয়া – রাসায়নিক মড্যুল (যেখানে প্রযোজ্য, জেডডিএইচসি কর্মকুশলতার ইন্‌চেক) এবং স্ক্রিন হওয়া প্রতিটি রাসায়নিকের জন্য লেভেল অব কনফর্মেন্স। আগের স্ক্রিনিং এবং ভবিষ্যতের স্ক্রিনিংগুলোর তারিখ দেয়া রেকর্ড।

কারখানাগুলোকে তাদের ব্যবসায়িক চর্চাতে অবশ্যই এমআরএসএল আরোপ করতে হবে। আপনার কারখানায় একটি কার্যকরী এমআরএসএল কর্মসূচী প্রতিষ্ঠা করা জটিল বিষয় এবং সম্পূর্ণ বাস্তবায়ন করার ক্ষেত্রে বহু বছর লেগে যেতে পারে।

প্রয়োগগত মূল কর্মকুশলতার সূচক (অপারেশনাল কী পারফরম্যান্স ইন্ডিকেটর): রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা নীতিমালা, সঙ্গতিরক্ষার প্রক্রিয়া, এবং একনিষ্ঠতা

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্যিত আচরণ হলো যে এমআরএসএল সম্পর্কে কারখানাগুলোর বোঝাপড়া, যেটিকে রাসায়নিক ক্রয় এবং কারখানার ভেতরে  রাসায়নিক ভাণ্ডার তৈরি করা, তার ঠিকাদারদের এবং উপঠিকাদারদের   সঙ্গতিপূর্ণ করে তোলার ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে হবে। এই প্রক্রিয়াটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে ডকুমেন্টেড করতে হবে কোনো একটি লিখিত রূপে এবং বার্ষিক ভিত্তিতে হালনাগাদ করতে হবে। শিল্পক্ষেত্রের সুদৃঢ় সমর্থন সহ এমআরএসএল-এর একটি উদাহরণ হলো জেডডিএইচসি এমআরএসএল, যেটি সম্পর্কে আপনি আরো তথ্য খুঁজে পাবেন এখানেঃ https://mrsl.roadmaptozero.com/MRSL2_0 

কারখানাগুলো সাধারণত নিষিদ্ধ পদার্থের তালিকা (রেস্ট্রিকটেড সাবস্ট্যান্স লিস্ট, আরএসএল) সম্পর্কে অবহিত থাকে; তবে, শিল্পক্ষেত্রগুলো সাম্প্রতিক সময়ে  নির্মাণক্ষেত্রে নিষিদ্ধ পদার্থের তালিকা (ম্যানুফ্যাকচারিং রেস্ট্রিকটেড সাবস্ট্যান্স  লিস্ট, এমআরএসএল) বিষয়ে মনোযোগ দেয়ার বিষয়টিতে বিবর্তন করেছে যাতে নিষিদ্ধ পদার্থের তালিকা সহ পরিবেশ-বান্ধব রাসায়নিকের ব্যবহার করা সম্ভব হয়। এমআরএসএল প্রয়োজনীয় কারণ একটি কারখানা যেটি প্রযুক্তিগত বৈশিষ্ট্যের  নির্দেশনার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ রাসায়নিক ব্যবহার করে, সেই কারখানার বিভিন্ন নিষ্ক্রমণের ক্ষেত্রে পরিবেশগত ফলাফল উন্নততর এবং আরএসএল পদার্থের সাথে সঙ্গতিরক্ষাও বেশি সামঞ্জস্যপূর্ণ।  সম্পূর্ণ কারখানাটির সরবরাহের ভ্যালু চেইনের জন্যই উদ্দেশ্যটি গুরুত্বপূর্ণ    (ঠিকাদার, উপঠিকাদার, আপস্ট্রিম সাপ্লায়ার, ইত্যাদি)। 

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

জেডডিএইচসি এমআরএসএল (সাম্প্রতিক সংস্করণ) হলো রাসায়নিক সরবরাহ শিল্প এবং প্রধান রিটেল ব্র্যান্ডগুলোর জন্য বিশ্বজোড়া পোশাক, জুতো, এবং বয়নশিল্পের  স্বীকৃত রাসায়নিক এমআরএসএল মানদণ্ড। সাপ্লাই ভ্যালু চেইনের উপর এবং নিচের দিকে এমআরএসএল সম্পর্কে অবশ্যই অবহিত করতে হবে।

সমস্ত পণ্য যেগুলোকে এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ বলে বিবেচনা করা হয়, সেগুলোর ক্ষেত্রে কারখানাতে এমআরএসএল-এর উপস্থিতির যাচাই প্রক্রিয়ার জন্য অবশ্যই যথাযথ প্রক্রিয়া থাকতে হবে।

উপঠিকাদারদের নিযুক্ত করার প্রক্রিয়ায় অন্তর্ভুক্ত থাকা উচিত উপঠিকাদার বাছাই, মূল্যায়ণ এবং ব্যবস্থাপনা যার মধ্যে অবশ্যই অন্তর্ভুক্ত থাকতে হবে সেই একই প্রক্রিয়া যেটিকে কারখানাটি সমস্ত এমআরএসএল সম্পর্কিত মানদণ্ড এবং রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার অভ্যাসের সাথে সঙ্গতি রাখার জন্য অনুসরণ করে। এই কারণে, উপঠিকাদারদের সাথে সংযোগ, রাসায়নিকের ব্যবস্থাপনা চর্চার ক্ষেত্রে কর্মকুশলতার মূল্যায়ণ কারখানার দায়িত্ব।

https://uploads-ssl.webflow.com/5c4065f2d6b53e08a1b03de7/5ec4fce8cc2b044b520491d5_ZDHC%20CMS%20Framework_MAY2020.pdf

শব্দকোষঃ

জেডডিএইচসি এমআরএসএলঃ জেডডিএইচসি এমআরএসএল হলো রাসায়নিক পদার্থের একটি তালিকা যেটির ব্যবহারবিধি নিষিদ্ধ হতে পারে (ব্যবহারবিধি নিষিদ্ধ দেখুন, পৃ ২-এ)।. কারখানার সেই সমস্ত  রাসায়নিকগুলোতে এমআরএসএল প্রয়োগ করা হয় যেগুলো উপকরণগুলোকে প্রক্রিয়াকরণ করা এবং পোশাক ও ফুটওয়্যারে ব্যবহারের জন্য অংশগুলোকে কাটছাঁট করার জন্য ব্যবহৃত হয়। জেডডিএইচসি এমআরএসএল-এর রাসায়নিকগুলোর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হলো কাঁচা মাল উৎপাদন, ওয়েট-প্রসেসিং, রক্ষণাবেক্ষণ, বর্জ্যপানি পরিশোধন, স্যানিটেশন এবং পোকামাকড় নিয়ন্ত্রণের জন্য ব্যবহৃত দ্রাবক, ক্লিনার, আঠা, রঙ, কালি, ডিটারজেন্ট, রঁজক, কালারেন্ট, অক্সিলিয়ারি, কোটিং এবং ফিনিশিং এজেন্ট। সূত্রঃ https://www.roadmaptozero.com/

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

যেসব কারখানা ব্যবহার করে উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক:

হ্যাঁ

  • কারখানাটি অথবা এর প্যারেন্ট / কর্পোরেট গ্রুপ একটি ভালোভাবে নথিবদ্ধ (লিখিত) রাসায়নিক পর্যালোচনা প্রক্রিয়া প্রদর্শন করতে পারে যেটি আইন, এবং খরিদ্দারদের জন্য এমআরএসএল-এর বাধ্যবাধকতার সাথে অথবা কারখানা, উপঠিকাদার এবং ঠিকাদারদের জন্য জেডডিএইচসি এমআরএসএলকে একটি মানদণ্ড হিসেবে ধরে নিয়ে পর্যবেক্ষণ করে, হালনাগাদ করে এবং সঙ্গতি রক্ষা করে।
  • এমআরএসএল-এর জন্য রাসায়নিক পর্যালোচনা প্রক্রিয়াটি কারখানার ভেতরে (কর্তৃপক্ষ, ক্রয়-দপ্তর, গবেষণাগার, উৎপাদক দলগুলো) এবং বহিরাগত পক্ষগুলোর (উপঠিকাদাররা, সরবরাহকারীরা, পরীক্ষাকারী এজেন্সি, ইত্যাদি) ক্ষেত্রেও সমস্ত কার্যকলাপের ক্ষেত্রেই একইরকম এবং যথাযথভাবে ব্যবস্থাপনা করা হয় এবং যথাযথভাবে দায়িত্ব দেয়া হয়।
  • রাসায়নিকগুলোকে কেনার আগে কীভাবে পর্যালোচনা করা হয় / এমআরএসএল-এর প্রেক্ষিতে খুঁটিয়ে দেখা হয় সেই প্রক্রিয়াটিও কারখানাটির প্রদর্শন করতে পারা উচিত।
  • রাসায়নিক পর্যালোচনা প্রক্রিয়া/ পদ্ধতিগুলো সুদৃঢ় হয়, যেমন, প্রতিটি রাসায়নিক পণ্যকে জেডডিএইচসি গেটওয়ের মাধ্যমে পর্যাবৃত্তীয় স্ক্রিনিং – রাসায়নিক মড্যুল (জেডডিএইচসি কর্মকুশলতার ইনচেক যেখানে সম্ভব), সার্টিফিকেশন/ এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকার দাবিটির সহায়ক পরীক্ষার উপাত্ত/ফলাফল, অথবা এমন ব্যবস্থা গ্রহণ করা এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকার বিষয়টিকে সুনিশ্চিত করে, যেমন, ব্লুসাইন, ইত্যাদি। যখন অসমঞ্জস রাসায়নিক খুঁজে পাওয়া যায়, সেই অনুসারে সেটিকে সরানোর একটি পরিকল্পনা তৈরি করা হয়। যখন স্ক্রিনিং-এর জন্য জেডডিএইচসি গেটওয়ে – রাসায়নিক মড্যুল ব্যবহার করা হয়, তখন স্ক্রিন করা প্রতিটি রাসায়নিকের ক্ষেত্রেই কারখানাটি সঙ্গতিরক্ষার স্তরটিকে অনুসরণ করে এবং পর্যবেক্ষণ করে।
  • কারখানাটি অথবা এর প্যারেন্ট / কর্পোরেট গ্রুপ সক্রিয়ভাবে তাদের প্রত্যাশা তাদের রঁজক এবং রাসায়নিক সরবরাহকারীদেরকে জানিয়ে দেয় যে কারখানাতে সরবরাহ করা ফর্ম্যুলেশনগুলোকে এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ হতে হবে।
  • কারখানাটি অথবা এর প্যারেন্ট / কর্পোরেট গ্রুপ প্রদর্শন করতে সক্ষম যে এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকার প্রত্যাশাটি সক্রিয়ভাবে আপস্ট্রিম সাপ্লাই বেস-কে জানিয়ে দেয়া হয়েছে এবং অন্তত বার্ষিক ভিত্তিতে সেটি পর্যবেক্ষণও করা হয়ে থাকে, যার অন্তর্ভুক্ত হলো উপঠিকাদারদের কাছে দেয়া প্রক্রিয়াকরণ ইউনিটগুলো, যেমন, ধোয়াধুয়ি, প্রিন্টিং (যদি প্রযোজ্য হয়)।
  • কারখানাটি অথবা এর প্যারেন্ট / কর্পোরেট গ্রুপ তার সরবরাহকারীদেরকে সক্রিয়ভাবে এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকতে বলে এবং রাসায়নিকের বর্ণনামূলক তালিকার (কেমিক্যাল ইনভেন্টরি লিস্ট, সিআইএল) প্রেক্ষিতে সেটিকে স্ক্রিন করে।

আংশিক হ্যাঁ 

  • কারখানাটি অথবা এর প্যারেন্ট / কর্পোরেট গ্রুপ আইন, প্রবিধান, অথবা কারখানাতে প্রযোজ্য খরিদ্দারদের  আবশ্যকতার প্রেক্ষিতে নিষিদ্ধ রাসায়নিক সংক্রান্ত নীতিগুলোকে পর্যবেক্ষণ করে।
  • কারখানাটি অথবা এর প্যারেন্ট / কর্পোরেট গ্রুপ প্রতিটি নির্মাণমূলক এবং টুলিং/ যন্ত্রপাতি সংক্রান্ত রাসায়নিকের জন্য  এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকা সংক্রান্ত চিঠি সহ এই দাবীর সহায়ক পরীক্ষার উপাত্ত/ফলাফল প্রদান করতে সক্ষম যেগুলোকে বার্ষিক ভিত্তিতে হালনাগাদ করা হয়, কিন্তু কোনো আনুষ্ঠানিক (ডকুমেন্টেড/লিখিত) রাসায়নিক পর্যালোচনা প্রক্রিয়া নেই।
  • কারখানাটি অথবা এর প্যারেন্ট / কর্পোরেট গ্রুপের একটি আনুষ্ঠানিক রাসায়নিক পর্যালোচনা প্রক্রিয়া রয়েছে, কিন্তু এটি সু-আরোপিত নয় এবং কারখানার সমস্ত কার্যকলাপের ক্ষেত্রে যথাযথভাবে শ্রেণীবদ্ধ করা/ব্যবস্থাপনা করা নেই।
  • কারখানাটি অথবা এর প্যারেন্ট / কর্পোরেট গ্রুপের একটি আনুষ্ঠানিক রাসায়নিক পর্যালোচনা প্রক্রিয়া রয়েছে, কিন্তু সেটি সুদৃঢ় নয়, যেমন, সঙ্গতি বিষয়ক চিঠিতে দাবির সমর্থনে পরীক্ষার কোনো ফলাফল/ উপাত্ত ব্যতীত কেবলমাত্র একটি বয়ান/ঘোষণার চিঠি রয়েছে, অথবা স্ক্রিন করার জন্য জেডডিএইচসি গেটওয়ে – রাসায়নিক মড্যুল ব্যবহার করা হয় কিন্তু সঙ্গতিরক্ষার স্তর অনুসরণ করে দেখা হয় না অথবা খুঁজে পাওয়া অননুসারী রাসায়নিকগুলোর জন্য কোনো ফেজ-আউট পরিকল্পনা নেই।
  • এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকার ব্যাপারে নিজের প্রত্যাশা কারখানাটি অথবা এর প্যারেন্ট / কর্পোরেট গ্রুপ রঁজক এবং রাসায়নিক সরবরাহকারীদেরকে জানিয়ে দেয় কিন্তু উপঠিকাদারদের প্রক্রিয়াকরণ ইউনিটকে নয় (যদি প্রযোজ্য হয়)
  • কারখানাটি অথবা এর প্যারেন্ট / কর্পোরেট গ্রুপ প্রদর্শন করতে পারে যে এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকার ব্যাপারে নিজের প্রত্যাশা আপস্ট্রিম সাপ্লাই বেসকে জানানো হয়েছে যার অন্তর্ভুক্ত হলো উপঠিকাদারী প্রক্রিয়াকরণ ইউনিট যেমন ওয়াশিং, প্রিন্টিং, কিন্তু অন্তত বার্ষিক ভিত্তিতে পর্যবেক্ষণ করা হয় না (যদি প্রযোজ্য হয়)।

নথিপত্র আবশ্যকঃ 

আবশ্যকতার ক্ষেত্রে হ্যাঁ এবং আংশিক হ্যাঁ বলার জন্য বিভাগগুলোর প্রয়োগযোগ্যতা দয়া করে দেখে নিন।

  • রাসায়নিকের বর্ণনামূলক তালিকা (কেমিক্যাল ইনভেন্টরি লিস্ট, সিআইএল)
  • রাসায়নিক পর্যালোচনা নীতি এবং প্রক্রিয়ার প্রবাহ (প্রসেস ফ্লো)
  • অসমঞ্জস রাসায়নিকের তালিকা
  • অসমঞ্জস রাসায়নিকের ফেজ-আউট পরিকল্পনা, যদি থাকে
  • কারখানাতে প্রযোজ্য এমআরএসএল(গুলো) যেমন, নিজের এমআরএসএল, খরিদ্দারের এমআরএসএল, অথবা জেডডিএইচসি এমআরএসএল
  • এমআরএসএল খুঁটিয়ে দেখার জন্য জেডডিএইচসি উপকরণসমূহ (ইনচেক রিপোর্টগুলো, কেম্‌চেক)
  • রাসায়নিক সরবরাহকারীদের কাছ থেকে ইতিবাচক তালিকা
  • এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ থাকার বিষয়ে কারখানা এবং তার রাসায়নিক সরবরাহকারী এবং উপঠিকাদারদের (যদি থাকে) মধ্যে সংযোগ অথবা সংযোগের ট্রেইল
  • এমআরএসএল-কে রাসায়নিকের নাম, ইস্যু হওয়ার তারিখ, এবং পরীক্ষার ফলাফল সহ সঙ্গতিপূর্ণ থাকা সংক্রান্ত চিঠি
  • জেডডিএইচসি গেটওয়ে – রাসায়নিক মড্যুলের (যেখানে প্রযোজ্য) প্রেক্ষিতে ডকুমেন্ট করা পর্যাবৃত্ত স্ক্রিনিং প্রক্রিয়া এবং স্ক্রিন করা প্রতিটি রাসায়নিকের জন্য সামঞ্জস্যের স্তর। আগের স্ক্রিনিং এবং ভবিষ্যতের স্ক্রিনিংগুলোর তারিখ দেয়া রেকর্ড।

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ 

  • উত্তরদাতারা এমআরএসএল এবং কীভাবে সঙ্গতিপূর্ণ থাকার বিষয়টি পরীক্ষা করতে হবে সে সম্পর্কে প্রাথমিক জ্ঞানের পরিচয় দেন অথবা যেখানে যথাযথ হবে সেখানে লেটার অব কমপ্লায়েন্স যোগাড় করেন।
  • এমআরএসএল-এ অন্তর্ভুক্ত নয় এমন পণ্য ব্যবহার করার পরিণতি সম্পর্কে কি তারা অবহিত?

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • রাসায়নিক ব্যবহারের জন্য বিভিন্ন কার্য প্রণালী অথবা সরবরাহ করা ভান্ডার-তালিকার প্রেক্ষিতে উপকরণ চোখে দেখে যাচাই করা।
  • এমআরএসএল পর্যালোচনা এবং/অথবা লেটার অব কমপ্লায়েন্স সুদৃঢ় কিনা এবং পর্যাবৃত্তভাবে (অন্তত বার্ষিক হারে) করানো হয় কিনা, এবং রাসায়নিকের ক্রয় তালিকা ও ভাণ্ডারের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ কিনা সেগুলো নির্ধারণ করার জন্য রাসায়নিক পর্যালোচনা প্রক্রিয়া খুঁটিয়ে দেখুন।

সুপারিশ করা আপলোডঃ ক) রেসিপি কার্ড, রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন শীট, এবং (যেখানে প্রযোজ্য) প্রক্রিয়ার নির্দেশনা, যাতে অন্তর্ভুক্ত থাকবে অনুসরণযোগ্য সমস্ত তথ্য (যেমন, রাসায়নিকের নাম এবং উপলব্ধ পরিমাণ); খ) রাসায়নিকের ভাণ্ডার (আগে আপলোড করে থাকলে প্রয়োজন নেই); গ) রাসায়নিক মিশ্রণ প্রক্রিয়ার লগ, ল্যাব রেকর্ড (যেমন, কালার ল্যাব, ওয়াশিং ল্যাব, ইত্যাদি।)

রাসায়নিক চিহ্নযোগ্যতা দরকারি যাতে একটি কারখানা একটি আরএসএল এবং/অথবা এমআরএসএল ব্যর্থতার ক্ষেত্রে উৎস খুঁজে বার করতে পারে এবং পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারে।

রেফারেন্সঃ জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ ১ (মে ২০২০) – অধ্যায় ১, ৫ এবং ৮

হ্যাঁ উত্তর দেবেন কেবলমাত্র যদি আপনার কারখানা উৎপাদনগত রেসিপিগুলোর সমস্ত রাসায়নিকগুলোকে রাসায়নিকের তালিকা পর্যন্ত অনুসরণ করতে পারে।

আংশিক হ্যাঁ বলুন যদি আপনার উৎপাদনগত রেসিপিগুলোর মধ্যে কেবলমাত্র কিছু রাসায়নিককে রাসায়নিকের তালিকা পর্যন্ত ট্রেস করা যায়।

অপারেশনাল কী পারফর্ম্যান্স ইন্ডিকেটরঃ পণ্যের গুণগত মান/বিশুদ্ধতা

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

অনুসরণযোগ্যতার উদ্দেশ্য হলো উৎপাদনের অন্তর্গত রাসায়নিক উপাদানগুলোকে “পিছন দিকে” (যেকোনো একটি চূড়ান্ত পণ্য বেছে নিন, সেই নির্দিষ্ট চূড়ান্ত পণ্যটি প্রস্তুত করার জন্য ব্যবহৃত রাসায়নিক উপাদানগুলোর চিহ্ন খুঁজে পাওয়া যায় কিনা দেখুন), এবং “সামনের দিকে” অনুসরণ করা যায় কিনা দেখুন (যেকোনো একটি রাসায়নিক বেছে নিন, সেই সমস্ত নির্দিষ্ট চূড়ান্ত পণ্যগুলো যেগুলোকে প্রস্তুত করার জন্য সেই রাসায়নিকটিকে ব্যবহার করা হয়েছিল সেগুলোকে চিহ্নিত করা যায় কিনা)

এটি করতে পারার সক্ষমতা, কোনো নির্দিষ্ট রাসায়নিকের ক্ষেত্রে কোনো গুণগত মান অথবা সঙ্গতিরক্ষার সমস্যা তৈরি হলে মূল কারণ অনুসন্ধানে সাহায্য করবে।

যদি কোনো পণ্যকে রিকল্‌ করার দরকার পড়ে, সেটিতে অন্তর্ভুক্ত নির্দিষ্ট রাসায়নিকটিকেও ফিরিয়ে নেয়া সম্ভব হতে পারে।

স্তর ১-এ, কারখানাটির প্রতিটি নির্মাণমূলক প্রক্রিয়াতে ব্যবহৃত রাসায়নিকগুলোর ক্ষেত্রে রাসায়নিকের ভাণ্ডার পর্যন্ত অনুসরণযোগ্যতা থাকা উচিত। অন্য ভাবে বললে, কারখানাটির ট্র্যাক করা উচিতঃ (১) অন-সাইট উপলব্ধ রাসায়নিকগুলো (ভান্ডারজাত); (২) পণ্যের রেসিপি শীটগুলো, যেখানে রাসায়নিক অন্তর্ভুক্ত থাকে এমন উৎপাদনের প্রতিটি ধাপে ব্যবহৃত প্রতিটি রাসায়নিক তালিকাভুক্ত। এতে প্রদর্শিত হবে যে আপনি জানেন যে আপনার কারখানায় কীভাবে এবং কোথায় (কোন প্রক্রিয়াগুলোতে) রাসায়নিকগুলোকে ব্যবহার করা হচ্ছে, এবং কারখানা-জুড়ে সেই রাসায়নিকগুলোকে যথাযথভাবে ডকুমেন্ট করা এবং পর্যবেক্ষণ করা হয়ে থাকে।

কোন রাসায়নিক ব্যবহার করতে হবে এবং কখন তা ব্যবহার করতে হবে সেটাকে ট্র্যাক করার জন্য রাসায়নিকের চিহ্নযোগ্যতা খুবই দরকারি, যাতে কোনো কারখানা আরএসএল (পণ্যের জন্য) এবং/অথবা এমআরএসএল-এর উৎসের (প্রক্রিয়ায় ব্যবহৃত রাসায়নিকের জন্য) ব্যর্থতার হিসেব করতে পারে এবং পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারে। ব্যবহৃত রাসায়নিকগুলোকে ট্র্যাক করা এবং কারখানার ভেতরে সমস্ত প্রক্রিয়াগুলোতে রাসায়নিকগুলোকে ট্রেস করার ক্ষেত্রে আপনার কারখানার সক্ষমতা কেবলমাত্র বর্তমানে উৎপাদনের জন্য ব্যবহৃত ডকুমেন্টেশনের সাথে ভালোভাবে সমন্বয়ের মাধ্যমেই শুরু হয়ে যেতে পারে, এবং সময়ের সাথে সাথে ক্রমশ উন্নততর, ট্র্যাকিং-এ পরিবর্তিত হতে পারে।

এই প্রশ্নের কেন্দ্রবিন্দু হলো নির্মাণ প্রক্রিয়া, উৎপাদনের রেসিপি, রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন, এবং একটি পণ্য প্রস্তুত করার জন্য প্রয়োজনীয় আয়তন (পরিমাণ)-এর রেকর্ড করা ডকুমেন্ট। এই রেকর্ডগুলোতে কারখানার ভাণ্ডারতালিকাতে থাকা তথ্যাবলী (যেমন, রাসায়নিক/ ফর্ম্যুলেশনের বাণিজ্যিক নাম, লট নম্বর, এমআরএসএল এবং   আরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্য) এবং একটি পণ্য চূড়ান্ত হওয়ার জন্য প্রক্রিয়াকরণের প্রতিটি ধাপে প্রকৃতপক্ষে ব্যবহৃত হওয়া প্রতিটি রাসায়নিকের মধ্যে যোগসূত্র প্রদর্শিত হওয়া প্রয়োজন।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

একটি রেসিপি হলোঃ পণ্য বা উপাদান এবং তার পরিমাণ/ গঠনের জন্য ব্যবহৃত রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনের রেকর্ড (যেমন, একটি নীল টি-শার্ট তৈরিতে ব্যবহৃত সমস্ত ফর্ম্যুলেশন)

একটি ফর্ম্যুলেশন হলোঃ কোনো রাসায়নিক সরবরাহকারীর কাছ থেকে ক্রয় করা একটি রাসায়নিক পণ্য (যেমন, একটি নীল টি-শার্টের জন্য একটি কালারেন্ট)।

একটি পদার্থ (সাবস্ট্যান্স) হলোঃ ফর্ম্যুলেশনকে তৈরি করে যে স্বতন্ত্র রাসায়নিকগুলো (যেমন, কোনো কালারেন্টের মধ্যেকার একটি রঞ্জক এবং ৩টি বাইন্ডিং এজেন্ট)।

রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন অথবা “রাসায়নিক”: স্বতন্ত্র রাসায়নিক পণ্য বা উৎপাদনের রেসিপিতে তালিকাভুক্ত “উপকরণগুলো” যেগুলোকে কারখানার নির্মাণপ্রক্রিয়াতেও একটি চূড়ান্ত পণ্য/উপকরণের জন্য ব্যবহার করা হয়। এই রাসায়নিকগুলোকে কারখানার রাসায়নিকের ইনভেন্টরিতেও অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। এগুলো রাসায়নিক সরবরাহকারীর থেকে পাওয়া জটিল ফর্ম্যুলেশন, রঞ্জকপদার্থ (ডাইস্টাফ), অক্সিলিয়ারি, ফিনিশিং কেমিক্যাল, ইত্যাদি হতে পারে যেগুলোকে এক বা একাধিক রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে প্রস্তুত করা হয়েছে। এটিকে ব্যাখ্যা করা প্রয়োজন যেহেতু বয়ন মিলগুলো “রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন” যোগাড় করে যার মধ্যে স্বতন্ত্র পদার্থের বিবরণ নাও থাকতে পারে।

উৎপাদনের রেসিপি বা “রেসিপি”: সেই রেসিপি শীট যেটি রাসায়নিকগুলোকে  এবং কোনো পণ্য/উপাদান প্রস্তুত করতে ব্যবহৃত প্রক্রিয়ার শর্তাবলীকে নথিবদ্ধ করে। সমস্ত প্রক্রিয়ার এবং নির্মিত পণ্য/উপাদানের জন্য প্রকৃতপক্ষে ব্যবহার হওয়া সমস্ত রাসায়নিক এবং প্রক্রিয়ার শর্তাবলীর একটি রেকর্ড রাখা উচিত। “রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন চাহিদা” এবং উপাদান/পণ্যের বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী প্রক্রিয়াকরণের ধাপ/প্যারামিটারের বিবরণগুলোকে অনুসরণ করা উচিত। নথিবদ্ধ করা উৎপাদন রেসিপি এক ব্যাচ থেকে আরেক ব্যাচে স্থিতিশীল পুনরুৎপাদনশীলতার জন্য প্রয়োজন।

রাসায়নিকের ইনভেন্টরিঃ রাসায়নিক “ফর্ম্যুলেশন”-এর একটি তালিকা হাতের কাছে রেসিপিগুলোর চাহিদার সাথে “মিলিয়ে” রক্ষণাবেক্ষণ করতে হবে।  রেসিপিতে যেকোনোরকম পরিবর্তন অবশ্যই নোট করতে হবে এবং ইনভেন্টরির প্রয়োজনীয়তা অনুসারে হালনাগাদ করতে হবে। অনুরূপভাবে, ইনভেন্টরিতে যেকোনো রকম বিকল্পকে অবশ্যই রেসিপির প্রয়োজনীয়তা অনুসারেই অনুমোদন দিতে হবে। রেসিপিতে এবং/অথবা ইনভেন্টরিতে যেকোনো পরিবর্তন নোট করে রাখা উচিত এবং উৎপাদন ও কিউএ দলগুলোকে জানানো উচিত যাতে চূড়ান্ত বাণিজ্যিক পণ্যের বৈশিষ্ট্যগুলোকে তবুও পূরণ করার বিষয়টি সুনিশ্চিত করা যায়।

প্রক্রিয়ার নির্দেশনাসমূহ – কারখানার প্রতিটি প্রক্রিয়ার অবশ্যই ডকুমেন্টেশন থাকতে হবে যেটি পণ্য/উপাদানকে সফলভাবে তৈরির জন্য কার্যসম্পাদনের শর্তাবলী এবং আবশ্যক নিয়ন্ত্রণগুলোর বিবরণ দেয় – কারখানাতে নির্মিত সমস্ত পণ্য/উপাদানের প্রকৃত প্রক্রিয়ার শর্তাবলীগুলোর একটি রেকর্ড রাখা উচিত

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

যেসব কারখানা ব্যবহার করে উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক:

হ্যাঁ

  • রাসায়নিকের ব্যবহার করে এমন যে সমস্ত প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে পণ্যটি গেছে সেগুলোকে চিহ্নিত করা হয়েছে  এবং প্রতিটি প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট রেসিপি এবং ব্যাচ কার্ডগুলো পাওয়া যাবে এবং রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়েছে।
  • যেখানেই রাসায়নিক ব্যবহার করা হয় সেখানে তাদের যথাযথ ব্যবহারের জন্য লিখিত নির্দেশনা থাকে যার অন্তর্ভুক্ত হলো রেসিপি কার্ড, প্রক্রিয়ার নির্দেশনা (যেখানে প্রযোজ্য), ফর্ম্যুলেশন শীট, যাতে সমস্ত অনুসরণযোগ্য তথ্যাদি থাকবে যেমন রাসায়নিকের নাম, লট নম্বর, এবং পরিমাণ, যেগুলোর যোগসূত্র কারখানা জুড়ে রাসায়নিকের ভাণ্ডারের (ইনভেন্টরি) সাথে স্থাপন করা যাবে।
  • প্রধান উৎপাদনগত প্রক্রিয়াগুলো এবং প্রতিটি ব্যবহৃত রাসায়নিক এবং তাদের সংশ্লিষ্ট পরিমাণগুলোর কথা বলা হয়েছে, এবং প্রক্রিয়ার নির্দেশনা সক্রিয় রয়েছে যার অন্তর্ভুক্ত হলো নিয়ন্ত্রণের প্যারামিটার এবং চেকপয়েন্টগুলো।
  • যেখানে রাসায়নিকগুলোর অভ্যন্তরীণ মিশ্রণ/ মেলানোর কাজ হয়ে থাকে সেখানে প্রক্রিয়াটি নথিবদ্ধ করা হয়েছে।
  • নির্মাণের প্রতিটি ধাপে প্রতিটি উৎপাদনের রেসিপিতে তালিকাভুক্ত রাসায়নিকগুলো সামঞ্জস্যপূর্ণভাবে প্রাসঙ্গিক রেকর্ড অবধি অনুসরণ করা যায়, যার অন্তর্ভুক্ত হলো রাসায়নিক মেশানোর প্রক্রিয়ার লগ্‌, ল্যাব রেকর্ড (যেমন, রঙের ল্যাব, ওয়াশিং ল্যাব) যেখানে প্রযোজ্য, এবং রাসায়নিকের তথ্যাদিও রাসায়নিকের ইনভেন্টরিতে রেকর্ড করা হয় যেমন রাসায়নিক / ফর্ম্যুলেশনের নাম, লট নম্বর, এমআরএসএল এবং আরএসএল-এর সাথে সুসমঞ্জস থাকা ইত্যাদি (দয়া করে জেডডিএইচসি সিআইএল এবং জেডডিএইচসি সিএমএস ফ্রেমওয়র্ক সংস্করণ 1.0 – অধ্যায় 5 দেখুন রাসায়নিক ইনভেন্টরির সাথে সম্পর্কিত প্রত্যাশার জন্য)।

আংশিক হ্যাঁ 

  • রাসায়নিকের ব্যবহার করে এমন যে সমস্ত প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে পণ্যটি গেছে সেগুলোকে চিহ্নিত করা হয়েছে  এবং প্রতিটি প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট রেসিপি এবং ব্যাচ কার্ডগুলো পাওয়া যাবে এবং রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়েছে।
  • দৃশ্যপট ১ঃ যেখানেই রাসায়নিক ব্যবহার করা হয় সেখানে তাদের যথাযথ ব্যবহারের জন্য লিখিত নির্দেশনা থাকে যার অন্তর্ভুক্ত হলো রেসিপি কার্ড, প্রক্রিয়ার নির্দেশনা (যেখানে প্রযোজ্য), ফর্ম্যুলেশন শীট, যাতে সমস্ত অনুসরণযোগ্য তথ্যাদি থাকবে যেমন রাসায়নিকের নাম, লট নম্বর, এবং পরিমাণ, যেগুলোর যোগসূত্র কারখানা জুড়ে রাসায়নিকের ভাণ্ডারের (ইনভেন্টরি) সাথে স্থাপন করা যাবে। রাসায়নিক ইনভেন্টরিতে থাকা তথ্য অসম্পূর্ণ অথবা রাসায়নিক ইনভেন্টরিটি হালনাগাদ করা নেই (দয়া করে জেডডিএইচসি সিআইএল এবং জেডডিএইচসি সিএমএস ফ্রেমওয়র্ক সংস্করণ 1.0 – অধ্যায় 5 দেখুন রাসায়নিক ইনভেন্টরির সাথে সম্পর্কিত প্রত্যাশার জন্য)।
  • দৃশ্যপট 2: কেবলমাত্র কিছুটা অংশ (সম্পূর্ণটা নয়) নির্মাণ প্রক্রিয়া/ধাপের, যেখানে রাসায়নিক ব্যবহার করা হয় সেখানে তাদের যথাযথ ব্যবহারের জন্য লিখিত নির্দেশনা থাকে যার অন্তর্ভুক্ত হলো রেসিপি কার্ড, প্রক্রিয়াটিকে মানিয়ে নেয়ার জন্য নির্দেশনা (যেখানে প্রযোজ্য), ফর্ম্যুলেশন শীট, যাতে সমস্ত অনুসরণযোগ্য তথ্যাদি থাকবে যেমন রাসায়নিকের নাম, লট নম্বর, এবং পরিমাণ, যেগুলোর যোগসূত্র কারখানা জুড়ে রাসায়নিকের ভাণ্ডারের (ইনভেন্টরি) সাথে স্থাপন করা যাবে।

আবশ্যক ডকুমেন্টেশন:

  • রেসিপি কার্ড, রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন শীট, প্রক্রিয়ার নির্দেশনা (যেখানে প্রযোজ্য), যাতে খুঁজে পাওয়ার মতো সমস্ত তথ্য থাকবে, যেমন, রাসায়নিকের নাম, প্রাপ্য পরিমাণ, এবং লট নম্বর
  • রাসায়নিকের ইনভেন্টরি (দয়া করে জেডডিএইচসি সিআইএল এবং জেডডিএইচসি সিএমএস ফ্রেমওয়র্ক সংস্করণ 1.0 – অধ্যায় 5 দেখুন রাসায়নিক ইনভেন্টরির সাথে সম্পর্কিত প্রত্যাশার জন্য)।
  • রাসায়নিক মিশ্রণের প্রক্রিয়ার লগ্‌, ল্যাব রেকর্ড (যেমন, কালার ল্যাব, ওয়াশিং ল্যাব, ইত্যাদি।)

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • ম্যানেজার/কর্মীরা এমআরএসএল-এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ একটি ভাণ্ডারতালিকার সাথে সম্পর্কিত একটি চিহ্নিতকরণযোগ্য এবং অনুসরণযোগ্য ব্যবস্থার ডকুমেন্ট প্রদর্শন করতে পারেন
  • কর্মচারীরা বিষয়বস্তু সম্পর্কে বোঝেন এবং একটি প্রক্রিয়া রেসিপির গুরুত্বপূর্ণ বিষয়বস্তু, বিশেষ করে ওয়াশিং, প্রিন্টিং, অথবা যেখানে প্রযোজ্য ফিনিশিঙের বিষয়বস্তু সম্পর্কে জানেন।

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • অন-সাইট নির্মাণ প্রক্রিয়াতে থাকা ১-২টি পণ্যকে র‍্যাণ্ডম চেক করুন, এবং সেই পণ্যটি এমন কোন কোন প্রক্রিয়াকরণের মধ্যে দিয়ে যায় যার মধ্যে রাসায়নিকের ব্যবহার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে তা পরীক্ষা করুন যেমন, রঞ্জক প্রণালী, প্রিন্টিং, ওয়াশিং, ফিনিশিং, ইত্যাদি। চিহ্নিত করা প্রতিটি প্রক্রিয়ার সংশ্লিষ্ট রেসিপি এবং ব্যাচ কার্ড খুঁটিয়ে দেখুন।
  • চিহ্নিত করা প্রতিটি প্রক্রিয়ার থেকে রেসিপি/ব্যাচ কার্ডের ৩/৪টি রাসায়নিক র‍্যান্ডম বেছে নিন রাসায়নিক মিশ্রণ এলাকা (“রান্নাঘর”), রাসায়নিক ল্যাব (যেখানে প্রযোজ্য), এবং রাসায়নিক সংরক্ষণ এলাকা (অস্থায়ী/গুদাম) পর্যন্ত অনুসরণ করার জন্য, এবং সেখান থেকে রাসায়নিক ইনভেন্টরি অবধি।
  • প্রক্রিয়াতে ব্যবহৃত রাসায়নিক এবং রাসায়নিক ইনভেন্টরির মধ্যেকার যোগসূত্র প্রতিষ্ঠা করা যায় কিনা এবং সেটি যথাযথভাবে ডকুমেন্ট করা আছে কিনা সেগুলো দেখুন।
  • রেকর্ডের পর্যালোচনাঃ প্রক্রিয়া/উৎপাদন রেকর্ড যেমন রেসিপি কার্ড, কেমিক্যাল ফর্ম্যুলেশন শীট, প্রক্রিয়ার নির্দেশনা (যেখানে প্রযোজ্য), যাতে ট্রেস করার মতো সমস্ত তথ্যাবলী রয়েছে যেমন রাসায়নিকের নাম, পরিমাণ, এবং লট নম্বর। যেখানে প্রযোজ্য, স্থিতিশীল তথ্যাদির জন্য রাসায়নিক মিশ্রণ প্রক্রিয়ার লগ, ল্যাব রেকর্ড (যেমন, কালার ল্যাব, ওয়াশিং ল্যাব, ইত্যাদি) দেখুন। রাসায়নিকের ইনভেন্টরির সাথে তথ্য মিলিয়ে দেখুন (দয়া করে জেডডিএইচসি সিআইএল এবং জেডডিএইচসি সিএমএস ফ্রেমওয়র্ক সংস্করণ 1.0 – অধ্যায় 5 দেখুন রাসায়নিক ইনভেন্টরির সাথে সম্পর্কিত প্রত্যাশার জন্য)।

 

রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা – স্তর 2

Questions

আপলোডের জন্য সুপারিশ: স্তর ১-এর বাধ্যবাধকতাগুলোকে সম্পূর্ণ রূপে অর্জন করার জন্য নথিবদ্ধ করা পরিকল্পনা। এই পরিকল্পনাতে অন্তর্ভুক্ত থাকতে হবেঃ ক) কোন প্রশ্নগুলো সম্পূর্ণ অর্জন করা সম্ভব হয়নি এবং কেন; খ) যেগুলো করা সম্ভব হয়নি সেইসব বাধ্যবাধকতাগুলোকে পূরণ করার জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিবর্গ এবং স্থিরীকৃত একটি তারিখ।

একটি সুদৃঢ় রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা কর্মসূচী তৈরির ক্ষেত্রে স্তর ১-এর বাধ্যবাধকতাগুলোকে সম্পূর্ণ করার জন্য অনেক কারখানার বহু বছর লেগে যেতে পারে। যদি স্তর ১-এর বাধ্যবাধকতাগুলোকে অর্জন করার জন্য আপনার কোনো পরিকল্পনা থাকে, দয়া করে এখানে আপলোড করুন।

প্রয়োগসংক্রান্ত মূল কর্মকুশলতার সূচক (অপারেশনাল কী পারফর্ম্যান্স ইন্ডিকেটর): সমস্ত

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

স্তর ১-এর রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার শর্তাবলীর সবকটি খুব কম কারখানাই পূরণ করতে সক্ষম হবে ধরে নিয়ে, স্তর ২-এর প্রশ্নাবলীর ক্ষেত্রে সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ যে আচরণটিকে বিবেচনা করা হয়েছে তা হলো ন্যূনতম প্রবিধানগত এবং শিল্পগত প্রত্যাশা (স্তর ১)কে প্রগতিশীল উপায়ে পূরণ করার জন্য বর্তমানে সক্রিয় রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা চর্চাকে উন্নত করার উদ্দেশ্যে একটি পরিকল্পনাকে গঠন করা এবং বাস্তবায়ন করা।

বর্তমানে সক্রিয় রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা চর্চাকে উন্নত করার উদ্দেশ্যে একটি কার্যপরিকল্পনা গঠন করার ক্ষেত্রে একটি কারখানার সক্ষমতাকে ধরতে পারাই এই প্রশ্নটির উদ্দেশ্য।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ 

রাসায়নিকগুলোর সম্পূর্ণ জীবনবৃত্ত-কালীন সময়ে তাদেরকে যথাযথভাবে ব্যবস্থাপনা করার জন্য নীতিসমূহ এবং প্রক্রিয়াগুলোকে প্রতিষ্ঠা করার উপর একটি কার্যকরী রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমের ভিত্তি নির্ভর করে। জীবনবৃত্তের প্রতিটি স্টেজের জন্য, আইনি এবং অন্যান্য আবশ্যকতাগুলোকে পরিভাষিত করার নীতিসমূহ এবং প্রক্রিয়াগুলো, দায়ী ব্যক্তিবর্গ, এবং যথাযথ কাজের অভ্যাস এবং নিয়ন্ত্রণের বিকাশ সাধন করা প্রয়োজন। রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা কর্মসূচী যেটি নিরন্তর উন্নতিসাধনের অঙ্গীকারের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ। এবং সামগ্রিক রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার কর্মকুশলতায় নিরন্তর উন্নতিসাধন টিকিয়ে রাখতে গেলে, খুবই জরুরি সংশোধনমূলক পদক্ষেপগুলো /অভ্যন্তরীণ / বহিরাগত রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা মূল্যায়নের মাধ্যমে পাওয়া আবিষ্কারগুলোবিষয়ে কাজ করা।

 

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

হ্যাঁঃ 

নথিপত্র আবশ্যকঃ

  • স্তর ১-এর প্রতিটি প্রশ্নের সমস্ত শর্তাবলী পূরণ করার জন্য নথিবদ্ধ পরিকল্পনা রয়েছে
  • ডকুমেন্টেশনের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত থাকতে হবে যে কোন প্রশ্নগুলোতে সম্পূর্ণভাবে হ্যাঁ বলা যায়নি এবং কেন
  • ডকুমেন্টেশনের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত থাকতে হবে যে শর্তাবলী পূরণ করা সম্ভব হয়নি যেসব প্রশ্নের জন্য সেগুলোর ক্ষেত্রে সম্পূর্ণভাবে হ্যাঁ বলতে পারার জন্য দায়প্রাপ্ত ব্যক্তিবর্গ এবং স্থিরীকৃত তারিখ

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • কর্তৃপক্ষ এবং প্রধান কর্মীরা এই পরিকল্পনাটি সম্পর্কে অবগত এবং রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা বিভাগে স্তর ১-এর প্রশ্নাবলীতে সম্পূর্ণভাবে হ্যাঁ বলতে পারার জন্য বিবিধ ধাপ সম্পর্কে বলতে পারবেন

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • কারখানাকে বলুন আপনাকে পরিকল্পনাটি বুঝিয়ে বলতে এটি নিশ্চিত করার জন্য যে তারা পরিকল্পনাটির ২-৩টি বিষয়বস্তুর মাধ্যমে উল্লিখিত পদক্ষেপটি বাস্তবায়ন করছে।
  • কার্যপরিকল্পনাটির সহায়ক যেকোনো যন্ত্রপাতি/লগের ছবি তুলুন

১৫। প্রবিধানে এবং/অথবা রেস্ট্রিক্টেড সাবস্ট্যান্স লিস্ট / ম্যানুফ্যাকচারিং রেস্ট্রিক্টেড সাবস্ট্যান্স লিস্ট দ্বারা সুনির্দিষ্ট করে দেয়া রাসায়নিকগুলো ছাড়াও বিপজ্জনক রাসায়নিকের ব্যবহার হ্রাস করার ক্ষেত্রে আপনার কারখানার কি কোনো বাস্তবায়ন পরিকল্পনা আছে?

আপলোডের জন্য সুপারিশ: ক) বিপজ্জনক রাসায়নিক(গুলো)-এর তালিকা যেটিতে নিযুক্ত দায়িত্ব এবং কাজের একটি সময়সীমা সহ একটি কার্য পরিকল্পনা রয়েছে; খ) অগ্রসর হওয়া বা পিছিয়ে আসার পরিণতি সহ গবেষণাগারে বিকল্প রাসায়নিক ট্রায়াল অথবা কারখানার পরীক্ষামূলক কাগজপত্র।

বিপজ্জনক রাসায়নিক থাকার অর্থ এই নয় যে আপনি আরএসএল অথবা   এমআরএসএল লঙ্ঘন করেছেন; আপনার কারখানাতে বিপজ্জনক রাসায়নিক থাকতেই পারে যেগুলোকে কারখানার ভেতরে রাখার পারমিট দেয়া হয়েছে কিন্তু যেগুলোকে অবশ্যই যথাযথভাবে নাড়াচাড়া করতে হবে এবং ক্রমে ক্রমে সরিয়ে ফেলতে হবে।

প্রয়োগমূলক মূল কর্মকুশলতার সূচক (অপারেশনাল কী পারফর্ম্যান্স ইন্ডিকেটর):  রাসায়নিক এবং প্রক্রিয়া আবিষ্কার

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

উদ্দেশ্যমূলকভাবে নির্দিষ্ট লক্ষ্য সমন্বিত একটি কার্যপরিকল্পনা তৈরি, বরাদ্দকৃত দায়িত্ব প্রদান এবং পদ্দক্ষেপের জন্য একটি সময়সীমা নির্ধারণের মাধ্যমে বিপজ্জনক রাসায়নিকগুলোর অপসারণ।

এই প্রশ্নটি কারখানাগুলোকে বিপদ চিহ্নিত করার জন্য সক্রিয় হতে এবং এমআরএসএল অথবা আরএসএল-কে ইতিমধ্যেই যা নিষিদ্ধ তার বাইরেও হ্রাস করার দিকে নজর দিতে উৎসাহিত করে। এই প্রশ্ন অনুযায়ী বিপদের বিশদ মূল্যায়ণ করার জন্য কারখানাতে অভ্যন্তরীণ বিশেষজ্ঞ থাকার বিষয়টি বাধ্যতামূলক নয়। নির্দেশনা অনুযায়ী তালিকার ভিত্তিতে কারখানাগুলো বিপদের জন্য বাস্তবায়িত কার্যপরিকল্পনা রাখতে পারে। এর অন্তর্ভুক্ত নয় স্তর ১-এ আলোচিত আরএসএল/এমআরএসএল/প্রবিধানগত – এর যেকোনো অসঙ্গতি মেটানোর জন্য বাস্তবায়ন পরিকল্পনা।

উদাহরণ স্বরূপ, যদি একটি কারখানা বর্তমানে একটি শিল্প বা ব্র্যান্ডের সুনির্দিষ্ট এমআরএসএল/আরএসএল অনুসরণ করে, এই কারখানাটি সেক্ষেত্রে সক্রিয়ভাবে অন্যান্য সেই পদার্থগুলোকে ফেজ-আউট করার জন্যও খোঁজাখুঁজি করতে পারে যেগুলো জেডডিএইচসি এমআরএসএল অথবা এসআইএন এলআইএসটি ইত্যাদির প্রার্থী তালিকায় রয়েছে, যা তাদের অনুসরণ করা তালিকায় নেই। তারা এই সাবস্ট্যান্সগুলোকে শিল্পক্ষেত্রের অন্যান্য তালিকাতে খুঁজে পেতে পারে এবং তাদের অনুসরণ করা এমআরএসএল/আরএসএল-এ নিষিদ্ধ হওয়ার আগেই উৎপাদন প্রক্রিয়া থেকে এই সাবস্ট্যান্সগুলোকে অপসারণ করার জন্য কাজ করতে পারে। এই অপসৃত পদার্থগুলোর বিকল্প হিসেবে, কারখানাটি ইন্ডাস্ট্রি ডেটাবেসে চিহ্নিত হওয়া রাসায়নিক পণ্যের মধ্যে খুঁজতে পারে, যেমন জেডডিএইচসি গেটওয়ে – রাসায়নিক মড্যুল অথবা অন্যান্য ব্র্যান্ড-নির্দিষ্ট উৎসসমূহ।

 

সুযোগ রয়েছেঃ উৎপাদনের সমস্ত রাসায়নিক, কাটা-সেলাই ক্রিয়াকলাপের জন্য পণ্যে থাকা রাসায়নিকে মনোনিবেশ করে (সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ আচরণ হলো পণ্যের উপর প্রভাব – আগে থেকে স্ক্রিন করা রাসায়নিকগুলোকে ব্যবহারের দিকে এগিয়ে যাওয়া উচিত)

সুযোগ নেই: সেইসব রাসায়নিক যেগুলো এইসব পণ্যের উপর অভিনিবেশ করে না যেমন, ক্লিনার, কুলিং টাওয়ার/বয়লারের রাসায়নিকগুলোকে এর বাইরে রাখা হয়।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

কারখানার উচিত বিপজ্জনক রাসায়নিকগুলোকে চিহ্নিত করা যেগুলো আরএসএল অথবা এমআরএসএল হিসেবে বিবেচিত নয় কিন্তু এই তালিকার বাইরে রয়েছে এমন রাসায়নিক পদার্থগুলোকে বিবেচনা করে। রেফারেন্স তালিকা এবং উপাদানসমূহ যেগুলো বিপজ্জনক পদার্থ এবং/অথবা এমআরএসএল/আরএসএল-এর বাইরেও অন্যান্য উদ্বেগজনক রাসায়নিককে চিহ্নিত করে, তার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে কিন্তু সীমিত নয়ঃ

  • জেডডিএইচসি এমআরএসএল প্রার্থী তালিকা – https://mrsl.roadmaptozero.com/MRSL2_0 
  • স্থায়ী জৈব দূষণকারী বিষয়ে স্টকহোম সম্মেলন
  • কেমসেক (ChemSec) এসআইএন তালিকা
  • কেমিক্যালস অব হাই কনসার্ন টু চিলড্রেন (সিএইচসিসি) বিষয়ে ওয়াশিংটন স্টেট রিপোর্টিং লিস্ট
  • সাবস্পোর্ট ইওরোপিয়ান প্ল্যাটফর্ম (http://Subsport.eu)
  • এসভিএইচসি (অত্যন্ত উদ্বেগজনক পদার্থ, সাবস্ট্যান্স অব ভেরি হাই কনসার্ন) (https://echa.europa.eu/candidate-list-table)
  • কারখানার ক্রিয়াকলাপের জন্য অন্যান্য প্রাসঙ্গিক তালিকা, যেমন ব্লুসাইন বিএসএসএল, জিওটিএস

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

যেসব কারখানা ব্যবহার করে উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক:

হ্যাঁ

  • বাস্তবায়ন পরিকল্পনার অন্তর্ভুক্ত হলো উদ্দেশ্য, লক্ষ্য, কার্যপরিকল্পনা, এবং গৃহীত পদক্ষেপ।
  • বর্তমানে ব্যবহার হওয়া সেইসব রাসায়নিকগুলোকে কারখানাটি চিহ্নিত করেছে যেগুলোতে বিপজ্জনক রাসায়নিক অথবা এমআরএসএল রয়েছে অথবা থাকতে পারে
  • বিপজ্জনক রাসায়নিকে(গুলো)র একটি তালিকা এবং বরাদ্দকৃত দায়িত্ব এবং পদক্ষেপ গ্রহণের একটি সময়সীমা সহ  কার্যপরিকল্পনা। কার্যপরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত থাকা উচিতঃ
    • রাসায়নিকের নাম;
    • ওতে থাকা বিপজ্জনক উপাদান;
    • প্রকাশের মূল্যায়ণ যার অন্তর্গত থাকবে তীব্রতা, হার, সময়সীমা, এবং কোনো পদার্থের দিকে যাওয়ার গতিপথের অনুমান;
    • এইধরনের রাসায়নিক এবং সংশ্লিষ্ট সময়সীমার ব্যবহারকে অপসারণ করার জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ;
    • ব্যবহারের জন্য বিকল্প/প্রতিস্থাপনকারী রাসায়নিকের তালিকা;
    • অপসারণ সম্পূর্ণ হওয়ার জন্য সময়সীমা;
    • বিকল্পগুলো এবং তাদের কর্মকুশলতা পর্যবেক্ষণ করার প্রক্রিয়া।

আংশিক হ্যাঁ 

  • কাজের চেকলিস্ট সহ বাস্তবায়ন পরিকল্পনা যা কৌশল দ্বারা সহায়তাপ্রাপ্ত নয় (উদ্দেশ্য, লক্ষ্য, পরিকল্পনা, ইত্যাদি।)
  • কোনো সক্রিয় তালিকা নেই; বিকল্প পরীক্ষানিরীক্ষার জন্য গবেষণাগার/ প্রথম উৎপাদনের রেকর্ড রয়েছে।

কারখানা যেটি টুলিং এবং/অথবা ক্রিয়াকলাপের ক্ষেত্রেই কেবলমাত্র কারখানায় রাসায়নিক ব্যবহার করে।:

হ্যাঁ

  • বাস্তবায়ন পরিকল্পনার অন্তর্ভুক্ত হলো উদ্দেশ্য, লক্ষ্য, কার্যপরিকল্পনা, এবং গৃহীত পদক্ষেপ।
  • বিপজ্জনক রাসায়নিকে(গুলো)র একটি তালিকা এবং বরাদ্দকৃত দায়িত্ব এবং পদক্ষেপ গ্রহণের একটি সময়সীমা সহ  কার্যপরিকল্পনা।

আংশিক হ্যাঁ 

  • কাজের চেকলিস্ট সহ বাস্তবায়ন পরিকল্পনা যা কৌশল দ্বারা সহায়তাপ্রাপ্ত নয় (উদ্দেশ্য, লক্ষ্য, পরিকল্পনা, ইত্যাদি।)
  • কোনো সক্রিয় তালিকা নেই; বিকল্প পরীক্ষানিরীক্ষার জন্য গবেষণাগার/ প্রথম উৎপাদনের রেকর্ড রয়েছে।

নথিপত্র আবশ্যকঃ

  • বিপজ্জনক রাসায়নিকে(গুলো)র একটি তালিকা এবং বরাদ্দকৃত দায়িত্ব এবং পদক্ষেপ গ্রহণের একটি সময়সীমা সহ  কার্যপরিকল্পনা।
  • গবেষণাগারে অথবা প্রারম্ভিক কারখানায় বিকল্প রাসায়নিকের পরীক্ষানিরীক্ষা অগ্রসর হওয়া অথবা অস্বীকার করার জন্য পরিণতিগুলোকে নথিবদ্ধ করে।

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ, ইএইচএস ম্যানেজার, রাসায়নিক ম্যানেজার এবং/অথবা দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি(বর্গ)

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • সক্রিয় পরিকল্পনা অথবা বিকল্প রাসায়নিক মূল্যায়ণ প্রক্রিয়ার পর্যালোচনা যেমন গবেষণাগার, পাইলট ফেসিলিটির ডকুমেন্ট

(টীকাঃ সমস্ত কিছু আপলোড করার প্রয়োজন নেই, কিন্ত যাচাই চলাকালীন পুনর্বিবেচনার জন্য হাতের কাছে থাকা দরকার) প্রস্তাবিত আপলোডের অন্তর্ভুক্ত হতে পারে নিচের কয়েকটি অভ্যাসগুলোকে প্রদর্শন করার জন্যঃ ক) একটি ইতিবাচক তালিকার অ্যাক্সেস প্রদর্শন (যেমন BLUESIGN® ব্লুফাইন্ডার লাইসেন্স); খ) রাসায়নিক ইনভেন্টরি যাতে রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনগুলো এবং তাদের সরবরাহকারীরা তালিকাভুক্ত রয়েছে – একটি ইতিবাচক তালিকা থেকে প্রাপ্ত রাসায়নিকগুলোকে রাসায়নিক ইনভেন্টরিতে চিহ্নিত করা উচিত (যদি আগে আপলোড করে থাকেন, তাহলে লাগবে না); গ) ক্রয়ের সমর্থনে ডকুমেন্টগুলো; ঘ) ক্রয় চুক্তির ভাষা ইতিবাচক তালিকাগুলো থেকে রাসায়নিকের প্রাপ্তিকে সমর্থন করার জন্য; ঙ) প্রক্রিয়ার ডকুমেন্টেশন অভ্যন্তরীণ এবং বহিরাগত দায়িত্বগুলোকে চিহ্নিত করার জন্য

উত্তরে হ্যাঁ বলবেন কেবলমাত্র যদি রাসায়নিকের ইনভেন্টরিতে ৫০%-এর বেশি রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন (রাসায়নিকের সংখ্যার ভিত্তিতে %, আয়তনের নয়) একটি ইতিবাচক তালিকা থেকে সরবরাহ করা হয়ে থাকে যেমন, জেডডিএইচসি কেমিক্যাল গেটওয়ে,  ব্ল্যুসাইন®, জিওটিএস, এবং/অথবা ওইকেও-টিইএক্স® ইকো পাসপোর্ট।

উত্তরে আংশিক হ্যাঁ বলুন যদি আপনার কাছে একটি ইতিবাচক তালিকার রাসায়নিক থাকে যেটি আপনার ভাণ্ডারের ৫০%-এর কম পূরণ করে

সেইসব কারখানাগুলোর জন্য যারা উৎপাদনে রাসায়নিক ব্যবহার করে নাঃ 

উত্তরে হ্যাঁ বলুন কেবলমাত্র যদি রাসায়নিক ইনভেন্টরির ৫০%-এর বেশি রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন (% নির্ভর করে রাসায়নিকের সংখ্যার উপর, আয়তনের উপর নয়) একটি ইতিবাচক তালিকা থেকে নেওয়া হয়েছে যেমন জেডডিএইচসি এমআরএসএল লেভেল ৩, ব্ল্যুসাইন®, জিওটিএস, এবং/অথবা ওইকেও-টিইএক্স® C2C প্রত্যয়িত, কেম আইকিউ স্ক্রিনে অনুমোদিত রাসায়নিক, ইত্যাদি। 

উত্তরে আংশিক হ্যাঁ বলুন যদি আপনার কাছে একটি ইতিবাচক তালিকার রাসায়নিক থাকে যেটি আপনার ভাণ্ডারের ৫০%-এর কম পূরণ করে।

প্রয়োগগত প্রধান কর্মকুশলতার সূচক:  রাসায়নিক নির্বাচন, যোগাড়, এবং ক্রয়ের অভ্যাস

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

এই প্রশ্নটি সেইসব নির্মাতাকে পুরস্কৃত করার উদ্দেশ্যে করা হয়েছে যারা মানুষ এবং আমাদের পরিবেশের জন্য বেশি বিপজ্জনক রসায়নের পরিবর্তে সক্রিয়ভাবে কম বিপজ্জনক এবং ঝুঁকিসম্পন্ন রাসায়নিকগুলোকে খোঁজেন। এই কার্যক্রমগুলো সাধারণত প্রবিধানগত ঝুঁকিতে অভিনিবেশকারী এমআরএসএল এবং আরএসএল-কে অতিক্রম করে যায়।

বিপজ্জনক রাসায়নিকগুলোকে প্রতিস্থাপন করা পরিবেশ, কর্মীদল, ক্রেতা এবং জনস্বাস্থ্যের ঝুঁকি কম করার ক্ষেত্রে একটি প্রাথমিক পরিমাপ। ইতিবাচক বিকল্পগুলোকে চিহ্নিত করার জন্য বিবিধ ব্র্যান্ড-চালিত এবং তৃতীয়-পক্ষীয় কর্মসূচী  রয়েছে। ক্রয় করা রাসায়নিকের মধ্যে যাতে বিপজ্জনক পদার্থ না থাকে সেটি সুনিশ্চিত করার জন্য নির্ভরযোগ্য ইতিবাচক তালিকা থেকে রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন কেনা একটি আর্থিকভাবে লাভজনক ব্যবস্থা। এই বিকল্পগুলোর জন্য চাহিদা বৃদ্ধি করা, এবং সামগ্রিকভাবে সবুজ রসায়নের উদ্যোগ নেয়া, বয়ন এবং জুতো শিল্পের ক্ষেত্রে অস্তিত্বগত কর্মকুশলতার সার্বিক উন্নতির জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ চালক।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

বিপজ্জনক পদার্থকে চিহ্নিত করার জন্য নির্দিষ্ট ফর্ম্যুলেশনের উপাদানগুলোকে স্ক্রীন করার মাধ্যমে ইতিবাচক তালিকা গঠন করার বিষয়টি খেয়াল করা গুরুত্বপূর্ণ। ফর্ম্যুলেশনে ব্যবহৃত রাসায়নিকের উপাদানগুলোর এবং এইসব রাসায়নিকের নির্মাতা কারখানাগুলোর গুণগত প্রক্রিয়ার একটি মূল্যায়ণের বিষয়টি ইতিবাচক তালিকাগুলোর বিবেচনা করা উচিত। এই দ্বিতীয় দৃষ্টিকোণটি দীর্ঘ সময় ধরে রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনের উপাদানের স্থায়ীত্ব নিশ্চিত করা এবং অবাঞ্ছিত অশুদ্ধতা খুঁজে পাওয়ার ঝুঁকিকে সীমাবদ্ধ করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। সেফটি ডেটা শিটে প্রাপ্ত রাসায়নিক মিশ্রণের উপাদান সম্পর্কিত তথ্য (কেবলমাত্র) ইতিবাচক তালিকা তৈরির জন্য ব্যবহার করা উচিত নয় যেহেতু এসডিএস-এ প্রাপ্ত বিবরণের স্তর সাধারণত অশুদ্ধতা বা অনিচ্ছাকৃতভাবে যুক্ত হয়ে যাওয়া সেইসব পদার্থকে চিহ্নিত করে না যেগুলো প্রায়শই একটি আরএসএল বা এমআরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যবিহীনতার উৎস হতে পারে।

বিবেচনা করার জন্য কয়েকটি ইতিবাচক তালিকা হলোঃ

রেফারেন্সঃ

  • BLUESIGN® ব্লুফাইণ্ডার (bluesign® অনুমোদিত যেকোনো রসায়ন একটি ইতিবাচক তালিকার অংশ হিসেবে ধরে নেয়া যেতে পারে – এর অন্তর্ভুক্ত হলো নীল অথবা ধূসর, উভয় হিসেবে চিহ্নিত রসায়ন।)
  • জেডডিএইচসি এমআরএসএল লেভেল ৩ (উৎপাদনের তত্ত্বাবধান সহ)
  • টক্স মূল্যায়ন সহ সম্পূর্ণ উপাদানগত উদ্‌ঘাটন
  • খরিদ্দারকে সরবরাহকারী এমআরএসএল / কেমআইকিউ স্ক্রিনিং সহ রাসায়নিকগুলোর জন্য ইতিবাচক তালিকা।
  • অন্যগুলোকে কারখানা নথিবদ্ধ করবে

সাসটেইনিবিলিটি কনসর্টিয়ামের হোম অ্যান্ড অ্যাপারেল টেক্সটাইল্‌স টুলকিট-এর প্রতিক্রিয়া তথ্যভুক্ত করার জন্য এই প্রশ্নটি ব্যবহার করা যায়। প্রায়োরিটি কেমিক্যালস ম্যানেজমেন্ট কী পারফর্ম্যান্স ইন্ডিকেটর উত্তরদাতাদের থেকে অগ্রাধিকারভিত্তিক রাসায়নিকের তথ্য চায়। ব্র্যান্ডগুলি কারখানার উপাত্ত একত্রিত করতে পারে টিএসসির প্রশ্নের উত্তর দেয়ার জন্য।

আরও তথ্যের জন্য কোথায় যেতে হবেঃ 

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

যেসব কারখানা ব্যবহার করে উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক:

হ্যাঁ:

  • প্রমাণ দিয়েছে যে রাসায়নিক তালিকায় রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনের ৫০%-এরও বেশি (রাসায়নিকের সংখ্যার ভিত্তিতে %, আয়তন নয়) একটি ইতিবাচক তালিকা থেকে নেয়া হয়েছে
  • অগ্রাধিকার-প্রাপ্ত রাসায়নিকের তালিকা থেকে নেয়া যেমন জেডডিএইচসি গেটওয়ে – রাসায়নিক মড্যুল, ব্লুসাইন, জিওটিএস, ওকোটেক্স, ইত্যাদি।

আংশিক হ্যাঁ

  • ইতিবাচক তালিকা থেকে প্রাপ্ত রাসায়নিক ভাণ্ডারের রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন রাসায়নিক ভাণ্ডারের ৫০%-এরও কম উপস্থাপন করে (রাসায়নিকের সংখ্যার ভিত্তিতে %, আয়তনের নয়)

কারখানা যেটি টুলিং এবং/অথবা ক্রিয়াকলাপের ক্ষেত্রেই কেবলমাত্র কারখানায় রাসায়নিক ব্যবহার করেঃ

হ্যাঁ

  • প্রমাণ দিয়েছে যে রাসায়নিক তালিকায় রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনের ১০%-এরও বেশি (রাসায়নিকের সংখ্যার ভিত্তিতে %, আয়তন নয়) একটি ইতিবাচক তালিকা থেকে নেয়া হয়েছে

আংশিক হ্যাঁ 

  • ইতিবাচক তালিকা থেকে প্রাপ্ত রাসায়নিক ভাণ্ডারের রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন রাসায়নিক ভাণ্ডারের ১০%-এরও কম উপস্থাপন করে (রাসায়নিকের সংখ্যার ভিত্তিতে %, আয়তনের নয়)

আবশ্যক ডকুমেন্টেশন:

  • দেখান যে একটি ইতিবাচক তালিকায় আপনার অ্যাক্সেস আছে (উদাহরণঃ ব্লুসাইন ব্লুফাইণ্ডার লাইসেন্স)
  • রাসায়নিক ভাণ্ডার যেটিতে রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন এবং সংশ্লিষ্ট রাসায়নিক সরবরাহকারী তালিকাভুক্ত আছে। একটি ইতিবাচক তালিকা থেকে প্রাপ্ত রাসায়নিকের উৎস রাসায়নিকের ভাণ্ডারে চিহ্নিত হওয়া উচিত
  • ক্রয়ের সহায়ক কাগজপত্র
  • ইতিবাচক তালিকা থেকে রাসায়নিক যোগাড়ের বিষয়টির সহায়তা প্রদানে ক্রয় চুক্তির ভাষা
  • অভ্যন্তরীণ এবং বাহ্যিক দায়িত্বগুলোকে চিহ্নিত করার জন্য প্রক্রিয়ার ডকুমেন্টেশন

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ, রাসায়নিক ম্যানেজার, পারচেজিং ম্যানেজার

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • প্রকৃত তালিকা এবং অভ্যাসগুলোকে পর্যালোচনা করুন। 
  • যেকোনো ক্রয় এবং রশিদগুলোকে নির্বাচিত কিছু রাসায়নিকের (অন্তত ২টি) ইতিবাচক তালিকার প্রেক্ষিতে যাচাই করুন। 

(টীকাঃ সমস্ত কিছু আপলোড করার প্রয়োজন নেই, কিন্ত যাচাই চলাকালীন পুনর্বিবেচনার জন্য হাতের কাছে থাকা দরকার) প্রস্তাবিত আপলোডের অন্তর্ভুক্ত হতে পারে নিচের কয়েকটি অভ্যাসগুলোকে প্রদর্শন করার জন্যঃ ক) একটি ইতিবাচক তালিকার অ্যাক্সেস প্রদর্শন (যেমন BLUESIGN® ব্লুফাইন্ডার লাইসেন্স); খ) রাসায়নিক ইনভেন্টরি যাতে রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনগুলো এবং তাদের সরবরাহকারীরা তালিকাভুক্ত রয়েছে – একটি ইতিবাচক তালিকা থেকে প্রাপ্ত রাসায়নিকগুলোকে রাসায়নিক ইনভেন্টরিতে চিহ্নিত করা উচিত (যদি আগে আপলোড করে থাকেন, তাহলে লাগবে না); গ) ক্রয়ের সমর্থনে ডকুমেন্টগুলো; ঘ) ক্রয় চুক্তির ভাষা ইতিবাচক তালিকাগুলো থেকে রাসায়নিকের প্রাপ্তিকে সমর্থন করার জন্য; ঙ) প্রক্রিয়ার ডকুমেন্টেশন অভ্যন্তরীণ এবং বহিরাগত দায়িত্বগুলোকে চিহ্নিত করার জন্য

উত্তরে হ্যাঁ বলবেন কেবলমাত্র যদি রাসায়নিকের ইনভেন্টরিতে ৫০%-এর বেশি রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন (রাসায়নিকের সংখ্যার ভিত্তিতে %, আয়তনের নয়) একটি ইতিবাচক তালিকা থেকে সরবরাহ করা হয়ে থাকে যেমন, জেডডিএইচসি কেমিক্যাল গেটওয়ে,  ব্ল্যুসাইন®, জিওটিএস, এবং/অথবা ওইকেও-টিইএক্স® ইকো পাসপোর্ট।

উত্তরে আংশিক হ্যাঁ বলুন যদি আপনার কাছে একটি ইতিবাচক তালিকার রাসায়নিক থাকে যেটি আপনার ভাণ্ডারের ৫০%-এর কম পূরণ করে

সেইসব কারখানাগুলোর জন্য যারা উৎপাদনে রাসায়নিক ব্যবহার করে নাঃ 

উত্তরে হ্যাঁ বলুন কেবলমাত্র যদি রাসায়নিক ইনভেন্টরির ৫০%-এর বেশি রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন (% নির্ভর করে রাসায়নিকের সংখ্যার উপর, আয়তনের উপর নয়) একটি ইতিবাচক তালিকা থেকে নেওয়া হয়েছে যেমন জেডডিএইচসি এমআরএসএল লেভেল ৩, ব্ল্যুসাইন®, জিওটিএস, এবং/অথবা ওইকেও-টিইএক্স® C2C প্রত্যয়িত, কেম আইকিউ স্ক্রিনে অনুমোদিত রাসায়নিক, ইত্যাদি। 

উত্তরে আংশিক হ্যাঁ বলুন যদি আপনার কাছে একটি ইতিবাচক তালিকার রাসায়নিক থাকে যেটি আপনার ভাণ্ডারের ৫০%-এর কম পূরণ করে।

প্রয়োগগত প্রধান কর্মকুশলতার সূচক:  রাসায়নিক নির্বাচন, যোগাড়, এবং ক্রয়ের অভ্যাস

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

এই প্রশ্নটি সেইসব নির্মাতাকে পুরস্কৃত করার উদ্দেশ্যে করা হয়েছে যারা মানুষ এবং আমাদের পরিবেশের জন্য বেশি বিপজ্জনক রসায়নের পরিবর্তে সক্রিয়ভাবে কম বিপজ্জনক এবং ঝুঁকিসম্পন্ন রাসায়নিকগুলোকে খোঁজেন। এই কার্যক্রমগুলো সাধারণত প্রবিধানগত ঝুঁকিতে অভিনিবেশকারী এমআরএসএল এবং আরএসএল-কে অতিক্রম করে যায়।

বিপজ্জনক রাসায়নিকগুলোকে প্রতিস্থাপন করা পরিবেশ, কর্মীদল, ক্রেতা এবং জনস্বাস্থ্যের ঝুঁকি কম করার ক্ষেত্রে একটি প্রাথমিক পরিমাপ। ইতিবাচক বিকল্পগুলোকে চিহ্নিত করার জন্য বিবিধ ব্র্যান্ড-চালিত এবং তৃতীয়-পক্ষীয় কর্মসূচী  রয়েছে। ক্রয় করা রাসায়নিকের মধ্যে যাতে বিপজ্জনক পদার্থ না থাকে সেটি সুনিশ্চিত করার জন্য নির্ভরযোগ্য ইতিবাচক তালিকা থেকে রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন কেনা একটি আর্থিকভাবে লাভজনক ব্যবস্থা। এই বিকল্পগুলোর জন্য চাহিদা বৃদ্ধি করা, এবং সামগ্রিকভাবে সবুজ রসায়নের উদ্যোগ নেয়া, বয়ন এবং জুতো শিল্পের ক্ষেত্রে অস্তিত্বগত কর্মকুশলতার সার্বিক উন্নতির জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ চালক।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

বিপজ্জনক পদার্থকে চিহ্নিত করার জন্য নির্দিষ্ট ফর্ম্যুলেশনের উপাদানগুলোকে স্ক্রীন করার মাধ্যমে ইতিবাচক তালিকা গঠন করার বিষয়টি খেয়াল করা গুরুত্বপূর্ণ। ফর্ম্যুলেশনে ব্যবহৃত রাসায়নিকের উপাদানগুলোর এবং এইসব রাসায়নিকের নির্মাতা কারখানাগুলোর গুণগত প্রক্রিয়ার একটি মূল্যায়ণের বিষয়টি ইতিবাচক তালিকাগুলোর বিবেচনা করা উচিত। এই দ্বিতীয় দৃষ্টিকোণটি দীর্ঘ সময় ধরে রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনের উপাদানের স্থায়ীত্ব নিশ্চিত করা এবং অবাঞ্ছিত অশুদ্ধতা খুঁজে পাওয়ার ঝুঁকিকে সীমাবদ্ধ করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। সেফটি ডেটা শিটে প্রাপ্ত রাসায়নিক মিশ্রণের উপাদান সম্পর্কিত তথ্য (কেবলমাত্র) ইতিবাচক তালিকা তৈরির জন্য ব্যবহার করা উচিত নয় যেহেতু এসডিএস-এ প্রাপ্ত বিবরণের স্তর সাধারণত অশুদ্ধতা বা অনিচ্ছাকৃতভাবে যুক্ত হয়ে যাওয়া সেইসব পদার্থকে চিহ্নিত করে না যেগুলো প্রায়শই একটি আরএসএল বা এমআরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যবিহীনতার উৎস হতে পারে।

বিবেচনা করার জন্য কয়েকটি ইতিবাচক তালিকা হলোঃ

রেফারেন্সঃ

  • BLUESIGN® ব্লুফাইণ্ডার (bluesign® অনুমোদিত যেকোনো রসায়ন একটি ইতিবাচক তালিকার অংশ হিসেবে ধরে নেয়া যেতে পারে – এর অন্তর্ভুক্ত হলো নীল অথবা ধূসর, উভয় হিসেবে চিহ্নিত রসায়ন।)
  • জেডডিএইচসি এমআরএসএল লেভেল ৩ (উৎপাদনের তত্ত্বাবধান সহ)
  • টক্স মূল্যায়ন সহ সম্পূর্ণ উপাদানগত উদ্‌ঘাটন
  • খরিদ্দারকে সরবরাহকারী এমআরএসএল / কেমআইকিউ স্ক্রিনিং সহ রাসায়নিকগুলোর জন্য ইতিবাচক তালিকা।
  • অন্যগুলোকে কারখানা নথিবদ্ধ করবে

সাসটেইনিবিলিটি কনসর্টিয়ামের হোম অ্যান্ড অ্যাপারেল টেক্সটাইল্‌স টুলকিট-এর প্রতিক্রিয়া তথ্যভুক্ত করার জন্য এই প্রশ্নটি ব্যবহার করা যায়। প্রায়োরিটি কেমিক্যালস ম্যানেজমেন্ট কী পারফর্ম্যান্স ইন্ডিকেটর উত্তরদাতাদের থেকে অগ্রাধিকারভিত্তিক রাসায়নিকের তথ্য চায়। ব্র্যান্ডগুলি কারখানার উপাত্ত একত্রিত করতে পারে টিএসসির প্রশ্নের উত্তর দেয়ার জন্য।

আরও তথ্যের জন্য কোথায় যেতে হবেঃ 

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

যেসব কারখানা ব্যবহার করে উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক:

হ্যাঁ:

  • প্রমাণ দিয়েছে যে রাসায়নিক তালিকায় রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনের ৫০%-এরও বেশি (রাসায়নিকের সংখ্যার ভিত্তিতে %, আয়তন নয়) একটি ইতিবাচক তালিকা থেকে নেয়া হয়েছে
  • অগ্রাধিকার-প্রাপ্ত রাসায়নিকের তালিকা থেকে নেয়া যেমন জেডডিএইচসি গেটওয়ে – রাসায়নিক মড্যুল, ব্লুসাইন, জিওটিএস, ওকোটেক্স, ইত্যাদি।

আংশিক হ্যাঁ

  • ইতিবাচক তালিকা থেকে প্রাপ্ত রাসায়নিক ভাণ্ডারের রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন রাসায়নিক ভাণ্ডারের ৫০%-এরও কম উপস্থাপন করে (রাসায়নিকের সংখ্যার ভিত্তিতে %, আয়তনের নয়)

কারখানা যেটি টুলিং এবং/অথবা ক্রিয়াকলাপের ক্ষেত্রেই কেবলমাত্র কারখানায় রাসায়নিক ব্যবহার করেঃ

হ্যাঁ

  • প্রমাণ দিয়েছে যে রাসায়নিক তালিকায় রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনের ১০%-এরও বেশি (রাসায়নিকের সংখ্যার ভিত্তিতে %, আয়তন নয়) একটি ইতিবাচক তালিকা থেকে নেয়া হয়েছে

আংশিক হ্যাঁ 

  • ইতিবাচক তালিকা থেকে প্রাপ্ত রাসায়নিক ভাণ্ডারের রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন রাসায়নিক ভাণ্ডারের ১০%-এরও কম উপস্থাপন করে (রাসায়নিকের সংখ্যার ভিত্তিতে %, আয়তনের নয়)

আবশ্যক ডকুমেন্টেশন:

  • দেখান যে একটি ইতিবাচক তালিকায় আপনার অ্যাক্সেস আছে (উদাহরণঃ ব্লুসাইন ব্লুফাইণ্ডার লাইসেন্স)
  • রাসায়নিক ভাণ্ডার যেটিতে রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশন এবং সংশ্লিষ্ট রাসায়নিক সরবরাহকারী তালিকাভুক্ত আছে। একটি ইতিবাচক তালিকা থেকে প্রাপ্ত রাসায়নিকের উৎস রাসায়নিকের ভাণ্ডারে চিহ্নিত হওয়া উচিত
  • ক্রয়ের সহায়ক কাগজপত্র
  • ইতিবাচক তালিকা থেকে রাসায়নিক যোগাড়ের বিষয়টির সহায়তা প্রদানে ক্রয় চুক্তির ভাষা
  • অভ্যন্তরীণ এবং বাহ্যিক দায়িত্বগুলোকে চিহ্নিত করার জন্য প্রক্রিয়ার ডকুমেন্টেশন

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ, রাসায়নিক ম্যানেজার, পারচেজিং ম্যানেজার

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • প্রকৃত তালিকা এবং অভ্যাসগুলোকে পর্যালোচনা করুন। 
  • যেকোনো ক্রয় এবং রশিদগুলোকে নির্বাচিত কিছু রাসায়নিকের (অন্তত ২টি) ইতিবাচক তালিকার প্রেক্ষিতে যাচাই করুন। 

রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা – স্তর ৩

Questions

যেটি প্রযোজ্য সেটি বেছে নিনঃ

  • নির্মাণ প্রক্রিয়ায় ব্যবহৃত সমস্ত রাসায়নিক
  • টুলিং/যন্ত্রপাতি (লুব্রিক্যানট এবং গ্রিজ)-এ ব্যবহৃত রাসায়নিক
  • কারখানার ক্রিয়াকলাপ এবং রক্ষণাবেক্ষণে ব্যবহৃত সমস্ত রাসায়নিক

আপলোড করুনঃ ক) রাসায়নিকের জন্য বিকল্পগুলোর প্রাধান্য-প্রাপ্ত তালিকা; খ) এমআরএসএল/আরএসএল, উদ্বেগজনক তালিকা/ প্রার্থী তালিকার আরইএসিএইচ এসভিএইচসি তালিকা (আগে আপলোড করা হয়ে থাকলে দরকার নেই); গ) কারখানা, ক্রেতা, এবং রাসায়নিক সরবরাহকারীদের মধ্যে বিকল্প বিষয়ে সহযোগমূলক সভার আলাপ-আলোচনা।

একটি পণ্য ব্যর্থ হতে পারে বা সঙ্গতি রক্ষা করতে অসমর্থ হতে পারে এরকম অনুতাপজনক কোনো বিকল্প প্রতিরোধ করার জন্য বিকল্পগুলোর বিষয়ে ভ্যালু চেইনের অংশীদারদের সম্মিলিতভাবে কাজ করা উচিত।

আপনাকে সম্পূর্ণ পয়েন্ট দেয়া হবে যদি রাসায়নিকের সমস্ত শ্রেণীর জন্য বিকল্পের ক্ষেত্রে আপনি সম্মিলিতভাবে কাজ করে থাকেন।

কেবলমাত্র কিছু শ্রেণীর রাসায়নিকের জন্য যদি আপনি বিকল্পকে প্রাধান্য দিয়ে থাকেন তবে আপনাকে আংশিক পয়েন্ট দেয়া হবে।

প্রয়োগগত প্রধান কর্মকুশলতার সূচক:  রাসায়নিক নির্বাচন, যোগাড়, এবং ক্রয়ের অভ্যাস

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

বিকল্পগুলোর একটি তালিকা তৈরিকে প্রাধান্য দেয়ার জন্য একত্রে কাজ করুন। উদ্বেগজনক পদার্থ অথবা নিষিদ্ধ পদার্থের বিকল্প খোঁজার জন্য যেসব কারখানাগুলো ব্র্যান্ড এবং রাসায়নিক সরবরাহকারীদের সাথে যুক্ত হয়ে কাজ করছে তাদের পুরস্কৃত করাই এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য। একটি পণ্য ব্যর্থ হতে পারে বা সঙ্গতি রক্ষা করতে অসমর্থ হতে পারে এরকম অনুতাপজনক কোনো বিকল্প প্রতিরোধ করার জন্য বিকল্পগুলোর বিষয়ে ভ্যালু চেইনের অংশীদারদেরসম্মিলিতভাবে  কাজ করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

অগ্রাধিকার দেয়ার জন্য, প্রয়োজনীয় যে বিশ্লেষণগুলো করতে হবে সেগুলো হলোঃ ক) দূষণের নির্ণায়ক এবং খ) জীবনবৃত্তের মূল্যায়ণ – সামনে আসা প্রশ্নগুলো। এখানে চালিকাশক্তিটি হলো একত্রে প্রাধান্য দেয়ার প্রতি একনিষ্ঠতা।

বিপজ্জনক পদার্থের রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা একটি জটিল এবং চাহিদাযুক্ত প্রক্রিয়া। উদ্বেগজনক পদার্থের জন্য বেশি সহযোগিতা আরও উত্তম অগ্রাধিকার, খরিদ্দারের সন্তুষ্টি, এবং শিল্পক্ষেত্রে উন্নতি ঘটাতে সক্ষম করে।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

বিপজ্জনক পদার্থ সহ রাসায়নিকের ব্যবহারের বিকল্প গঠনের জন্য সহযোগিতা বিভিন্ন রূপে হতে পারে। নির্ণায়ক পদ্ধতিটি সহযোগিতাকে গুরুত্ব দিয়ে বিপজ্জনক পদার্থের বিকল্প খোঁজার জন্য নেতৃত্ব দেয়ার ক্ষেত্রে কারখানার সক্ষমতাকে পরিমাপ করে।

রেফারেন্সঃ জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ ১ (মে ২০২০) – অধ্যায় ৩

  • সাসটেইনিবিলিটি কনসর্টিয়ামের হোম অ্যান্ড অ্যাপারেল টেক্সটাইল্‌স টুলকিট-এর  প্রতিক্রিয়া তথ্যভুক্ত করার জন্য এই প্রশ্নটি ব্যবহার করা যায়। প্রায়োরিটি কেমিক্যালস ম্যানেজমেন্ট কী পারফর্ম্যান্স ইন্ডিকেটর উত্তরদাতাদের থেকে অগ্রাধিকারভিত্তিক রাসায়নিকের তথ্য চায়। ব্র্যান্ডগুলি কারখানার উপাত্ত একত্রিত করতে পারে টিএসসির প্রশ্নের উত্তর দেয়ার জন্য।

ধারণাটি সুদৃঢ়ভাবে শক্তিশালী হয়ে উঠতে পারে যদি কারখানাগুলো অ্যাপ্লিকেশন তৈরির মাধ্যমে নতুন পণ্য তৈরি বা ক্ষতিকর রাসায়নিকগুলোর বিকল্প গঠনের জন্য  সরবরাহকারী, ব্র্যান্ড এবং গবেষণা কেন্দ্রগুলোর সাথে সহযোগিতা করে, যাতে আদতে সমাজ এবং শিল্পের লাভ হবে (যেমন, প্লাজমা প্রযুক্তি এবং শক্তি সংরক্ষণকারী রাসায়নিক সহ ডিডাব্ল্যুআর ফিনিশ অ্যাপ্লিকেশন ইত্যাদি।)

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ 

প্রত্যাশা হলো একটি রাসায়নিকের জন্য বিকল্পগুলোর একটি অগ্রাধিকার-প্রাপ্ত তালিকা তৈরি করা।

উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিকযেসব কারখানা ব্যবহার করে :

হ্যাঁ

  • রাসায়নিকের বিকল্প, উদ্বেগজনক পদার্থ, এবং/অথবা নিষিদ্ধ পদার্থের তালিকার ক্ষেত্রে সহযোগিতার বিষয়ে কারখানার একটি প্রক্রিয়া আছে। এটি স্বচ্ছ এবং নথিবদ্ধ এবং এতে নিম্নলিখিত বিষয়গুলো অন্তর্ভুক্ত আছেঃ
    • নির্মাণ প্রক্রিয়ায় ব্যবহৃত সমস্ত রাসায়নিক
    • টুলিং/যন্ত্রপাতি (লুব্রিক্যানট এবং গ্রিজ)-এ ব্যবহৃত রাসায়নিক
    • কারখানা পরিচালনা এবং রক্ষণাবেক্ষণে ব্যবহৃত সমস্ত রাসায়নিক।
  • কারখানার একটি অগ্রাধিকার-প্রাপ্ত বিকল্প তালিকা আছে একটি রাসায়নিকের জন্য একটি স্বচ্ছ, বিজ্ঞান-ভিত্তিক, সরল এবং যুক্তিযুক্ত ব্যবস্থার মাধ্যমে যা রাসায়নিকগুলোকে এবং/অথবা মূল্যায়ন করে।

আংশিক হ্যাঁ 

  • রাসায়নিকের বিকল্প, উদ্বেগজনক পদার্থ, এবং/অথবা নিষিদ্ধ পদার্থের তালিকার ক্ষেত্রে সহযোগিতার বিষয়ে কারখানার একটি প্রক্রিয়া আছে। এটি স্বচ্ছ এবং নথিবদ্ধ কিন্তু নির্মাণ, টুলিং এবং রক্ষণাবেক্ষণ রাসায়নিকগুলোতে ব্যবহৃত সমস্ত রাসায়নিক এর আওতাধীন নয়।

আবশ্যক ডকুমেন্টেশন:

  • রাসায়নিকগুলোর জন্য অগ্রাধিকার-প্রাপ্ত বিকল্পগুলোর একটি তালিকা
  • এমআরএসএল/আরএসএল, উদ্বেগজনক পদার্থের তালিকা/ প্রার্থী তালিকা, আরইএসিএইচ এসভিএইচসি (REACH SVHC) তালিকা
  • কারখানা, খরিদ্দার, এবং রাসায়নিক সরবরাহকারীদের মধ্যে সহযোগিতামূলক আলোচনার বিবরণ

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • আঞ্চলিক/বৈশ্বিক স্তরে রাসায়নিকের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে গ্রাহক এবং রাসায়নিক সরবরাহকারীদের সাথে সহযোগিতা করার প্রক্রিয়াটি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ব্যাখ্যা করতে পারেন
  • রাসায়নিকের অগ্রাধিকার-প্রাপ্ত বিকল্পগুলোকে হালনাগাদ করার ক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষ এবং প্রধান কর্মীদের অবহিত থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করুন

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • রাসায়নিকের অগ্রাধিকার-প্রাপ্ত বিকল্পের তালিকা পর্যালোচনা করুন
  • এমআরএসএল/আরএসএল, উদ্বেগজনক পদার্থের তালিকা/ প্রার্থী তালিকা, আরইএসিএইচ এসভিএইচসি (REACH SVHC) তালিকা পর্যালোচনা করুন
  • কারখানা, খরিদ্দার, এবং রাসায়নিক সরবরাহকারীদের মধ্যে বিকল্প বিষয়ে সহযোগিতামূলক আলোচনার বিবরণ পর্যালোচনা করুন

আপলোডের জন্য সুপারিশ: ক) বিপজ্জনক রাসায়নিকগুলোর বিশ্লেষণের রিপোর্ট, যেমন স্ক্রীনড কেমিস্ট্রি অথবা ক্রেড্‌ল২ক্রেড্‌ল মূল্যায়ণ; খ) বিপদের শর্তাবলীর পরিপ্রেক্ষিতে কারখানাটি নিজের বিকল্পগুলো মূল্যায়ণ করেছে এমন প্রমাণ।

কারখানার ভেতরে যদি বিপজ্জনক রাসায়নিকের জন্য একটি অভ্যন্তরীণ মূল্যায়ণ সম্পন্ন করানো হয়ে থাকে এবং পদক্ষেপকে প্রাধান্য দেয়ার জন্য আরো নিরাপদ বিকল্পগুলোর উদ্দেশ্যে রাসায়নিক ব্যবহারকে উৎসাহিত করার জন্য আপনি এই তথ্যাবলী ব্যবহার করে থাকেন, তাহলে উত্তরে হ্যাঁ বলবেন । মূল্যায়ণে বাধ্যতামূলকভাবে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে ঝুঁকিপূর্ণ একটি পদার্থের সাথে জড়িত ঝুঁকি এবং সেটির সংস্পর্শে আসার একটি মূল্যায়ণ।

আপনি যদি মূল্যায়ণ সম্পন্ন করে থাকেন কিন্তু পরবর্তী পদক্ষেপকে প্রাধান্য না দিয়ে থাকেন তাহলে উত্তরে আংশিক হ্যাঁ বলবেন।

অপারেশনাল কী পারফর্ম্যান্স ইন্ডিকেটরঃ পণ্যের মান/বিশুদ্ধতা

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

কারখানাটি যে রাসায়নিক পণ্যটি ব্যবহার করছে তার সাথে সংশ্লিষ্ট বিপদের ভিত্তিতে সেটিকে চিহ্নিত করা, এবং তারপরে সেই জ্ঞানটুকুকে এই বিপজ্জনক রাসায়নিকটিকে হ্রাস করা, প্রতিস্থাপন করা এবং অবশেষে অপসারণ করার ক্ষেত্রে একটি নির্বাচিত সিদ্ধান্ত গ্রহণে ব্যবহার করার জন্য এই প্রশ্নে রেফার করা বিকল্প প্রক্রিয়াটিই হলো কারখানার একটি প্রক্রিয়া। স্তর ২-এর মতো তালিকা-বহির্ভূত বিপদগুলোকে চিহ্নিত করার জন্য কারিগরি জ্ঞান প্রয়োজন। যদি এটি করা হয়, তাহলে তা বর্তমান বা প্রকল্পিত রাসায়নিকগুলোকে প্রতিস্থাপন করার উদ্দেশ্যে করা হবে। বিকল্প মূল্যায়ণের প্রসঙ্গে এই আচরণের জন্য কারখানাগুলোকে পুরস্কৃত করা উচিত। চিহ্নিত বিপজ্জনক সাবস্ট্যান্সগুলোকে নিষিদ্ধ করা অথবা প্রতিস্থাপন করার সিদ্ধান্ত এই সাবস্ট্যান্সের সংস্পর্শে এলে সম্ভাব্য সংশ্লিষ্ট বিপদের হিসাব যুক্ত করে নেয়া উচিত। সংস্পর্শে আসাকে অবহেলা করাটা পণ্যের ঝুঁকির ক্ষেত্রে অত্যন্ত ভুল হিসেবে পরিণত হতে পারে, যার ফলশ্রুতি হিসেবে পণ্যের দৃষ্টিকোণ তৈরিতে ভুল উদ্যোগ নেয়া হবে। দৃশ্যপটের মূল্যায়ণের মাধ্যমে সংস্পর্শে আসার হিসেবটা আমরা আলোচনা করব, যেখানে দৃশ্যপটগুলো সাবস্ট্যান্সের ব্যবহারের উপরে নির্ভরশীল। 

এই সহায়তাটি সংস্পর্শে আসার ঝুঁকির শ্রেণীবিভাগকে নির্ধারণ করে (যেমন BLUESIGN® স্তরগুলো ১, ২, ৩) যেগুলো চূড়ান্ত ব্যবহারের সাথে সম্পর্কিত (যেমন বাচ্চাদের পণ্য, ত্বকের কাছাকাছি, ত্বকের সাথে সম্পর্করহিতভাবে বাইরের স্তরের কাছাকাছি, ইত্যাদি)। কোন ফর্ম্যুলেশনটি পণ্যের চূড়ান্ত ক্রিয়াকলাপের আবশ্যকতাকে এবং রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসার ঝুঁকির ক্ষেত্রে সর্বোত্তম সহায়তা প্রদান করবে তা নির্ধারণ করতে এটি একজন সরবরাহকারীকে সহায়তা প্রদান করে।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

খরিদ্দারের চাপ এবং প্রবিধানগত বাধ্যবাধকতাগুলোর প্রতিক্রিয়ায় রাসায়নিক বিপদের মূল্যায়ণ খুচরো বিক্রেতা, ব্র্যাণ্ড, এবং উপকরণের সরবরাহকারীদের দ্বারা আরো নিরাপদ বিকল্পের মাধ্যমে সম্ভাব্য প্রতিস্থাপনকে চিহ্নিত করা এবং অগ্রাধিকার প্রদানের জন্য ব্যবহৃত হয়।

বিপজ্জনক রাসায়নিক হলো সেগুলো যেগুলো অন্তর্নিহিতভাবে বিপজ্জনক চরিত্র প্রদর্শন করে থাকে – অটল, জৈব-স্তূপসম্পন্ন, এবং ক্ষতিকর (পিবিটি); অত্যন্ত অটল এবং অত্যন্ত জৈব-স্তূপসম্পন্ন (ভেরি পার্সিস্টেন্ট অ্যান্ড ভেরি বায়ো-অ্যাক্যুমুলেটিভ, ভিপিভিবি); ক্যান্সার-উৎপাদনকারী, মিউটেশন সংঘটনকারী, এবং সন্তান উৎপাদনের ক্ষেত্রে ক্ষতিকর (কার্সেনোজেনিক, মিউটাজেনিক, টক্সিক ফর রিপ্রোডাকশন, সিএমআর); এন্ডোক্রিনের ক্ষেত্রে বাধাদানকারী (এন্ডোক্রিন ডিসরাপ্টর, ইডি); অথবা সমতুল উদ্বেগের কারণসম্পন্ন রাসায়নিক – কেবলমাত্র সেগুলো নয় যেগুলোকে অন্যান্য অধিক্ষেত্রগুলোতে প্রবিধানের আওতায় আনা হয়েছে অথবা নিয়ন্ত্রিত করা হয়েছে।

রেফারেন্সঃ জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ ১ (মে ২০২০) – অধ্যায় ৩

বিপদের একটি মূল্যায়ণ হিসেব করার লাভগুলো নিচে দেয়া হলোঃ

  • এই ব্যবস্থাটিকে একটি আরোপিত রাসায়নিক সাবস্ট্যান্সকে মূল্যায়ণ করা এবং বিকল্পগুলোর সাথে তুলনা করার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। স্বাভাবিকভাবেই কম বিপজ্জনক বিকল্প রাসায়নিকগুলোকে চিহ্নিত করা, এবং জনস্বাস্থ্য এবং পরিবেশের জন্য অধিক ক্ষতিকর প্রতিস্থাপকগুলোকে প্রতিরোধ করাই হলো লক্ষ্য।
  • এই ব্যবস্থাটি তথ্য প্রযুক্তির টুলগুলোর ক্ষেত্রে অভিযোজনক্ষম, যার ফলে এটি অপেক্ষাকৃত কম সময়ের মধ্যে বৃহৎ সংখ্যক রাসায়নিককে স্ক্রীন করতে, এবং রাসায়নিক এবং উপকরণগুলোর ব্যাপকতর প্রোফাইলিঙের জন্য নির্দেশনা প্রদান করতে সক্ষম হয়।
  • এই ব্যবস্থাটি বহুবিধ শিল্পক্ষেত্র সম্পর্কিত বিভাগের ক্ষেত্রে অভিযোজনক্ষম এবং রাসায়নিক বিপদের ক্ষেত্রে একটি বিজ্ঞানভিত্তিক পদ্ধতি প্রদান করে যাতে কম বিপজ্জনক বিকল্পগুলোকে চিহ্নিত করা যায়।

রেফারেন্সঃ সাসটেইনিবিলিটি কনসর্টিয়ামের হোম অ্যান্ড অ্যাপারেল টেক্সটাইল্‌স টুলকিট-এর প্রতিক্রিয়া তথ্যভুক্ত করার জন্য এই প্রশ্নটি ব্যবহার করা যায়। প্রায়োরিটি কেমিক্যালস ম্যানেজমেন্ট কী পারফর্ম্যান্স ইন্ডিকেটর উত্তরদাতাদের থেকে অগ্রাধিকারভিত্তিক রাসায়নিকের তথ্য চায়। ব্র্যান্ডগুলি কারখানার উপাত্ত একত্রিত করতে পারে টিএসসির প্রশ্নের উত্তর দেয়ার জন্য।

শব্দকোষঃ

বিপজ্জনক রাসায়নিকগুলোঃ বিপজ্জনক রাসায়নিক হলো সেগুলো যেগুলো অন্তর্নিহিত রূপে বিপজ্জনক বৈশিষ্ট্য প্রদর্শন করে – অটল, জৈব-স্তূপসম্পন্ন, এবং ক্ষতিকর (পিবিটি); অত্যন্ত অটল এবং অত্যন্ত জৈব-স্তূপসম্পন্ন (ভেরি পার্সিস্টেন্ট অ্যান্ড ভেরি বায়ো-অ্যাক্যুমুলেটিভ, ভিপিভিবি); ক্যান্সার-উৎপাদনকারী, মিউটেশন সংঘটনকারী, এবং সন্তান উৎপাদনের ক্ষেত্রে ক্ষতিকর (কার্সেনোজেনিক, মিউটাজেনিক, টক্সিক ফর রিপ্রোডাকশন, সিএমআর); এন্ডোক্রিনের ক্ষেত্রে বাধাদানকারী (এন্ডোক্রিন ডিসরাপ্টর, ইডি); অথবা সমতুল উদ্বেগের কারণসম্পন্ন রাসায়নিক – কেবলমাত্র সেগুলো নয় যেগুলোকে অন্যান্য অধিক্ষেত্রগুলোতে প্রবিধানের আওতায় আনা হয়েছে অথবা নিয়ন্ত্রিত করা হয়েছে।

রাসায়নিক বিপদের মূল্যায়ণ শুরু করার জন্য দয়া করে এই নির্দেশিকাটি ডাউনলোড করুন: https://outdoorindustry.org/wp-content/uploads/2015/05/Haz_Assessment-2.pdf

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

নির্দেশিকাঃ বিপদের শর্তাবলীর প্রেক্ষিতে বিকল্পগুলোকে আপনি মূল্যায়ণ করেছেন সেটির সপক্ষে প্রমাণ দেয়াটা প্রত্যাশা।

যেসব কারখানাগুলোউৎপাদন প্রক্রিয়াসমূহে রাসায়নিক ব্যবহার করে:

হ্যাঁ

  • বিপজ্জনক রাসায়নিকের একটি মূল্যায়ণ কারখানাতে করা হয়েছে এবং কারখানাটি আরো নিরাপদ বিকল্পের জন্য স্পষ্টভাবে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে একটি কার্যপরিকল্পনাকে অগ্রাধিকার দেয়া এবং তৈরি করার জন্য এই তথ্যকে ব্যবহার করছে। মূল্যায়ণে বাধ্যতামূলকভাবে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে বিপজ্জনক একটি পদার্থের সাথে জড়িত ঝুঁকি এবং সেটির সংস্পর্শে আসার একটি মূল্যায়ণ।

আংশিক হ্যাঁ 

  • আমাদের কারখানায় বিপজ্জনক রাসায়নিক মূল্যায়ণ সংঘটিত হয়েছে কিন্তু পরবর্তী পদক্ষেপকে অগ্রাধিকার দেয়ার জন্য কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি।

টুলিং এবং/অথবা কার্যসম্পাদনার ক্ষেত্রেই কেবলমাত্র কারখানায় রাসায়নিকব্যবহার করে যে কারখানাগুলো :

হ্যাঁ

  • কারখানার ভেতরে বিপজ্জনক রাসায়নিকের জন্য একটি অভ্যন্তরীণ মূল্যায়ণ সম্পন্ন করানো হয়েছে এবং পদক্ষেপকে প্রাধান্য দেয়ার জন্য আরো নিরাপদ বিকল্পগুলোর উদ্দেশ্যে রাসায়নিক ব্যবহারকে উৎসাহিত করার জন্য কারখানাটি এই তথ্যাবলী ব্যবহার করছে। মূল্যায়ণে বাধ্যতামূলকভাবে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে বিপজ্জনক একটি পদার্থের সাথে জড়িত ঝুঁকি এবং সেটির সংস্পর্শে আসার একটি মূল্যায়ণ।

আংশিক হ্যাঁ 

  • আমাদের কারখানায় বিপজ্জনক রাসায়নিক মূল্যায়ণ সংঘটিত হয়েছে কিন্তু পরবর্তী পদক্ষেপকে অগ্রাধিকার দেয়ার জন্য কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি।

নথিপত্র আবশ্যকঃ

  • বিপজ্জনক রাসায়নিক মূল্যায়ণের রিপোর্ট
  • বিপদ নির্ধারণের প্রেক্ষিতে বিকল্পগুলোকে কারখানাটি মূল্যায়ণ করেছে তার প্রমাণ।

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • আরো নিরাপদ বিকল্পের দিকে রাসায়নিক ব্যবহারকে উৎসাহিত করা এবং পদক্ষেপকে অগ্রাধিকার দেয়ার জন্য এই তথ্যকে কীভাবে ব্যবহার করতে হবে সেটি কি প্রধান কর্মচারীরা বোঝেন?

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • বিপজ্জনক রাসায়নিকের রিপোর্ট পর্যালোচনা করুন।
  • বিপদ নির্ধারণের প্রেক্ষিতে বিকল্পগুলোকে কারখানাটি মূল্যায়ণ করেছে তার প্রমাণগুলোকে পর্যালোচনা করুন

প্রস্তাবিত আপলোড (যদি প্রযোজ্য হয়): ক) BLUESIGN® BlueXpert  মূল্যায়ণ; খ) লাইফসাইক্‌ল অ্যাাসেসমেন্ট স্টাডিজ; গ) পানি, শক্তি, বর্জ্য ইত্যাদির জন্য নথিবদ্ধ মেট্রিক্স; ঘ) তৃতীয় পক্ষীয় মূল্যায়ণ; ঙ) এমএফসিএ (মেটেরিয়াল ফ্লো কস্ট অ্যাকাউন্টিং)

আপনার কারখানার উচিত রাসায়নিকের ব্যবহার, নির্মাণ প্রক্রিয়া, এবং যন্ত্রপাতিকে উন্নততর করা যাতে উৎপাদনের ধাপের সাথে সম্পর্কিত শক্তি এবং পানির ব্যবহার হ্রাস করা যায়। একটি উদাহরণ হতে পারে একটি রঞ্জন প্রক্রিয়া চলাকালীন পানির ব্যবহার হ্রাস করার জন্য একটি পৃথক রঞ্জক পদার্থ  ব্যবহার করা।

অন্যান্য শক্তির ব্যবহার বা উৎপাদনে (যেমন পানি, শক্তি এবং বর্জ্য) এই প্রশ্নটি অভিনিবেশ করে, যা প্রশ্ন ১৮-তে রেফার করা বিপজ্জনক বিষয়বস্তুর ভিত্তিতে সংঘটিত রাসায়নিক মূল্যায়ণের বিপরীত।

উত্তরে হ্যাঁ বলবেন আপনার কারখানাতে রাসায়নিক প্রতিস্থাপনের ক্ষেত্রে আপনি যদি পরিবেশগত প্রভাবগুলোকে (যেমন, পানির ব্যবহারবিধি, শক্তির ব্যবহারবিধি, বর্জ্য, বর্জ্যপানি, এবং নিষ্ক্রমণের উপর প্রভাব) মূল্যায়ণ করে থাকেন।

প্রয়োগমূলক মূল কর্মকুশলতার সূচক (অপারেশনাল কী পারফর্ম্যান্স ইন্ডিকেটর):  রাসায়নিক এবং প্রক্রিয়া আবিষ্কার

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

এই প্রশ্নটি কেবলমাত্র রাসায়নিক ব্যবস্থাপনার অনেক ঊর্ধ্বে এবং অস্তিত্বরক্ষার ক্ষেত্রে ব্যাপকতর একটি ব্যবস্থা যেটি কারখানার ভেতরে এবং বাইরেও একটি পণ্যের জীবনবৃত্তের প্রতি মনোনিবেশ করে যেমন পানির ব্যবহার, শক্তির ব্যবহার, বর্জ্য, বর্জ্যপানি, নিষ্ক্রমণ, ইত্যাদি।

পণ্য এবং রাসায়নিক জীবনবৃত্তের পর্যালোচনার উদ্দেশ্য হলো পণ্য এবং রাসায়নিকের পরিবেশগত ফুটপ্রিন্টকে সহায়তা প্রদান। লাইফসাইক্‌ল মেট্রিক্স প্রতিষ্ঠা করার জন্য ফ্রেমওয়ার্ক রয়েছে যেটি গঠনগত এবং পরিমাপগত সহায়তা প্রদান করতে পারে। নির্মাণ প্রক্রিয়ার কার্যদক্ষতা অধিক পরিমাণে একইসাথে রাসায়নিকের ব্যবহার সহ নির্মাণ প্রক্রিয়া এবং যন্ত্রপাতিকে ভালো করে তোলার উপর নির্ভরশীল। রাসায়নিকের ব্যবহারের পরিমাণ হ্রাস করার মাধ্যমে, প্রক্রিয়ার সাথে সম্পর্কিত শক্তি এবং পানির ব্যবহার হ্রাস করার মাধ্যমে এবং তার ফলস্বরূপ ব্যবস্থাটির জীবনবৃত্তীয় প্রভাব হ্রাস করার মাধ্যমে এই তিনটি উপাদানের বৃদ্ধি গুরুত্বপূর্ণ সঞ্চয় করতে পারে।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

আরও তথ্যের জন্য কোথায় যেতে হবেঃ 

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিকযেসব কারখানা ব্যবহার করে :

হ্যাঁ

  • মূল্যায়ণের জন্য ব্যবহার করা BLUESIGN® BlueXpert: https://www.bluesign.com/sites/bluexpert/about
  • পিএলসিএ/এলসিএ গবেষণা।
  • পানি, শক্তি, বর্জ্য, ইত্যাদির জন্য নথিবদ্ধ মেট্রিক্স।
  • ৩য় পক্ষীয় মূল্যায়ণ

নথিপত্র আবশ্যকঃ

  • BLUESIGN® BlueXpert  মূল্যায়ন
  • পিএলসিএ/এলসিএ গবেষণা
  • পানি, শক্তি, বর্জ্য, ইত্যাদির জন্য নথিবদ্ধ মেট্রিক্স।
  • এমএফসিএ (মেটেরিয়াল ফ্লো কস্ট অ্যাকাউন্টিং)
  • ৩য় পক্ষীয় মূল্যায়ণ

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ, এনভায়ারনমেন্টাল স্টিউয়ার্ড,

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • কৌশলগুলোর বাস্তবায়নের জন্য কারখানাটিকে পর্যালোচনা করুন।

সুপারিশ করা আপলোডঃ ক) পণ্যের ব্যাচ কার্ড যাতে অন্তর্ভুক্ত থাকবে ব্যাচ নম্বর, তারিখ এবং উৎপাদনের পরিমাণ; খ) রেসিপি কার্ড, ফর্ম্যুলেশন শীট, প্রক্রিয়ারনির্দেশনা (যেখানে প্রযোজ্য), যাতে সমস্ত অনুসরণযোগ্য তথ্য থাকবে যেমন রাসায়নিকের নাম, লট নম্বর, এবং পরিমাণ; গ) রাসায়নিক মিশ্রণ/ ব্লেন্ডিং প্রক্রিয়ার লগ, ল্যাব রেকর্ড (যেমন, কালার ল্যাব, ওয়াশিং ল্যাব, ইত্যাদি), যাতে প্রাসঙ্গিক তথ্য অন্তর্ভুক্ত থাকবে যেমন মিশ্রণে ব্যবহৃত রাসায়নিকের নাম এবং পরিমাণ; ঘ) রাসায়নিক সঞ্চয়ের লগ যাতে অন্তর্ভুক্ত থাকবে অস্থায়ী/কর্মরত সঞ্চয়স্থল এবং অবিচ্ছিন্ন রেকর্ড সহ মূল গুদামঘর যেমন, রাসায়নিকের লট নম্বর, পরিমাণ, এবং তারিখ সহ সঞ্চয়স্থলে ঢোকার/বেরনোর লগ (ব্যবহারের জন্য সঞ্চিত এবং প্রেরিত)।

উত্তরে হ্যাঁ বলবেন কেবলমাত্র যদি প্রক্রিয়াতে অথবা মিশ্রণে ব্যবহৃত সমস্ত রাসায়নিককে অস্থায়ী/ওয়ার্কিং স্টোরেজ এবং মূল গুদাম পর্যন্ত অনুসরণ করা যায় যেখানে স্থিতিশীল রেকর্ড পাওয়া যাবে এবং লট নম্বরে সেটিকে রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়।

উত্তরে আংশিক হ্যাঁ বলবেন যদি আপনি সমস্ত নয়, কিছু রাসায়নিককে লট নম্বর অবধি অনুসরণ করতে পারেন

প্রয়োগমূলক মূল কর্মকুশলতার সূচক (অপারেশনাল কী পারফর্ম্যান্স ইন্ডিকেটর):  রাসায়নিক এবং প্রক্রিয়া আবিষ্কার

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

অনুসরণযোগ্যতার উদ্দেশ্য হলো উৎপাদনের অন্তর্গত রাসায়নিক উপাদানগুলোকে “পিছন দিকে” (যেকোনো একটি চূড়ান্ত পণ্য বেছে নিন, সেই নির্দিষ্ট চূড়ান্ত পণ্যটি প্রস্তুত করার জন্য ব্যবহৃত রাসায়নিক উপাদানগুলোর চিহ্ন খুঁজে পাওয়া যায় কিনা দেখুন), এবং “সামনের দিকে” অনুসরণ করা যায় কিনা দেখুন (যেকোনো একটি রাসায়নিক বেছে নিন, সেই সমস্ত নির্দিষ্ট চূড়ান্ত পণ্যগুলো যেগুলোকে প্রস্তুত করার জন্য সেই রাসায়নিকটিকে ব্যবহার করা হয়েছিল সেগুলোকে চিহ্নিত করা যায় কিনা)

এটি করতে পারার সক্ষমতা, কোনো নির্দিষ্ট রাসায়নিকের ক্ষেত্রে কোনো গুণগত মান অথবা সঙ্গতিরক্ষার সমস্যা তৈরি হলে মূল কারণ অনুসন্ধানে সাহায্য করবে।

যদি কোনো পণ্যকে বাজার থেকে ফিরিয়ে নেয়ার দরকার পড়ে, সেটিতে অন্তর্ভুক্ত নির্দিষ্ট রাসায়নিকটিকেও ফিরিয়ে নেয়া সম্ভব হতে পারে

স্তর ৩-এ, চূড়ান্ত পণ্যের প্রতিটি ব্যাচ নম্বরের প্রতিটি নির্মাণ প্রক্রিয়াতে কারখানাটির রাসায়নিকের অনুসরণযোগ্যতা থাকা উচিত, রাসায়নিকের লট নম্বর পর্যন্ত যেতে পারে। অন্য ভাবে বলতে গেলে, কারখানাটির অপরিবর্তিত তথ্যসূত্র রক্ষণাবেক্ষণ করা উচিত যেমন দেয়া হলোঃ (১) পণ্যের ব্যাচ নম্বর (২) যে উৎপাদন প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে সেই নির্দিষ্ট পণ্যটিকে যেতে হয়েছে (৩) রাসায়নিকের ব্যবহার-সম্পন্ন প্রতিটি প্রক্রিয়ার রেসিপি শীট, (৪) রাসায়নিক মেশানোর ল্যাবে এই রেসিপিগুলোতে ব্যবহৃত রাসায়নিকের সাথে সংশ্লিষ্ট রেকর্ড, যেমন নাম এবং পরিমাণ (৫) সংরক্ষাণাগারে এই নির্দিষ্ট রাসায়নিকগুলোর অপরিবর্তিত রেকর্ড (অস্থায়ী এবং গুদামে/একসাথে অনেকটা সংরক্ষণ) যেমন স্টোরেজ লগ, জমা পড়া/বার করার রেকর্ড (৬) সংশ্লিষ্ট রাসায়নিক লট নম্বর (৭) কারখানা-জোড়া রাসায়নিক ভাণ্ডারে অপরিবর্তিত তথ্যাবলী। এগুলো প্রদর্শন করবে যে আপনার কারখানাতে পরিচালনায় কীভাবে এবং কোথায় রাসায়নিক ব্যবহার করা হয়, কোথায় সংরক্ষণ করা হয়, এবং সমস্ত তথ্য স্থিতিশীলভাবে কারখানা-জুড়ে ডকুমেন্ট করা হয় এবং পর্যবেক্ষণ করা হয় সে সম্পর্কে আপনি অবহিত।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

অনুসরণযোগ্যতার এই স্তর অর্জন করা কেবলমাত্র তখনই সম্ভব যখন আমরা আমাদের রাসায়নিক সরবরাহকারীর কাছ থেকে তার প্রত্যেক সরবরাহের সাথে রাসায়নিকগুলোর লট নম্বর চেয়ে নিই এবং এই রাসায়নিকগুলোকে হাতে পাওয়ার পরে সেগুলোর পারচেজ অর্ডারের সাথে কারখানাকে সেগুলোকে মিলিয়ে দেখতে বলি। এইসব তথ্যগুলোকে অথবা পণ্যের নাম, লট নম্বর, রশিদের তারিখ এবং কবে রেসিপিতে ব্যবহারের জন্য পণ্যটিকে খোলা হলো এবং ব্যবহারের তারিখ দিয়ে তাদের ভাণ্ডারে কারখানার রেকর্ড রাখা উচিত যাতে ব্যবহার হতে থাকা রাসায়নিক পণ্যটির সম্পূর্ণ অনুসরণযোগ্যতাকে সুনিশ্চিত করা যায়।

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

যেসব কারখানা ব্যবহার করে উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিক:

হ্যাঁ

সমস্ত আবশ্যকতাগুলোকে নিচে পূরণ করা হয়েছেঃ

  • সমস্ত পণ্যের জন্য ব্যাচ নম্বর এবং অন্যান্য প্রাসঙ্গিক তথ্য সহ ব্যাচ কার্ড পাওয়া যাবে যেমন তারিখ এবং উৎপাদনের পরিমাণ
  • রাসায়নিকের ব্যবহার করে এমন যে সমস্ত প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে পণ্যটি গেছে সেগুলোকে চিহ্নিত করা হয়েছে  এবং প্রতিটি প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট রেসিপি এবং ব্যাচ কার্ডগুলো পাওয়া যাবে এবং রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়েছে। প্রক্রিয়ার নির্দেশনা এবং চেকপয়েন্টগুলোকে প্রতিষ্ঠা করা এবং ডকুমেন্ট করা হয়েছে।
  • রেসিপিতে তালিকাভুক্ত সমস্ত রাসায়নিকগুলোকে রাসায়নিক মিশ্রণ/মেলানো অথবা ল্যাব (যেখানে প্রযোজ্য) অবধি ট্রেস করা যায়, যার অন্তর্ভুক্ত হলো প্রাসঙ্গিক তথ্যাবলী যেমন, রাসায়নিকের নাম এবং মিশ্রণে ব্যবহৃত পরিমাণ
  • প্রক্রিয়াগুলোতে অথবা মিশ্রণে ব্যবহৃত সমস্ত রাসায়নিকগুলোকে অস্থায়ী/চালু ভাণ্ডার এবং প্রধান গুদাম পর্যন্ত অনুসরণ করা যায় যেখানে স্থিতিশীল রেকর্ড পাওয়া যায় এবং রক্ষণাবেক্ষণও করা হয়, যেমন, রাসায়নিকের লট নম্বর, পরিমাণ, এবং তারিখ (জমা করা এবং ব্যবহারের জন্য বার করার) সহ জমা দেয়া এবং বার করার লগ্‌।
  • কারখানায় নির্মিত যেকোনো পণ্যে ব্যবহার করা রাসায়নিকের লট নম্বর এবং পণ্যের ব্যাচ নম্বরের মধ্যে যোগসূত্র প্রতিষ্ঠিত হয়ে যায়

আংশিক হ্যাঁঃ

  • সমস্ত পণ্যের জন্য ব্যাচ নম্বর এবং অন্যান্য প্রাসঙ্গিক তথ্য সহ ব্যাচ কার্ড পাওয়া যাবে যেমন তারিখ এবং উৎপাদনের পরিমাণ
  • রাসায়নিকের ব্যবহার করে এমন যে সমস্ত প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে পণ্যটি গেছে সেগুলোকে চিহ্নিত করা হয়েছে  এবং প্রতিটি প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট রেসিপি এবং ব্যাচ কার্ডগুলো পাওয়া যাবে এবং রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়েছে। প্রক্রিয়ার নির্দেশনা এবং চেকপয়েন্টগুলোকে প্রতিষ্ঠা করা এবং ডকুমেন্ট করা হয়েছে।
  • রেসিপিতে তালিকাভুক্ত সমস্ত রাসায়নিকগুলোকে রাসায়নিক মিশ্রণ/মেলানো অথবা ল্যাব (যেখানে প্রযোজ্য) অবধি ট্রেস করা যায়, যার অন্তর্ভুক্ত হলো প্রাসঙ্গিক তথ্যাবলী যেমন, রাসায়নিকের নাম এবং মিশ্রণে ব্যবহৃত পরিমাণ
  • প্রক্রিয়াতে বা মিশ্রণে ব্যবহৃত কিছু (সব নয়) রাসায়নিককে অস্থায়ী/চালু সংরক্ষণাগার এবং মূল গুদাম পর্যন্ত অনুসরণ করা যায় যেখানে রেকর্ড পাওয়া যায় ও সেগুলোকে রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়, যেমন, রাসায়নিকের লট নম্বর, পরিমাণ, এবং তারিখ (জমা করা এবং ব্যবহারের জন্য বার করার) সহ জমা দেয়া এবং বার করার লগ্‌।
  • কারখানাতে নির্মিত কিছু (সবগুলো নয়) পণ্যের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা রাসায়নিকের লট নম্বর এবং পণ্যের ব্যাচ নম্বরের মধ্যে যোগসূত্র প্রতিষ্ঠিত হয়ে যায়

আবশ্যক ডকুমেন্টেশন:

  • পণ্যের ব্যাচ কার্ড যার অন্তর্ভুক্ত হলো ব্যাচ নম্বর, তারিখ এবং উৎপাদনের পরিমাণ
  • রেসিপি কার্ড, ফর্ম্যুলেশন শীট, প্রক্রিয়ার নির্দেশনা (যেখানে প্রযোজ্য), যাতে খুঁজে পাওয়ার মতো সমস্ত তথ্য থাকবে, যেমন, রাসায়নিকের নাম, লট নম্বর, এবং পরিমাণ
  • রাসায়নিক মিশ্রণ/মেলানোর প্রক্রিয়ার লগ, ল্যাব রেকর্ড (যেমন, কালার ল্যাব, ওয়াশিং ল্যাব, ইত্যাদি), যার অন্তর্ভুক্ত হলো প্রাসঙ্গিক তথ্যাবলী যেমন মিশ্রণে ব্যবহৃত রাসায়নিকের নাম এবং পরিমাণ
  • রাসায়নিক সংরক্ষণের লগ, যার অন্তর্ভুক্ত হলো অস্থায়ী/চালু সংরক্ষণাগার এবং মূল গুদাম যেখানে স্থিতিশীল রেকর্ড পাওয়া যায়, যেমন, রাসায়নিকের লট নম্বর, পরিমাণ, এবং তারিখ (জমা করা এবং ব্যবহারের জন্য বার করার) সহ জমা দেয়া এবং বার করার লগ্‌।

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • ম্যানেজাররা/কর্মচারীরা প্রতিটি পণ্যের ব্যাচ থেকে প্রতিটি রাসায়নিকের লট অবধি একটি ডকুমেন্ট করা অনুসরণযোগ্য এবং ট্র্যাক করার মতো ব্যবস্থা প্রদর্শন করতে পারেন।
  • কর্মচারীরা বিষয়বস্তু সম্পর্কে বোঝেন এবং পণ্যের ব্যাচ রেকর্ড, প্রক্রিয়ার নির্দেশাবলী, রেসিপি, ব্যবহারের রেকর্ড, সংরক্ষণের রেকর্ড, বিশেষ করে সেইসব প্রক্রিয়াগুলোর জন্য যেগুলোতে রাসায়নিকের ব্যবহার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে যেমন ডাই করা, ওয়াশিং, প্রিন্টিং, অথবা যেখানে প্রযোজ্য ফিনিশিং

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • রেকর্ড পর্যালোচনা (উপরে বাধ্যবাধকতাগুলো দেখে নিন)
  • বর্তমানে কারখানার নির্মাণ প্রক্রিয়ার মধ্যে থাকা ১-২টি পণ্যের র‍্যাণ্ডম চেক করুন, এবং পণ্যগুলো যে প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে গেছে সেইসব প্রতিটি প্রক্রিয়ার সংশ্লিষ্ট রেসিপি এবং ব্যাচ কার্ড অনুসরণ করে শুরু অবধি যান
  • প্রতিটি প্রক্রিয়াতে চিহ্নিত রেসিপি/ব্যাচ কার্ডের ৩-৪টি রাসায়নিকের র‍্যাণ্ডম চেক করুন যাতে চূড়ান্ত পণ্যটি থেকে শুরু করে মিশ্রণ এলাকা এবং সংরক্ষণের জন্য গুদাম পর্যন্ত নথিপত্র অনুসরণ করা যায়। পণ্যের ব্যাচ নম্বর এবং রাসায়নিকের লট নম্বরের মধ্যে যোগসূত্র স্থাপন করা যায় কিনা এবং ডকুমেন্টেশন পাওয়া যায় কিনা ও তা রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়েছে কিনা দেখুন।

(টীকাঃ সমস্ত কিছু আপলোড করার প্রয়োজন নেই, কিন্ত যাচাই চলাকালীন পুনর্বিবেচনার জন্য হাতের কাছে থাকা দরকার) প্রস্তাবিত আপলোডের অন্তর্ভুক্ত হতে পারে নিচের কয়েকটি অভ্যাসগুলোকে প্রদর্শন করার জন্যঃ ক) যোগ্য সরবরাহকারীদের কাছ থেকে রাসায়নিক কেনার জন্য এসওপি (যদি আগে আপলোড করে থাকেন, তাহলে লাগবে না); খ) সংশ্লিষ্ট রেকর্ড সহ গুণগত দপ্তর যেমন খদ্দেরদের পরীক্ষার রিপোর্ট, গবেষণাগারে লট ধরে রাসায়নিকের বিশ্লেষণমূলক পরীক্ষার ফলাফল; গ) রাসায়নিক সরবরাহকারীর বিশ্লেষণমূলক পরীক্ষার ফলাফল; ঘ) ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে গুণগত মানের রিপোর্ট; ঙ) বিগত মরসুমে সম্পাদন করা বিশ্লেষণের ইন-হাউস রেকর্ড; চ) বহিরাগত জেডডিএইচসি এমআরএসএল গৃহীত ল্যাব থেকে পরীক্ষার ফলাফলের রেকর্ড যা বিগত মরসুমে বিশ্লেষণ করা হয়েছিল এবং খুঁটিয়ে দেখা যে সেগুলো এমআরএসএল আবশ্যকতার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ; ছ) বিশ্লেষণের ফলাফল যেগুলোকে তাদের সংশ্লিষ্ট অভ্যন্তরীণ অর্ডার এবং সমাপ্ত হওয়া পণ্যের ব্যাচ পর্যন্ত অনুসরণ করা যায় 

উত্তরে হ্যাঁ বলবেন কেবলমাত্র যদি অন্তত বার্ষিক ভিত্তিতে একটি অর্গ্যানোলেপ্টিক এবং রাসায়নিক বিশ্লেষণের মাধ্যমে একটি পরিচিত মানদণ্ডের সাথে যেমন এমআরএসএল অথবা আরএসএল-এর প্রেক্ষিতে যেকোনো ভাবে বেছে নেয়া একটি রাসায়নিকের সঙ্গতিপূর্ণ থাকার বিষয়টি যাচাই করার কোনো সক্রিয় প্রক্রিয়া আপনার থাকে। এই কিউএ কর্মসূচীর অন্তর্ভুক্ত থাকা উচিতঃ ১) ব্যবহৃত প্রতিটি রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনের গুণগত মান এবং কর্মকুশলতার কার্যক্ষমতার মূল্যায়ন, ২) প্রতিটি রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনের রেসিপি কীভাবে ব্যবহার করতে হবে এবং কঠোরভাবে তা অনুসরণ করা হচ্ছে কিনা সেটি নিশ্চিত করা, ৩) প্রক্রিয়ার নিয়ন্ত্রণ কঠোরভাবে অনুসরণ করা হয়েছে, এবং ৪) সহায়ক রেকর্ড সহ উৎপাদনের গুণগত মানের অবিচ্ছিন্ন মূল্যায়ণ।

উত্তরে আংশিক হ্যাঁ বলবেন যদি ওয়র্ক অর্ডার পর্যন্ত অনুসরণ করা যাবে খরিদ্দারের এরকম কোনো পরীক্ষার ফলাফল এবং রাসায়নিক সরবরাহকারীর সঙ্গতিরক্ষার বিষয়টি যাচাই করার জন্য রেসিপি আপনার কারখানা ব্যবহার করে থাকে।

অপারেশনাল কী পারফর্ম্যান্স ইন্ডিকেটরঃ পণ্যের গুণগত মান/বিশুদ্ধতা

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

ক্রয় করা রাসায়নিকটি তার কারিগরি উপাত্তের কাগজ অনুযায়ী কাজ করছে কিনা সে বিষয়ে অভিনিবেশ থাকতে হবে। সঙ্গতিপূর্ণ রাসায়নিকগুলোকে প্রকৃত অর্থেই যাচাই করার জন্য নিজস্ব একটি প্রক্রিয়া (যেমন, স্ক্রিনিং, গবেষণাগারের পরীক্ষা) প্রতিষ্ঠা করতে চেয়ে রাসায়নিক ক্রয় করা কারখানাগুলোর জন্য এটি একটি খুবই পরিচিত অভ্যাস।

কারখানাতে গুণগত মানের জন্য একটি ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম থাকা প্রত্যাশিত যেটি রাসায়নিকগুলোর এমআরএসএল এবং আরএসএল-এর বাধ্যবাধকতাগুলোকে অর্জন করার জন্য মানদণ্ডের প্রেক্ষিতে তাদেরকে মূল্যায়ণ করা এবং সেগুলোকে পূরণ করাকে নিশ্চিত করে।

এই প্রশ্নটি গুরুত্বপূর্ণ কেন? রাসায়নিক সরবরাহের চেইনটি একটি বহু-স্তরীয়, মূল্য-সম্পন্ন প্রক্রিয়া, যার অন্তর্ভুক্ত হলেন ব্যবসায়ীরা, বিতরণকারীরা, ইত্যাদি। রাসায়নিকের আপস্ট্রিম ক্রিয়েশন এবং বিতরণ যাতে এমন রাসায়নিক সরবরাহ করে যেটি আরএসএল এবং/অথবা আপনার নিজের (অথবা আপনার খরিদ্দারের) দায়িত্ববান রসায়ন সম্পর্কিত চাহিদার ইনপুটকে পূরণ করতে পারে, সেটিকে নিশ্চিত করার জন্য অর্ডার দেয়া একটি রাসায়নিকের সাথে হাতে পাওয়া একটি রাসায়নিকের গুণগত মানের পার্থক্যটিকে বুঝতে পারা গুরুত্বপূর্ণ। সংগৃহীত প্রকৃত উপাত্তগুলোকে ভবিষ্যত ক্রয়ের ক্ষেত্রে কোনো রাসায়নিক সরবরাহকারীকে যুক্ত করা অথবা অপসারণ করার প্রক্রিয়াতে ব্যবহার করা উচিত।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

রেফারেন্সঃ জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ ১ (মে ২০২০) – অধ্যায় ১ এবং অধ্যায় ৩

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিকযেসব কারখানা ব্যবহার করে :

হ্যাঁ

  • অন্তত বার্ষিক ভিত্তিতে একটি অর্গ্যানোলেপ্টিক এবং রাসায়নিক বিশ্লেষণের মাধ্যমে একটি পরিচিত মানদণ্ডের সাথে যেমন এমআরএসএল অথবা আরএসএল-এর প্রেক্ষিতে যেকোনো  ভাবে বেছে নেয়া একটি রাসায়নিকের সঙ্গতিপূর্ণ থাকার বিষয়টি যাচাই করার কোনো সক্রিয় প্রক্রিয়া কারখানাটিতে রয়েছে।
  • এই কিউএ কর্মসূচীর অন্তর্ভুক্ত থাকা উচিতঃ ১) ব্যবহৃত প্রতিটি রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনের গুণগত মান এবং কর্মকুশলতার কার্যক্ষমতার মূল্যায়ন, ২) প্রতিটি রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনের রেসিপি কীভাবে ব্যবহার করতে হবে এবং কঠোরভাবে তা অনুসরণ করা হচ্ছে কিনা সেটি নিশ্চিত করা, ৩) প্রক্রিয়ার নিয়ন্ত্রণ কঠোরভাবে অনুসরণ করা হয়েছে, এবং ৪) সহায়ক রেকর্ড সহ উৎপাদনের গুণগত মানের অবিচ্ছিন্ন মূল্যায়ণ।

আংশিক হ্যাঁ 

  • ওয়র্ক অর্ডার পর্যন্ত ট্রেস করা যাবে ক্রেতাদের পরীক্ষার এরকম কোনো ফলাফল এবং রাসায়নিক সরবরাহকারীর সঙ্গতিরক্ষার বিষয়টি আপনার কারখানা ব্যবহার করে।
  • রাসায়নিক সরবরাহকারীর বিশ্লেষণের পরীক্ষার ফলাফল।

আবশ্যক ডকুমেন্টেশন:

  • গুণগত মানের দপ্তর সংশ্লিষ্ট রেকর্ড সহ যেমন প্রতিটি রাসায়নিকের প্রতিটি লট অনুযায়ী খরিদ্দারদের পরীক্ষার ফলাফল, বিশ্লেষণাত্মক গবেষণাগারের পরীক্ষার ফলাফল।
  • রাসায়নিক সরবরাহকারীর বিশ্লেষণের পরীক্ষার ফলাফল।
  • মানসম্পন্ন সরবরাহকারীদের থেকে রাসায়নিক কেনার জন্য এসওপি
  • ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে গুণগত মানের রিপোর্ট
  • গত মরসুমে সংঘটিত বিশ্লেষণের অভ্যন্তরীণ রেকর্ড
  • গত মরসুমে বহিরাগত গবেষণাগার থেকে করানো বিশ্লেষণের ফলাফলের রেকর্ড পরীক্ষা করুন এবং দেখুন যে সেগুলো এমআরএসএল-এর শর্তগুলো পূরণ করছে কিনা।
  • বিশ্লেষণের ফলাফল তাদের সংশ্লিষ্ট অভ্যন্তরীণ অর্ডার এবং চূড়ান্ত পণ্যের ব্যাচ অবধি ট্রেস করা যায় কিনা
  • কারখানাটি কি তাদের অভ্যন্তরীণ ফলাফল বহিরাগত গবেষণাগারের কাছে নির্ভুলতা পরীক্ষা করে দেখার জন্য পাঠিয়ে থাকে?
  • সমস্ত রেকর্ড এক বছর রাখা হয়

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • কিউএ ম্যানেজার, ল্যাব ম্যানেজার কি প্যারামিটার সম্পর্কে জানেন, এবং কোনটি অভ্যন্তরীণভাবে করতে হবে এবং কোনটি বাইরে কাউকে দিয়ে করাতে হবে সে সম্পর্কে কি তারা অবহিত আছেন?
  • কোন গবেষণাগার কোন পরীক্ষাটি করতে পারবে সে সম্পর্কে কি কারখানাটি অবহিত?
  • পরীক্ষাগুলো করার জন্য গবেষণাগারগুলোর শংসাপত্র বা স্বীকৃতি থাকতে হবে।
  • গবেষণাগারগুলোর তাদের খরিদ্দারদের জানাতে হবে যদি কোনো একটি পরীক্ষা তারা অন্য কোনো গবেষণাগারকে দিয়ে করাতে চায়।
  • নিজেদের খরিদ্দারদের জন্য সংঘটিত করা পরীক্ষাগুলোর জন্য গবেষণাগারগুলোকে নিয়মিতভাবে কোরিলেশন স্টাডিজ-এ অংশ নিতে হবে (“রাউন্ড রবিন” অথবা না-দেখা নমুনা)
  • গবেষণাগারগুলোর যুক্তিসঙ্গত বিশ্লেষণ-সম্পর্কিত সময়সীমা দিতে হবে

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • উৎপাদন নিয়ন্ত্রণের জন্য যে ন্যূনতম প্যারামিটার বিবেচনা করতে হবে তা নিম্নলিখিতঃ
  • অভ্যন্তরীণভাবে সংঘটিত বিশ্লেষণঃ
    • পিএইচ (ব্যতিক্রম ট্যানারীগুলো যেখানে এই পরীক্ষাটি করা হয় না)।
    • রঙ না ওঠাঃ 
      • ঘামে ভিজে
      • পানিতে
      • ঘষায় (শুকনো এবং ভেজা)।
      • লালায় (কেবলমাত্র বাচ্চাদের পোশাকের ক্ষেত্রে)।
  • বিশ্লেষণ বাইরে থেকে করাতে হবেঃ 
    • অ্যারিলামাইন্‌স
    • ফর্ম্যালডিহাইড
    • উপাদান
    • এপিও এবং পিএফসিগুলো
  • প্রমাণ হিসেবে ছবি তুলুন যদি কারখানাতে এগুলো থাকে – তাপমান নিয়ন্ত্রণের জন্য পিএইচ মিটার, পিএইচ বিশ্লেষণের জন্য একটি পর্যাপ্ত শেকার, ঘষার বিপরীতে স্থায়িত্ব বিশ্লেষণের জন্য একটি যথার্থ ক্রকমিটার, রঙের স্থায়িত্ব বিশ্লেষণের জন্য একটি মনোফাইবার স্পেশিস (যদি প্রযোজ্য হয়), ভারসাম্য, চুলা (যদি প্রযোজ্য হয়), রঙের স্থায়িত্ব বিশ্লেষণের ফলাফলের জন্য একটি গ্রে স্কেল (যদি প্রযোজ্য হয়), লাইট বক্স – অবস্থানমূলক প্রিন্টিং মিল এবং লন্ড্রিগুলোর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয় যেখানে রঞ্জন প্রক্রিয়া নির্বাহ করা হয় না, আইন অনুযায়ী পিএইচ বিশ্লেষণ করা হয়ে থাকেঃ একটি ডেমো দেখতে চাইবেন
  • অভ্যন্তরীণ ল্যাবে একটি গুণগত মানসম্পন্ন রাসায়নিক পরীক্ষা করার জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি আছে কিনা পরীক্ষা করুন
  • রাসায়নিকের একটি রশিদের নমুনা/পরীক্ষার পর্যালোচনা প্রক্রিয়া
  • রাসায়নিক সরবরাহকারীর বিশ্লেষক পরীক্ষার ফলাফলের রিপোর্টের পর্যালোচনা প্রক্রিয়া
  • গুণগত মানের ভিত্তিতে একজন রাসায়নিক সরবরাহকারীকে যোগ করা/ অপসারণ করার পর্যালোচনা প্রক্রিয়া

আপলোডের জন্য সুপারিশ: ক) প্রক্রিয়াগুলোর বিবরণ; খ) ইতিবাচক তালিকা থেকে রাসায়নিক সরবরাহ করার চর্চাটি দেখিয়ে সরবরাহকারী এবং উপঠিকাদারদের সাথে সংযোগ স্থাপন করা; গ) সরবরাহকারী এবং উপঠিকাদারদের থেকে হিগ্‌-এর মাধ্যমে যাচাইয়ের রিপোর্ট নেয়া যেটি থেকে জানা যাবে যে তারা শর্তগুলো পূরণ করেছে।

উত্তরে হ্যাঁ বলুন যদি আপনার কারখানার এরকম কোনো পদ্ধতি বলবৎ থাকে যেটি অনুযায়ী সমস্ত ঠিকাদার এবং উপঠিকাদারদের কাছে একটি অগ্রাধিকার-প্রাপ্ত রাসায়নিকের তালিকা থাকতে হবে যেটির ব্যবহার তাদের যাচাই করতে হবে।

উত্তরে আংশিক হ্যাঁ বলবেন একটি ইতিবাচক তালিকা থেকে সরবরাহকারীদের রাসায়নিকগুলোকে বেছে নিতে অনুরোধ জানানোর মাধ্যমে তাদের কাজে লাগানোর ক্ষেত্রে আপনার যদি কোনো কার্য পরিকল্পনা থাকে।

প্রয়োগগত প্রধান কর্মকুশলতার সূচক:  রাসায়নিক নির্বাচন, যোগাড়, এবং ক্রয়ের অভ্যাস

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

মানুষ এবং পরিবেশের প্রতি ঝুঁকির পরিমাণ বেশি থাকা রসায়নকে প্রতিস্থাপন করার জন্য কম বিপদ এবং ঝুঁকিসম্পন্ন রাসায়নিকগুলোকে কারখানাগুলোর সক্রিয়ভাবে খোঁজা উচিত (এমআরএসএল এবং আরএসএল-এর বাইরেও)। এই প্রশ্নটি সেইসব কারখানাগুলোকে পুরস্কৃত করার জন্য যেটি একই উদ্দেশ্যে অগ্রাধিকার-প্রাপ্ত রাসায়নিকের তালিকা ব্যবহার করার জন্য আপস্ট্রিম সরবরাহকারীদের কাছেও গেছে।

বিপজ্জনক রাসায়নিকগুলোকে প্রতিস্থাপন করা পরিবেশ, কর্মীদল, ক্রেতা এবং জনস্বাস্থ্যের ঝুঁকি কম করার ক্ষেত্রে একটি প্রাথমিক পরিমাপ। ইতিবাচক বিকল্পগুলোকে চিহ্নিত করার জন্য বিবিধ ব্র্যান্ড-চালিত এবং তৃতীয়-পক্ষীয় কর্মসূচী  রয়েছে। এই বিকল্পগুলোর জন্য এবং সামগ্রিকভাবে সবুজ রসায়ন উদ্যোগের জন্য চাহিদাকে চালনা করা, বয়ন এবং জুতো শিল্পের অস্তিত্বযোগ্যতাকে উন্নততর করবে।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

বিপজ্জনক পদার্থকে চিহ্নিত করার জন্য নির্দিষ্ট ফর্ম্যুলেশনের উপাদানগুলোকে স্ক্রীন করার মাধ্যমে ইতিবাচক তালিকা গঠন করার বিষয়টি খেয়াল করা গুরুত্বপূর্ণ। ফর্ম্যুলেশনে ব্যবহৃত রাসায়নিকের উপাদানগুলোর এবং এইসব রাসায়নিকের নির্মাতা কারখানাগুলোর গুণগত প্রক্রিয়ার একটি মূল্যায়ণের বিষয়টি ইতিবাচক তালিকাগুলোর বিবেচনা করা উচিত। এই দ্বিতীয় দৃষ্টিকোণটি দীর্ঘ সময় ধরে রাসায়নিক ফর্ম্যুলেশনের উপাদানের স্থায়ীত্ব নিশ্চিত করা এবং অবাঞ্ছিত অশুদ্ধতা খুঁজে পাওয়ার ঝুঁকিকে সীমাবদ্ধ করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। সেফটি ডেটা শিটে প্রাপ্ত রাসায়নিক মিশ্রণের উপাদান সম্পর্কিত তথ্য (কেবলমাত্র) ইতিবাচক তালিকা তৈরির জন্য ব্যবহার করা উচিত নয় যেহেতু এসডিএস-এ প্রাপ্ত বিবরণের স্তর সাধারণত অশুদ্ধতা বা অনিচ্ছাকৃতভাবে যুক্ত হয়ে যাওয়া সেইসব পদার্থকে চিহ্নিত করে না যেগুলো প্রায়শই একটি আরএসএল বা এমআরএসএল-এর সাথে সামঞ্জস্যবিহীনতার উৎস হতে পারে।

  • জেডডিএইচসি রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ফ্রেমওয়র্ক – সংস্করণ ১ (মে ২০২০) – অধ্যায় ২
  • BLUESIGN® ব্লুফাইণ্ডার
  • খরিদ্দার সরবরাহকারী এমআরএসএল / রাসায়নিকের ইতিবাচক তালিকা।
  • জেডডিএইচসি এমআরএসএল লেভেল ৩, BLUESIGN®, জিওটিএস, ওইকেও-টিইএক্স®, অন্যান্য।

আরও তথ্যের জন্য কোথায় যেতে হবেঃ 

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিকযেসব কারখানা ব্যবহার করে :

হ্যাঁ

  • একটি ব্যবস্থা রয়েছে যেটি সমস্ত ঠিকাদার এবং উপঠিদারদের একটি অগ্রাধিকার-প্রাপ্ত রাসায়নিকের তালিকা থাকা এবং সেগুলোর ব্যবহারকে যাচাই করার বিষয়টিকে বাধ্যতামূলক করে।

আংশিক হ্যাঁ

  • একটি ইতিবাচক তালিকা থেকে নির্বাচিত রাসায়নিকের জন্য অনুরোধ জানানোর মাধ্যমে সরবরাহকারীদেরকে নিযুক্ত করার কার্যপরিকল্পনা

আবশ্যক ডকুমেন্টেশন:

  • প্রক্রিয়াগুলোর বিবরণ।
  • সরবরাহকারী এবং উপঠিকাদারদের সাথে যোগাযোগ করার ফলে ইতিবাচক তালিকা থেকে রাসায়নিক যোগাড় করার অভ্যাসটিকে সুনিশ্চিত করা হয়
  • সরবরাহকারী/ উপঠিকাদারদের থেকে, যদি পাওয়া যায়, হিগ্‌ যাচাইয়ের ফলাফলটি দেখায় যে তারা সিএম 2.3-এর শর্তটি পূরণ করেছেন

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • প্রধান কর্মীরা কি এই প্রক্রিয়াগুলো বোঝেন?

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • এই প্রক্রিয়াগুলোকে কীভাবে অভ্যাসে পরিণত করা হয় তার একটি পর্যবেক্ষণ

আপনার কারখানা কি এটির লক্ষ্য, প্রক্রিয়া এবং পদক্ষেপগুলোকে ব্র্যান্ড এবং সরবরাহকারীদেরকে জানায়?

আপলোডের জন্য সুপারিশ: ক) বর্তমান রসায়নের আর অ্যান্ড ডি প্রকল্প/ বিনিয়োগের বিবরণ বা উদাহরণ; খ) আপনার ব্যবসায়িক চুক্তিতে আপনি কীভাবে দায়িত্বপূর্ণ রসায়ন আরোপ করেছেন তার উদাহরণ।

উত্তরে হ্যাঁ বলবেন কেবলমাত্র যদি আপনি এটি প্রদর্শন করতে পারেন যে দায়িত্বশীল রাসায়নিকগুলোকে নিজস্ব ব্যবসায়িক চুক্তি এবং নথিবদ্ধ ব্যবসায়িক লক্ষ্যে আরোপ করার মাধ্যমে দায়িত্বশীল রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা এবং আবিষ্কারকে ব্যবসায়িক সিদ্ধান্তসমূহে বিবেচনা করা হয়।

উত্তরে আংশিক হ্যাঁ বলবেন যদি অন্যথায় আপনি দেখাতে পারেন যে ব্যবসায়িক সিদ্ধান্তগুলো দায়িত্বপূর্ণ রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা এবং আবিষ্কারকে বিবেচনা করে।

প্রয়োগমূলক মূল কর্মকুশলতার সূচক (অপারেশনাল কী পারফর্ম্যান্স ইন্ডিকেটর):  রাসায়নিক এবং প্রক্রিয়া আবিষ্কার

এই প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি?

এই প্রশ্নে, আপনার কারখানাটি ব্যবসায়িক সিদ্ধান্তগুলো যে দায়িত্বশীল রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা এবং আবিষ্কারকে বিবেচনা করে সেটি প্রদর্শন করতে পারবে বলে আমরা প্রত্যাশা করি। এর অর্থ হলো যে আপনি কেবলমাত্র নীতিমালা লিখছেন না, বরং সক্রিয়ভাবে দায়িত্বশীল রাসায়নিকগুলোকে আপনার নিজের ব্যবসায়িক চুক্তিতে আরোপ করছেন। ব্যবসায়িক পুরস্কার আরোপিত হলে আচরণ প্রকৃতপক্ষেই পরিবর্তিত হবে। রাসায়নিক ব্যবস্থাপনায় সহায়তা প্রদানকারী নথিবদ্ধ ব্যবসায়িক লক্ষ্য-সম্পন্ন কারখানাগুলোর তাদের সাপ্লাই চেইনের অংশীদারদেরকেও তাদের উদ্দেশ্য বিষয়ে অবহিত করা উচিত।

প্রকৃত অর্থে অস্তিত্বমূলক উন্নতি ঘটবে কেবলমাত্র যখন অস্তিত্বমূলক বিষয়গুলোকে ব্যবসায়িক সিদ্ধান্তে আরোপিত করা হবে।

প্রযুক্তিগত নির্দেশনাঃ

প্রক্রিয়া পরিবর্তনে আবিষ্কারগুলো যেমন লবণ-মুক্ত রঞ্জনকার্য, দ্রাবক-মুক্ত প্রক্রিয়াকরণ, পানিবিহীন রঞ্জনকার্য, ফিনিশিঙের জন্য প্লাজমা প্রযুক্তি অথবা ইলেক্ট্রোকেমিক্যাল রঞ্জন প্রক্রিয়া, বিবিধ রাসায়নিক পুনরুদ্ধার/পুনর্ব্যবহার করা যেমন পটাশিয়াম পারম্যাঙ্গানেট, অ্যালকালি ইত্যাদি, পানি এবং শক্তি সংরক্ষণের জন্য মেশিনের উন্নতিবিধান অথবা বৈপ্লবিক পরিবর্তনের পথ প্রতিষ্ঠা করার জন্য নতুন প্রক্রিয়া গঠন এবং সামগ্রিক পরিবেশগত প্রভাবের উন্নতিবিধান।

শব্দকোষঃ

  • এসএমএআরটি লক্ষ্য স্থির করার জন্য একটি সর্বোত্তম চর্চাভিত্তিক ফ্রেমওয়র্ক। এসএমএআরটি’র একটি লক্ষ্য সুনির্দিষ্ট, পরিমাপযোগ্য, অর্জনযোগ্য, বাস্তবনির্ভর এবং সময়ভিত্তিক হওয়া উচিত

তৈরি করার জন্য টেমপ্লেটঃ এসএমএআরটি (স্মার্ট) টেমপ্লেট

আরও তথ্যের জন্য কোথায় যেতে হবেঃ 

এটা কীভাবে যাচাই করা যাবেঃ

উৎপাদন প্রক্রিয়ায় রাসায়নিকযেসব কারখানা ব্যবহার করে :

হ্যাঁ

  • কারখানাটি দেখাতে পারবে যে ব্যবসায়িক সিদ্ধান্তগুলো  দায়িত্বপূর্ণ রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা এবং আবিষ্কারকে বিবেচনা করে।
  • দায়ী রাসায়নিকগুলোকে কারখানাটি সক্রিয়ভাবে নিজের ব্যবসায়িক চুক্তিপত্রে আরোপ করছে।
  • নতুন ধরনের অস্তিত্বমূলক রাসায়নিক খোঁজার জন্য কারখানাটির একটি পরিকল্পনা রয়েছে।
  • রাসায়নিক ব্যবস্থাপনায় সহায়তা প্রদানকারী নথিবদ্ধ ব্যবসায়িক লক্ষ্য-সম্পন্ন কারখানাগুলোর তাদের সাপ্লাই চেইনের অংশীদারদেরকেও তাদের উদ্দেশ্য বিষয়ে অবহিত করা উচিত।

আংশিক হ্যাঁ 

  • কারখানাটি দেখাতে পারবে যে ব্যবসায়িক সিদ্ধান্তগুলো  দায়িত্বপূর্ণ রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা এবং আবিষ্কারকে বিবেচনা করে।

আবশ্যক ডকুমেন্টেশন:

  • বর্তমান রসায়ন-সংক্রান্ত আর অ্যান্ড ডি প্রকল্পগুলো/ বিনিয়োগসমূহের বিবরণ অথবা উদাহরণসমূহ
  • কীভাবে কারখানাটি দায়বদ্ধ রসায়নকে আপনার ব্যবসায়িক চুক্তিতে কাজে লাগিয়েছে তার উদাহরণসমূহ।

জিজ্ঞাসা করার জন্য প্রশ্নঃ

  • দায়িত্বশীল রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা এবং আবিষ্কারকে বিবেচনাকারী ব্যবসায়িক সিদ্ধান্ত সম্পর্কে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ, দায়িত্বপ্রাপ্ত ম্যানেজার।

পরিদর্শন – শারীরিকভাবে যে বিষয়গুলোকে দেখতে হবেঃ

  • দায়িত্বশীল রাসায়নিক ব্যবস্থাপনা এবং আবিষ্কারকে বিবেচনাকারী ব্যবসায়িক সিদ্ধান্ত সম্পর্কে নথিবদ্ধ পরিকল্পনা এবং পদক্ষেপের পর্যালোচনা।

 

top
X